সতর্ক না হলে ভয়ঙ্কর বিপদ, কোভিডের মতো প্রাণঘাতী হতে পারে সোয়াইন করোনাভাইরাসও

২০১৬ সালে চিনে প্রথম এই ভাইরাসে শূকররা আক্রান্ত হয়

Updated By: Oct 15, 2020, 03:45 PM IST
সতর্ক না হলে ভয়ঙ্কর বিপদ, কোভিডের মতো প্রাণঘাতী হতে পারে সোয়াইন করোনাভাইরাসও
প্রতীকী ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদন: করোনাভাইরাসকে রুখতে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গিয়েছে দুনিয়ার তাবড় তাবড় দেশের। তুলনামূলকভাবে ভারত ভালো জায়গায় থাকলেও ইউরোপে, আমেরিকার দেশগুলি একেবারেই নাজেহাল হয়ে পড়েছে। এমনকি নতুন করে লকডাউনের কথাও ভাবছে কোনও কোনও দেশ। এর মধ্যেই আর এক বিপদ এসে হাজির।

আরও পড়ুন-আপাতত বার্কের রেজাল্ট আসা বন্ধ!

করোনাভাইরাসের তাণ্ডবের মধ্যেই মাথা তুলছে আরও এক ভয়ঙ্কর ভাইরাস। এটি হল সোয়াইন করোনাভাইরাস। বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা, করোনাভাইরাসের নতুন এই স্ট্রেন আক্রমণ করে শূকরকে। এর ফলে পশুটি ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়। এই ভাইরাস ছড়াতে পারে মানুষের মধ্যেও। আর তা হলে ফের এক ভয়ঙ্কর মহামারীর মুখোমুখি হতে হবে মানুষকে।

সোয়াইন করোনাভাইরাস কী

নর্থ ক্যারোলিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের গবেষণা অনুযায়ী, নতুন স্ট্রেনের নাম সোয়াইন অ্যাকিউট ডায়রিয়া সিনড্রোম করোনাভাইরাস(SADS-CoV)। এটি আসে মূলত বাদুড় থেকে। ২০১৬ সালে চিনে প্রথম এই ভাইরাসে শূকররা আক্রান্ত হয়। এর ফলে শূকররা ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয় পাশাপাশি তাদের বমি হতে থাকে। মূলত গ্যাস্ট্রোইন্টেসটাইনাল সমস্য়া তৈরি করে এই ভাইরাস।

মানুষ কী আক্রান্ত হতে পারে

গবেষকরা বলছেন, এই ভাইরাস সংক্রমণ ঘটতে পারে মানুষের দেহেও। এর ফলে মানুষের লিভার, অন্ত্র ও শ্বাসনালীর কোষ নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সংবাদসংস্থার খবর অনুযায়ী সোয়াইন করোনাভাইরাস নিয়ে গবেষণায় জড়িত বিজ্ঞানীদের দাবি, ফুসফুস ও অন্ত্রে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ঘটলে তা দ্রুত বাড়তে থাকে। HKU2 নামে ব্যাট করোনাভাইরাস   থেকে আসে SADS-CoV বা সোয়াইন করোনাভাইরাস। এই ভাইরাস গোটা দুনিয়াতেই রয়েছে। আর তা ছড়িয়ে পড়ে মহামারীর আকার নিতেও পারে।

কোন পথে চিকিত্সা

প্রাথমিক গবেষণায় উঠে আসছে, করোনাভাইরাসের চিকিত্সা যে রেমডিসিভির ব্যবহার করা হয় তা দিয়েই সোয়াইন করোনাভাইরাসের চিকিত্সা হতে পারে। SADS-CoV এর ওপরে এর কার্যকারী প্রভাব রয়েছে।