close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

দুধে সোনা থাকলে, ৪০ হাজার টাকা দরেই দুধ কিনুক বিজেপি নেতারা! দাবি তৃণমূলের

গোরুর দুধ ৪০ টাকা প্রতি লিটার করে বিক্রি করা হয়। এখন সোনার ভরি ৪০ হাজার টাকা করে। কলেজ ছাত্র থেকে বেকার যুবকরা সোনার দরে দুধ বেচে জীবিকা নির্বাহ করতে চায়।

Updated: Nov 8, 2019, 01:18 PM IST
দুধে সোনা থাকলে, ৪০ হাজার টাকা দরেই দুধ কিনুক বিজেপি নেতারা! দাবি তৃণমূলের

নিজস্ব প্রতিবেদন : গোরুর দুধে সোনা আছে! দিলীপ ঘোষের এই বক্তব্যের পর থেকেই নানা মিম, জোকসে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেয়ে গিয়েছে। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের মন্তব্যকে কটাক্ষ করে এবার তৃণমূলের পক্ষ থেকে এক অভিনব ব্যাঙ্গাত্মক কর্মসূচি নেওয়া হল। এদিন শ্রীরামপুর স্টেশনে টিকিট কাউন্টারের সামনে একটি গোরু নিয়ে আসা হয়। সেখানেই দুধ কেনার জন্য ক্রেতাদের আহ্বান করা হয়। সেখানে তৃণমূলের পক্ষ থেকে সোনার দরে দুধ কেনার জন্য আহ্বান করা হয় বিজেপি কর্মীদের। তৃণমূলের দাবি, গোরুর দুধ ৪০ টাকা প্রতি লিটার করে বিক্রি করা হয়। এখন সোনার ভরি ৪০ হাজার টাকা করে। দিলীপ ঘোষের বক্তব্য অনুযায়ী দুধে সোনা আছে! তাই বিজেপি কর্মীদের এই দুধ কিনতে হবে সোনার দরে।

আরও বলা হয়, কলেজ ছাত্র থেকে বেকার যুবকরা সোনার দরে দুধ বেচে জীবিকা নির্বাহ করতে চায়। তাই সত্যি-ই যদি দুধে সোনা থাকে, তাহলে বিজেপির লোকজন সেই দুধ কিনুক। এই মর্মে পোস্টার লিখে রীতিমতো প্রচার করতেও দেখা যায় তৃণমূল কর্মী, সমর্থকদের। এমনকি নজরে আসে বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষকে গোয়ালা সাজিয়ে ছাপানো ব্যানারও। এদিকে এই ছবি সামনে আসতেই নিন্দায় সরব হয়েছে বিজেপি শিবির। গেরুয়া বাহিনীর অভিযোগ, রাজ্য সভাপতির বক্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা করছে তৃণমূল। মানুষকে ভুল বোঝাতে নাটক শুরু করেছে তৃণমূল। ওরা সবেতেই রাজনীতি করে।

প্রসঙ্গত, সোমবার বর্ধমানে দুগ্ধ ব্যবসায়ীদের এক সভায় দিলীপবাবু একই সঙ্গে দাবি করেন, 'দেশি গরুর কুঁজে তৈরি হয় সোনা।' কীভাবে সেই সোনা তৈরি হয়, তাঁর ব্যাখ্যাও দেন তিনি। বলেন, 'গরুর কুঁজে স্বর্ণনালি থাকে। তাতে সূর্যের আলো পড়লে সোনা তৈরি হয়।' দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্যের পরই হুলুস্থুলু পড়ে যায়। মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ে দিলীপ ঘোষের 'সোনার দুধ'-এর তত্ত্ব। নেটিজেনরা মজে ওঠে মিমে। পাশাপাশি, দিলীপ ঘোষের বক্তব্যের পিছনে শুরু হয়ে যায় বৈজ্ঞানিক সত্যের খোঁজও।

এই প্রসঙ্গে সামনে আসে ২০০৫ সালে পোলিশ জার্নাল অফ এনভায়রনমেন্টাল স্টাডিজে প্রকাশিত একটি রিপোর্ট। "The content of Microelements and Trace Elements in Raw Milk from Cows in the Silesian Region" শীর্ষক সেই রিপোর্টে বলা হয়েছে, গরুর দুধে ১৬টি খনিজের মধ্যে রয়েছে অরাম বা সোনা। তবে এতে অবশ্য গরুর শরীরে ভরপুর সোনা থাকে আর তা থেকে স্বর্ণবর্ণা দুধের যুক্তি দাঁড় করানো যায় না। তবু বিজেপি শিবিরকে এই রিপোর্টকে হাতিয়ার করে ময়দানে নামতে দেখা যায়।

একইসঙ্গে স্বর্ণনালি প্রসঙ্গে শাস্ত্রে উল্লেখ সূর্যকেতু নাড়ির কথাও উঠে আসে। শাস্ত্রে উল্লেখ, গরুর কুঁজের মধ্যে দিয়ে নাকি গিয়েছে এই সূর্যকেতু নাড়ি। যার সঙ্গে সূর্যের সরাসরি সংযোগ রয়েছে। শাস্ত্রমতে সেই কারণেই ঘি, মাখন ও দুধ স্বর্ণরঙা। যদিও রঙ নিয়ে বিজ্ঞান অবশ্য অন্য কথা বলে। বিজ্ঞান মতে, গরু ঘাস-খড় খেয়ে থাকে। তাতে থাকে বিটা ক্যারোটিন। আর সেই বিটা ক্যারোটিনের জেরেই এই রঙ।

আরও পড়ুন, দাদুর মৃত্যুতে 'আনন্দ' নাতিদের! ডিজে বক্স বাজিয়ে দাহ করতে নিয়ে যাওয়া হল বৃদ্ধকে

আরও পড়ুন, ৪ দিনের সন্তানকে ১০ হাজারে বিক্রি করে সংসারের চাল, ডাল কিনল বাবা!

সবমিলিয়ে দিলীপ ঘোষের 'দুধে সোনা থাকে', এই মন্তব্য নিয়ে তর্ক-বিতর্ক আর কমছে না। ইতিমধ্যেই গোরু নিয়ে গিয়ে গোল্ড লোনের জন্য আবেদন করার ঘটনাও সামনে এসেছ। হুগলির ডানকুনি ও উত্তর ২৪ পরগনার সোদপুরে দুই যুবককে দেখা যায়, মাইক্রো ফিনান্স সংস্থায় গোরু নিয়ে গিয়ে তার বদলে গোল্ড লোন চাইতে। যদিও সবটাই 'সাজানো' বলে দাবি করেছে বিজেপি শিবির।