করোনার চেয়ে ভয়ঙ্কর হাসপাতালের পরিষেবা! মৃত্যুর আগে ভিডিয়োয় সেই দৃশ্য তুলে ধরলেন রোগী

রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলিতে বিশ্বমানের চিকিত্সা হচ্ছে বলে একাধিকবার দাবি করেছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। কিন্তু বাস্তবে বিজেপিশাসিত উত্তরপ্রদেশের হাসপাতালে একের পর এক খবরে উঠে আসছে অবহেলা ও অব্যবস্থার চিত্র।

Updated By: Jul 28, 2020, 05:25 PM IST
করোনার চেয়ে ভয়ঙ্কর হাসপাতালের পরিষেবা! মৃত্যুর আগে ভিডিয়োয় সেই দৃশ্য তুলে ধরলেন রোগী
ভিডিয়োর স্ক্রিনগ্র্যাব

নিজস্ব প্রতিবেদন : উত্তরপ্রদেশের একটি সরকারি হাসপাতালে করোনা মোকাবিলার চিত্র মৃত্যুর কয়েক ঘণ্টা আগে ভিডিয়োয় তুলে ধরলেন এক রোগী। হৃদয়বিদারক এই ভিডিয়োয় তাঁকে অন্য কোথাও স্থানান্তরিত করে চিকিত্সার ব্যবস্থা করার অনুরোধ করেন তিনি। যদিও তা হয়নি, এবং কোভিডে প্রাণ হারান তিনি।

প্রায় ৫২ সেকেন্ডের এই ভিডিয়োটি উত্তরপ্রদেশের ঝাসি মেডিকেল কলেজে করা বলে খবর। সোমবাপই সেখানে কোভিড ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয় তাঁকে। শ্বাসকষ্টে ভুগতে ভুগতে ভিডিয়োয় কথা বলতে দেখা যায় তাঁকে। তাঁর গেঞ্জিতে দেখা যায় রক্তের দাগ।

ভিডিয়োয় তিনি বলেন, "পানীয় জলের কোনও ব্যবস্থা নেই। আমার খুব অসুবিধা হচ্ছে। আমাকে অন্য হাসপাতালে নিয়ে যান। এখানে কোনও সেবা-সুশ্রষা নেই। এখানে কোনও ব্যবস্থাই নেই এবং চূড়ান্ত অবহেলা করা হচ্ছে।" তাঁর আশেপাশে শুয়ে থাকা অন্যান্য বেডেও কোভিড রোগীদের দেখা যায় ভিডিয়োতে। 

এই ভিডিয়ো করার পরেই মৃত্যু হয় তাঁর। কিন্তু, ভিডিয়ো প্রকাশের কতক্ষণ পর তিনি দেহত্যাগ করেছেন সে বিষয়ে এখনও কিছু জানা যায়নি।

ভিডিয়োটির সত্যতা স্বীকার করে ঝাসির চিফ মেডিক্যাল অফিসার বলেন, ওই ব্যক্তির স্ত্রী ও মেয়েও করোনা পজিটিভ। তাঁদের অন্য একটি হাসপাতালে রাখা হয়েছে। যদিও তাঁদের কোনও করোনার লক্ষণ নেই। ভিডিয়ো করা অভিযোগ সম্পর্কে তাঁকে প্রতিক্রিয়া দিতে বলা হলে তিনি মুখ খুলতে অস্বীকার করেন।

রাজ্যের সরকারি হাসপাতালগুলিতে বিশ্বমানের চিকিত্সা হচ্ছে বলে একাধিকবার দাবি করেছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। কিন্তু বাস্তবে বিজেপিশাসিত উত্তরপ্রদেশের হাসপাতালে একের পর এক খবরে উঠে আসছে অবহেলা ও অব্যবস্থার চিত্র। সেই সঙ্গে রাজ্যের বিপুল জনসংখ্যার চাপ যে পরিস্থিতি আরও জটিল করে তুলছে, তা বলাই বাহুল্য। 

গত সপ্তাহেই প্রয়াগরাজের এক সরকারি হাসপাতাল থেকে পালাতে দেখা যায় ৫৭ বছরের এক কোভিড আক্রান্তকে। সিসিটিভিতে তা নজরে আসার পরেই শুরু হয় খোঁজ। কিন্তু ততক্ষণে তিনি পালিয়ে যান। রবিবার একটি ঝোপের মধ্যে তাঁর দেহ মেলে। হাসপাতালের ভয়াবহ পরিস্থিতি দেখে ২৪ ঘণ্টা থেকেই পালানোর চেষ্টা করেন ওই ব্যক্তি, এমনই অভিযোগ তোলেন তাঁর পরিবার।

আরও পড়ুন : চিকিত্সকের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ বছর কুড়ির তরুণীর, করোনা ওয়ার্ডে ঢুকেই পুলিসের রহস্যভেদ!