চলতি মরশুমে ইস্টবেঙ্গলের আই লিগ বা ISL খেলা অনিশ্চিত হয়ে পড়তে পারে!

৩১ মে এর পর কোয়েস-এর সঙ্গে গাঁটছড়া ভেঙেছে লাল হলুদের। যদিও সমস্ত স্পোর্টিং রাইটস-ই এখনও কোয়েস-এর দখলে। নো অবজেকশন সার্টিফিকেট এখনও দেয়নি তারা।

Updated By: Jul 14, 2020, 09:49 PM IST
চলতি মরশুমে ইস্টবেঙ্গলের আই লিগ বা ISL খেলা অনিশ্চিত হয়ে পড়তে পারে!
ছবি: সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদন: চাপ আরও বাড়ল ইস্টবেঙ্গলের উপর।  আগামী  ১০দিন সময়ের সঙ্গে লড়তে হবে লাল-হলুদ কর্তাদের। না হলে অনিশ্চিত হয়ে পড়তে পারে চলতি মরশুমে ইস্টবেঙ্গলের আই লিগ বা আইএসএল খেলা।

মঙ্গলবার রাতেই ক্লাব লাইসেন্সিং-এর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আই লিগ আর আইএসএল ক্লাবগুলোকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন  লিগ সিইও  সুনন্দ ধর। সেই কাগজপত্রে সই আর স্টাম্পিং করিয়ে ১০ দিনের মধ্যে ফেডারেশনের কাছে ফেরত পাঠাতে হবে ক্লাবগুলোকে। নিয়ম মতোই ক্লাব লাইসেন্সিং এর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র কোয়েস ইস্টবেঙ্গলকে পাঠিয়েছে এআইএফএফ। আর এখানেই জটিলতা শুরু।

 

৩১ মে এর পর কোয়েস-এর সঙ্গে গাঁটছড়া ভেঙেছে লাল হলুদের। যদিও সমস্ত স্পোর্টিং রাইটস-ই এখনও কোয়েস-এর দখলে। নো অবজেকশন সার্টিফিকেট এখনও দেয়নি তারা। এই পরিস্থিতিতে কোয়েস ইস্ট বেঙ্গল এর কাছে এসে পৌঁছাল ক্লাব লাইসেন্সিং এর প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। কোম্পানির সব ডিরেক্টরকেই ক্লাব লাইসেন্সিং এর কাগজপত্র পাঠানো হয়েছে। ক্লাব লাইসেন্সিং এর জন্য নতুন কোম্পানির নাম ফেডারেশনে নথিভুক্ত করতে হলে এখনও বেশ কয়েকটা প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে লাল হলুদকে।

ফলে বুধবার সকাল থেকে নতুন করে তোড়জোড় শুরু করতে হবে ইস্টবেঙ্গল কর্তাদের। কেননা তাদের হাতে সময় খুবই কম। আর কোয়েস নতুন করে জটিলতা তৈরি করলে ইস্টবেঙ্গলের এই মরশুমে খেলাই অনিশ্চিত হয়ে পড়তে পারে।

 

আরও পড়ুন- সৌরভকে খোঁচা দিলে, ঠিক সময়ে জবাব পেয়ে যাবেন!