রোজ ভ্যালির ভেলকি ফাঁস করল সেবি

সারদা কেলেঙ্কারির জেরে সব খুইয়েছেন মানুষ। চিটফান্ডের শিকড় যে বিভিন্ন রাজ্য ছড়িয়ে রয়েছে, তাও স্পষ্ট হয়েছে। এবার রাজ্যের আরও দুই সংস্থার অর্থ তছরুপ করার সম্ভাবনা থেকে সাধারণ মানুষকে সতর্ক করল সেবি। রবিবার সংবাদপত্রে বিজ্ঞপ্তি জারি করে সেবি জানিয়েছে, বেআইনি ভাবে টাকা তুলছে রোজ ভ্যালি, এমপিএস। টাকা তোলার রেজিস্ট্রেশন নেই রোজ ভ্যালির ও এমপিএসের। সেবি জানিয়েছে ২০১১ সালে বাজার থেকে টাকা তুলতে নিষেধ করা হয়। সেবির এই নির্দেশ অমান্য করেই চলে টাকা তোলা। কলকাতা হাইকোর্টে পাল্টা মামলাও করা হয়। অভিযোগ, সেবির থেকে টাকা তোলার অনুমতি নেয়নি রোজভ্যালি সংস্থাটি।

সারদা আতঙ্ক: জেলায় জেলায় হাহাকার আর বিক্ষোভ জোরাল হচ্ছে

সারদা গোষ্ঠীর প্রতারণার খবর ছড়িয়ে পড়তেই জেলায় জেলায় হাহাকার আর বিক্ষোভ আরও জোরালো হচ্ছ। হুগলির পোলবায় সারদা গোষ্ঠীর গ্লোবাল মোটর্সের কর্মীরা কারখানা খোলার দাবিতে অনশন শুরু করেছেন। আলিপুরদুয়ারের ফালাকাটার জটেশ্বর গ্রামে অন্য একটি চিটফান্ডে টাকা রেখে সবর্স্ব খুইয়েছেন গ্রামের গরীব কৃষকরা। ঘটনার পর থেকেই বেপাত্তা নামগোত্রহীন ওই চিটফান্ডের মালিক।

তিন মাসের মধ্যে আমানতকারীদের টাকা ফেরানোর নির্দেশ সেবির

তিন মাসের মধ্যে সারদার সমস্ত আমানতকারীকে টাকা ফেরত দেওয়ার নির্দেশ দিল সিকিউরিটি অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অফ ইন্ডিয়া বা সেবি। সেবির তরফে প্রকাশিক এক নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, আমানতকারীর টাকা ফেরত না দেওয়া পর্যন্ত দেশের সমস্ত শেয়ার বাজারে সারদা গোষ্ঠীর প্রবেশ নিষিদ্ধ থাকবে। সুদীপ্ত সেন ও দেবযানী মুখোরাধ্যায় গ্রেফতার হওয়ার পরে পাওনা টাকা মেটানোর দাবি তুলছেন সারদা গোষ্ঠীর এজেন্টরাও।

সারদার কর্ণধারকে গ্রেফতারের দাবি অসীম দাসগুপ্তর

যে আর্থিক সংস্থা তাদের কাজকর্ম বন্ধ করে দেওয়ায় ক্ষতির মুখে পড়েছেন অসংখ্য মানুষ, সেই সংস্থার কর্ণধারকে গ্রেফতারে দেরি হচ্ছে কেন। আজ সাংবাদিক বৈঠকে এই প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্যের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী অসীম দাশগুপ্ত। একই সঙ্গে ওই সংস্থার সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার দাবিও জানিয়েছেন তিনি।  প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী বলেন, বাজেয়াপ্ত করা সম্পত্তি বিক্রি করে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার প্রক্রিয়া চালু করতে আদালতের কাছে আর্জি জানাক রাজ্য সরকার।