আইসিসি-র পরবর্তী চেয়ারম্যান হতে পারেন শরদ পওয়ার আইসিসি-র পরবর্তী চেয়ারম্যান হতে পারেন শরদ পওয়ার

ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের পরবর্তী চেয়ারম্যান হতে পারেন শরদ পওয়ার। এবছরের জুন মাসেই আইসিসি চেয়ারম্যান নির্বাচনের পদ্ধতি পরিবর্তন করতে চলেছে আইসিসি। এবার থেকে চেয়ারম্যান পদে বসতে পারবেন না সদস্য কোনও দেশের ক্রিকেট বোর্ডের কোনও পদাধিকারী। সব ঠিকঠাক চললে নতুন নিয়মে আইসিসির প্রথম স্বাধীন চেয়ারম্যান হতে পারেন শরদ পওয়ার। বিসিসিআই সূত্রে জানা গেছে লোধা কমিটির সুপারিশ যদি বোর্ডকে মেনে নিতে হয় তাহলে বিপাকে পড়বেন বিসিসিআই ও আইসিসির এই প্রাক্তন সভাপতি। কারন সত্তরোর্ধ এই ক্রিকেট প্রশাসক আর মুম্বই ক্রিকেট সংস্থার সভাপতির পদে থাকতে পারবেন না। তাই শশাঙ্ক মনোহর,অনুরাগ ঠাকুররা চাইছেন শরদ পওয়ারকে আইসিসির চেয়ারম্যান পদে নিয়ে যেতে। তবে সবটাই নির্ভর করছে পওয়ারের শারীরিক সক্ষমতার উপর। কারণ এই মূহুর্তে শরদ পওয়ার হাসপাতালে ভর্তি।

আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে ওপরে উঠে এলেন রোহিত শর্মা আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে ওপরে উঠে এলেন রোহিত শর্মা

অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে সদ্য শেষ হওয়া একদিনের সিরিজে দুরন্ত পারফরম্যান্স করে আইসিসি র‍্যাঙ্কিংয়ে ওপরে উঠে এলেন রোহিত শর্মা। রবিবার প্রকাশিত র‍্যাঙ্কিংয়ে ব্যাটসম্যান তালিকায় পাঁচ নম্বরে রয়েছেন রোহিত। বিরাট কোহলি রয়েছেন দুনম্বরে। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে সদ্য সমাপ্ত একদিনের সিরিজে ব্যাট হাতে দুরন্ত পারফরম্যান্স করে সিরিজের সেরা হয়েছেন রোহিত শর্মা। আর এই পারফরম্যান্সের জেরে আইসিসি RANKING-এ আট ধাপ উপরে উঠলেন রোহিত। মুম্বইয়ের এই ব্যাটসম্যান রেটিংয়ে উনষাট পয়েন্ট বাড়িয়ে নিয়ে আইসিসি RANKING-এ পাঁচ নম্বরে জায়গা করে নিয়েছেন। রোহিতের উপরে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের মধ্যে রয়েছেন শুধুমাত্র বিরাট কোহলি। বিরাট রয়েছেন দুই নম্বরে।

আইসিসি-র প্রেসিডেন্ট হলেন 'এশিয়ার ডন'জাহির আব্বাস আইসিসি-র প্রেসিডেন্ট হলেন 'এশিয়ার ডন'জাহির আব্বাস

ক্রিকেট বিশ্বের মাথায় বসলেন পাকিস্তানের মহান ক্রিকেটার জাহির আব্বাস। নাজিম শেঠের জায়গায় আইসিসি-র প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন এশিয়ার ডন নামে পরিচিত পাকিস্তানের প্রাক্তন এই ব্যাটসম্যান। ৬৭ বছর বয়সী আব্বাস সম্প্রতি পিসিবি চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করছিলেন এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের জন্য অনেক ভাল একজন প্রতিচ্ছবি হয়ে দাঁড়াচ্ছিলেন। বিশ্বকাপের পরে আহম মুস্তফা কামাল বাজে আম্পায়ারিং বিতর্কে পদত্যাগ করেন। পরে নাজিম শেঠ অন্তর্বর্তীকালীন সভাপতির দায়িত্ব পালন করলেও পরে পদত্যাগ করেন। আর এরই প্রেক্ষিতে এই নতুন করে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হল।