বর্ষশেষ ও নতুন বছরের শুরুটা রণবীরের সঙ্গে নিউ ইয়র্কেই কাটাচ্ছেন আলিয়া

নববর্ষটাও রণবীর ও তাঁর বাবা-মায়ের সঙ্গেই সময় কাটানোর পরিকল্পনা করে ফেলেছেন।

Updated By: Dec 31, 2018, 01:36 PM IST
বর্ষশেষ ও নতুন বছরের শুরুটা রণবীরের সঙ্গে নিউ ইয়র্কেই কাটাচ্ছেন আলিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদন: দীপিকা-রণবীর, প্রিয়াঙ্কা-নিকের পর এবার বি-টাউনে এই মুহূর্তে অন্যতম আলোচিত জোড়ি হল রণবীর-আলিয়া। ভক্তরা এখন রণবীর-আলিয়ার বিয়ের অপেক্ষায় রয়েছেন। যদিও বিয়েটা এখনও না সারলেও আলিয়াকে একপ্রকার কাপুর পরিবারের সদস্য মেনেই নিয়েছেন রণবীর ও তাঁর পরিবারের সদস্যরা। আজকাল আলিয়াকে তাই বেশিরভাগ সময়ই রণবীর কিংবা তাঁর বাবা-মায়ের সঙ্গেই সময় কাটাতে দেখা যায়।নববর্ষটাও রণবীর ও তাঁর বাবা-মায়ের সঙ্গেই সময় কাটানোর পরিকল্পনা করে ফেলেছেন।

শ্বশুরমশাই ঋষি কাপুরের ইচ্ছা কাপুর বাড়ির হবু বৌমা বর্ষশেষ ও নতুন বছরের শুরুটা তাঁদের সঙ্গেই কাটান। সেই মতোই আলিয়াও ৩০ তারিখই রণবীরের সঙ্গে পৌঁছে গিয়েছেন নিউ ইয়র্কে। সেখানে একটি রেস্তোরাঁতে রণবীরের সঙ্গে সময় কাটানোর সময় ভক্তদের সামনে ধরাও পড়েছেন 'রালিয়া' জুটি। ভক্তদের নিরাশ না করে তাঁদের সঙ্গে ছবিও তুলেছেন রণবীর-আলিয়া। সেই ছবি সোশ্যাল সাইটে পোস্টও করেছেন রণবীরের এক ভক্ত। ছবিতে রণবীর ও আলিয়া দুজনেই এক্কেবারে ছিমছাম লুকে ধরা পড়েছেন। 

আরও পড়ুন-সিম্বার সাফল্য, মন্দিরে পুজো দিয়ে প্রসাদ বিতরণ করলেন সারা

 
 
 
 

 
 
 
 
 
 
 
 
 

আরও পড়ুন-মৃণাল তর্পণে বলিউড, দেখুন কী লিখলেন অমিতাভ বচ্চন, মহেশ ভাট, নন্দিতা দাসরা...

প্রসঙ্গত, রণবীর কাপুর বলিউডের অন্যান্য নায়কদের থেকে একেবারেই আলাদা। তিনি বরাবরই জানিয়েছেন, কাজের বাইরে বাড়িতে কিংবা ঘনিষ্ঠ লোকজনের সঙ্গেই সময় কাটাতে পছন্দ করেন তিনি। গত ২৫ ডিসেম্বরও কাপুর বাড়ির ক্রিসমাস লাঞ্চে শ্যুটিং ছেড়ে বন্ধু অয়ন মুখোপাধ্যায়কে নিয়ে বাড়ি ফিরে আসেন রণবীর। যোগ দেন পারিবারিক অনুষ্ঠানে। যদিও এই অনুষ্ঠানে থাকতে পারেননি রণবীরের বাবা-মা ঋষি কাপুর ও নীতু  সিং কাপুর। ঋষি কাপুর নিজের চিকিৎসার কারণে দীর্ঘদিন নিউ ইয়র্কেই রয়েছেন। সেখানে বাবার চিকিৎসার জন্য রণবীর একটি বাড়ি ভাড় নিয়েছেন বলেও জানা যাচ্ছে। ঋষি কাপুরের সঙ্গে নিউ ইয়র্কে রয়েছেন নীতু সিং কাপুরও। কাজের ফাঁকে মাঝে মধ্যেই নিউ ইয়র্ক গিয়ে বাবা-মায়ের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছেন রণবীরও। সেখানে আলিয়াকেও এর আগে যেতে দেখা গেছে।