close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

নবান্নের কর্মীদের বিরুদ্ধে বিনা অনুমতিতে ভিডিয়ো তোলার অভিযোগ! দিল্লিতে রিপোর্ট পাঠালেন সিবিআই কর্তারা

নবান্নের ভিতরে ২ কর্মী সিবিআই প্রতিনিধিদের ভিডিয়ো করতে শুরু করেন। নিষেধ অগ্রাহ্য করেই ভিডিয়োগ্রাফি চলতে থাকে।

Updated: Sep 16, 2019, 03:24 PM IST
নবান্নের কর্মীদের বিরুদ্ধে বিনা অনুমতিতে ভিডিয়ো তোলার অভিযোগ! দিল্লিতে রিপোর্ট পাঠালেন সিবিআই কর্তারা

নিজস্ব প্রতিবেদন : সিবিআই প্রতিনিধিদের সঙ্গে রবিবার 'অসৌজন্যমূলক' আচরণ করা হয়েছে নবান্নের ভিতরে। নিষেধ করা সত্ত্বেও সিবিআই প্রতিনিধি দলের ভিডিয়োগ্রাফি করা হয়েছে। এই ঘটনায় যারপরনাই ক্ষুব্ধ সিবিআই শীর্ষ কর্তারা। ভিডিয়োগ্রাফির ঘটনায় দিল্লিতে সিবিআই সদর দফতরে রিপোর্ট পাঠাচ্ছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার রাজ্য শাখা।

রাজীব কুমারের খোঁজে রবিবার নবান্নে গিয়ে ডিজিকে চিঠি ধরান সিবিআই-এর প্রতিনিধি দল। রাজীবের অবস্থান জানতে চেয়ে ৪টি চিঠি নিয়ে নবান্নে আসেন ২ সিবিআই প্রতিনিধি। তারমধ্যে ২টি চিঠি ডিজিকে দেওয়া হয়। শনিবার হাজিরা এড়িয়ে বিকেলে সিবিআইকে মেল করেন রাজীব কুমার। মেলে স্ত্রীর অসুস্থতার জন্য ২৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় চান তিনি। জানান, তিনি ছুটিতে আছেন।

এখন নিয়ম অনুযায়ী রাজ্যের আইপিএস অফিসার ছুটিতে থাকলে, তা রাজ্য পুলিসের শীর্ষ কর্তার জানার কথা। সেকারণেই একটি চিঠিতে ডিজির কাছে রাজীবের অবস্থান জানতে চাওয়া হয়।  দ্বিতীয় চিঠিতে অবিলম্বে রাজীবকে হাজিরার জন্য পাঠানোর কথা বলা হয়। এখন, সিবিআই-এর অভিযোগ, কাল তাদের প্রতিনিধি দুজন যখন চিঠি দিতে নবান্নে যান, তখন তাঁদের ভিডিয়োগ্রাফি করা হয়।

কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ক্ষোভের সঙ্গে জানিয়েছে, নবান্নের ভিতরে ২ কর্মী সিবিআই প্রতিনিধিদের ভিডিয়ো করতে শুরু করেন। সিবিআই-এর কাজকর্ম এভাবে ভিডিয়ো করতে দেখে তৎক্ষণাৎ নিষেধ করেন ২ প্রতিনিধি। কিন্তু তাঁদের কথা শোনা হয়নি। তাঁদের নিষেধ অগ্রাহ্য করেই ভিডিয়োগ্রাফি চলতে থাকে। প্রসঙ্গত, সিবিআই-এর কাজকর্মে গোপনীয়তা বজায় রাখাই নিয়ম। কিন্তু এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে ন্যনূতম সৌজন্যটুকুও দেখানো হয়নি।

আরও পড়ুন, 'ফেরার' রাজীবকে ধরতে রাজ্যের উপর চাপ বাড়াল সিবিআই, নবান্নে গিয়ে চিঠি মুখ্যসচিব ও স্বরাষ্ট্রসচিবকে

এমনটাই মনে করছেন সিবিআই আধিকারিকরা। নবান্নের ভিতর অসৌজন্যমূলক আচরণ ও নিয়মলঙ্ঘনের অভিযোগে রাজ্য প্রশাসনের উপর ক্ষুব্ধ কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার শীর্ষ কর্তারা। আর সেই ঘটনাতেই এবার বিশদে রিপোর্ট পাঠানো হল দিল্লিতে।