করোনা মহামারির জেরে বিশ্বের ৯০% দেশে বিপর্যস্ত জরুরি স্বাস্থ্য পরিষেবা! জানাল WHO

এই সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনা মহামারির জেরে বিশ্বের ৯০ শতাংশ দেশে জরুরি স্বাস্থ্য পরিষেবা একেবারে বিপর্যস্ত! ভেঙে পড়েছে প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিষেবার পরিকাঠামো।

Edited By: সুদীপ দে | Updated By: Sep 2, 2020, 01:36 PM IST
করোনা মহামারির জেরে বিশ্বের ৯০% দেশে বিপর্যস্ত জরুরি স্বাস্থ্য পরিষেবা! জানাল WHO
—প্রতীকী চিত্র।

নিজস্ব প্রতিবেদন: দিনের পর দিন দেশে করোনা রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। অধিকাংশ হাসপাতালেই করোনা রোগীর সংখ্যাই বেশি। এর ফলে স্বাভাবিক ভাবেই ব্যাহত হচ্ছে অন্যান্য রোগের চিকিৎসা পরিষেবা।

মে মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) এবং UNAIDS-এর যৌথ রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনার পরিস্থিতির জেরে বিশ্বের অন্তত ৭৩টি দেশে অ্যান্টিভাইরাল ওষুধের জোগানে ব্যাপক হারে টান পড়েছে। ওষুধের এই ব্যাপক ঘাটতির ফলে সারা বিশ্বে মোট

সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (WHO) একটি সমীক্ষার রিপোর্ট সামনে এসেছে। এই সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনা মহামারির জেরে বিশ্বের ৯০ শতাংশ দেশে জরুরি স্বাস্থ্য পরিষেবা একেবারে বিপর্যস্ত! ভেঙে পড়েছে প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিষেবার পরিকাঠামো।

মার্চ থেকে জুন পর্যন্ত চলা এই সমীক্ষার তথ্য অনুযায়ী, এইডসে (AIDS) আক্রান্তদের ৩৩ শতাংশের চিকিৎসাই এখন থমকে গিয়েছে। একই রকম পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে ক্যান্সারের চিকিৎসার ক্ষেত্রেও।

এই সমীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনা মহামারির জেরে নিয়মিত টিকাকরণ পরিষেবা ৭০ শতাংশ পর্যন্ত বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে। মহিলা ও শিশুদের ক্ষেত্রে সরকারি সুবিধা ভিত্তিক পরিষেবাগুলি ৬১ শতাংশ পর্যন্ত বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে। সংক্রামক রোগ নির্ণয় ও তার চিকিত্সার ক্ষেত্রে প্রায় ৬৯ শতাংশ পরিষেবা বাধাপ্রাপ্ত হয়েছে।

পরিবার পরিকল্পনা এবং গর্ভনিরোধক পরিষেবাগুলি বিশ্বের প্রায় ৬৮ শতাংশ দেশেই বিপর্যস্ত। মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কিত পরিষেবাগুলি বিশ্বের প্রায় ৬১ শতাংশ দেশেই থমকে গিয়েছে। ক্যান্সারের চিকিৎসার ক্ষেত্রেও বিশ্বের প্রায় ৫৫ শতাংশ দেশে পরিষেবা বিঘ্নিত হয়েছে এই করোনা মহামারির কারণে।

আরও পড়ুন: বাড়ছে সুস্থতার হার! দেশজুড়ে প্রতিদিন ১০ লক্ষেরও বেশি মানুষের করোনা পরীক্ষা

সম্প্রতি ‘ল্যান্সেট গ্লোবাল হেলথ’-এ প্রকাশিত প্রতিবেদনে ইউনিসেফের পক্ষ থেকে উদ্বেগ প্রকাশ করে জানানো হয়েছে, আগামী ৬ মাসে বিশ্বের ১১৮টি দেশে পাঁচ বছরেরও কম বয়সী প্রায় ২.৫ মিলিয়ন (২৫ লক্ষ) শিশুর মৃত্যু হতে পারে। ইউনিসেফের এগজিকিউটিভ ডিরেক্টর হেনরিটা ফোর জানান, এই প্রথম সারা বিশ্বে এত শিশুর মৃত্যুর আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এর পাশাপাশি ইউনিসেফের আশঙ্কা, করোনার জেরে বেহাল স্বাস্থ্য পরিষেবা, বিপর্যস্ত পরিকাঠামোর ফলে আগামী ছয় মাসে মৃত্যু হতে পারে ৫৬ হাজার ৭০০ জন মায়েরও। ফলে সব মিলিয়ে করোনা মহামারির জেরে বিশ্বজুড়ে সামগ্রিক স্বাস্থ্য পরিষেবা বড়সড় বিপর্যয়ের সম্মুখীন।