Aryan Khan: জেল ফেরত প্রত্যক্ষদর্শী জানালেন, কেমন কাটছে আরিয়ানের বন্দি জীবন?

আগামী ৩০ অক্টোবর অবধি জেলেই থাকতে হচ্ছে আরিয়ানকে। 

Updated By: Oct 21, 2021, 07:59 PM IST
Aryan Khan: জেল ফেরত প্রত্যক্ষদর্শী জানালেন, কেমন কাটছে আরিয়ানের বন্দি জীবন?

নিজস্ব প্রতিবেদন: ফের বাড়ল আরিয়ান খানের (Aryan Khan) জেল হেফাজতের মেয়াদ। আপাতত আর্থার রোডের জেলই আরিয়ানের ঠিকানা। বৃহস্পতিবার তাঁর সঙ্গে দেখা করেন বাবা শাহরুখ খান। প্রথমদিন থেকেই ছেলের খাওয়া দাওয়া নিয়ে চিন্তিত শাহরুখ খান ও গৌরী খান। এদিন ছেলের সঙ্গে দেখা করার পর জেল কর্তৃপক্ষের কাছে শাহরুখ জানতে চান যে আরিয়ানকে বাড়ির খাবার দিয়ে যাওয়া যাবে কিনা। জেলের তরফ থেকে জানানো হয়, এই জন্য আদালতের কাছ থেকে নির্দেশ নিয়ে আসতে হবে শাহরুখ খানকে। 

‘মন্নত’র বিলাসবহুল জীবনযাপনে অভ্যস্ত আরিয়ান এখন জেলের এক সাধারণ বন্দি। মাদক-কাণ্ডে অভিযুক্ত আরিয়ান গত আঠারো দিন বন্দি জীবন কাটাচ্ছেন। শাহরুখ খানের ছেলে হয়েও কোনও বিশেষ সুবিধা পাচ্ছে না আরিয়ান। আর এসব কথা বাইরে প্রকাশ করেছেন আর্থার রোড জেলেরই এক কয়েদি। ১৬ অক্টোবর আর্থার রোড জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন কয়েদি শ্রাবণ নডার। গত ছয় মাস ধরে আর্থার রোড জেলে বন্দী ছিলেন তিনি। আরিয়ানকে জেলের যে ব্যারাকে রাখা হয়েছিল, সেই একই ব্যারাকে ছিলেন শ্রাবণ। আরিয়ানকে জেলে খাবার দেওয়ার দায়িত্ব ছিল তাঁর। সাত দিনের কোয়ারিন্টিনের পর আরিয়ানকে ১ নম্বর ব্যারাকে রাখা হয়েছিল। আর্থার রোড জেলে একটা ব্যারাকে চারটি সেল আছে। একেকটা সেলে ১০০ জন কয়েদিকে রাখা হয়। তাই একটা ব্যারাকে সব মিলিয়ে ৪০০ জন কয়েদি থাকেন। আরিয়ানকে যে সেলে রাখা হয়েছে, সেখানে ১০০ জন কয়েদি আছেন। সেখানে মাত্র ১০টি সিলিং ফ্যান লাগানো আছে। 

আরও পড়ুন: Aryan Khan Drug Case: বাড়ল আরিয়ানের জেল হেফাজতের মেয়াদ, মন্নতের বাইরে ফ্যানেদের প্রার্থনা

শ্রাবণ জানিয়েছেন, আরিয়ান শুধু প্রথম দিন জেলের চা খেয়েছিল। আর কোনও খাবার খান না তিনি। জেলের ক্যানটিন থেকে আরিয়ান প্রচুর পরিমাণে মিনারেল ওয়াটার, কিছু চিপস আর বিস্কুটের প্যাকেট কেনেন। শুধুমাত্র জলে ডুবিয়ে বিস্কুট খান। জেলের নিয়ম অনুযায়ী কয়েদিদের তাঁদের জন্য বরাদ্দ খাবার নিতে হবে। আরিয়ান তাঁর খাবার নেন কিন্তু তা অন্য কয়েদিদের দিয়ে দেন। কেউ জিগেস করলে আরিয়ান বলেন যে তাঁর একদম খিদে নেই। শ্রাবণ জানিয়েছেন,জেলে আসার পর আরিয়ান খুব টেনশনে থাকতেন। তাঁর চুল কেটে দেওয়া হয়েছিল। সন্ধ্যার পর সবার মতো কখনই আরিয়ান জেলে টেলিভিশন দেখে না। চুপচাপ এক পাশে শুয়ে থাকে। এমনকি অন্যান্য কয়েদিদের সঙ্গে ভোর ছয়টায় আরিয়ান ঘুম থেকে উঠে পড়েন। জেলে একদম চুপচাপ বসে থাকেন আরিয়ান। কারও সঙ্গে কথাবার্তা বলেন না তিনি। বাড়ি থেকে পাঠানো জিনস আর টি-শার্ট পরেই থাকেন আরিয়ান। কোনও রকম ভিআইপি সুযোগ সুবিধা পাননা আরিয়ান। শ্রাবণ জেল থেকে ছাড়া পেলে তাঁকে শুভেচ্ছাও জানান আরিয়ান। 

  (Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App)