প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে নিহত শতাধিক বাংলাদেশ

গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে পাহাড়ে ধস নামার কারণে এবং বজ্রাঘাতে শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে বাংলাদেশে। বহু মানুষ এখনও নিখোঁজ। চট্টগ্রামের স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, কেবল বান্দরবানেই মৃতের সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়ে গেছে। এছাড়া বন্দর শহর চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজারেও প্রাণহানির সংখ্যা বাড়ছে।

Updated By: Jun 27, 2012, 07:11 PM IST

গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে পাহাড়ে ধস নামার কারণে এবং বজ্রাঘাতে শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে বাংলাদেশে। বহু মানুষ এখনও নিখোঁজ। চট্টগ্রামের স্থানীয় প্রশাসন জানিয়েছে, কেবল বান্দরবানেই মৃতের সংখ্যা ৫০ ছাড়িয়ে গেছে। এছাড়া বন্দর শহর চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজারেও প্রাণহানির সংখ্যা বাড়ছে। দুর্যোগে গৃহহীন অন্তত ১০,০০০ মানুষ। ছাড়া কক্সবাজারে নৌকা ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছে আরও প্রায় ১২ জন।
গত কয়েকদিনের ভারী বর্ষণে বিপর্যস্ত বাংলাদেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও বান্দরবানে পাহাড় ধসে বহু মানুষের মৃত্যুর খবর মিলেছে। টানা বৃষ্টির পর চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকা থেকে জল নামতে শুরু করলেও, স্বাভাবিক হয়নি রেল ও বিমান পরিষেবা। এদিকে কক্সবাজার এবং বান্দরবানের পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। ধসে বহু রাস্তা বন্ধ। বন্দরনগরী চট্টগ্রাম ও বাঁশখালিতে পাহাড় ধসে শিশুসহ মারা গেছেন অনেকে। এছাড়া দেওয়াল চাপা ও বিদ্যুত্‍স্পৃষ্ট হয়েও প্রাণহানির খবর মিলেছে। বান্দারবানের লামায়  ধসের ফলে  নিহত অসংখ্য। দুর্যোগের একই ছবি কক্সবাজারেও। সেখানকার ডেপুটি কমিশনার জানান, মৃতদের অধিকাংশই উখি, রামু এবং চাকুরিয়া অঞ্চলের  বাসিন্দা । আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, আরও কয়েকদিন চলবে দুর্যোগ। ফলে স্থানীয় বাসিন্দাদের কপালে ভাঁজ। 
বিভিন্ন এলাকায় উদ্ধারকাজে বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর পাশাপাশি কাজ করছে সেনাবাহিনীও। কক্সবাজারের জেলা শাসক মহম্মদ জয়নুল বারী জানিয়েছেন, সমস্ত উপজেলার প্রশসকদের মাধ্যমে দুর্যোগ কবলিত এলাকায় ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। জরুরি ভিত্তিতে সড়ক ও জনপদ বিভাগ, সেনাবাহিনী যৌথভাবে জলোচ্ছ্বাসে ক্ষতিগ্রস্ত কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ইদগাঁও ব্রিজ সংস্কারের কাজ শুরু করেছে।