'বিধানসভায় ভাঙচুর করেছিলেন... প্রমাণ করুন, নইলে কথা ফেরত নিন', সুজন-মমতা তুমুল তর্কাতর্কি

" সৌজন্য বজায় রেখেছি। বেশি জ্ঞান দেবেন না। নিজের চরকায় তেল দিন।"

Reported By: কমলিকা সেনগুপ্ত | Edited By: সুদেষ্ণা পাল | Updated By: Feb 14, 2020, 07:49 PM IST
'বিধানসভায় ভাঙচুর করেছিলেন... প্রমাণ করুন, নইলে কথা ফেরত নিন', সুজন-মমতা তুমুল তর্কাতর্কি

নিজস্ব প্রতিবেদন : শুক্রবারের বিধানসভা অধিবেশন সরগরম রইল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee) ও বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তী (Sujan Chakraborty) উত্তপ্ত বাদানুবাদে। এদিন বিধানসভায় (WB assembly) সুজন চক্রবর্তী প্রথমে বলেন, "বাংলায় বাম ভোট বিজেপিতে যায়নি। বরং ভবানীপুরে পিছিয়ে তৃণমূল। সেইসঙ্গে সিপিআইএম বিধায়কের মন্তব্য, ঐশী ঘোষকে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে সভার অনুমতি দেওয়া হল না। ঐশী আরএসএস বিরোধী। এর মধ্যে কোনও যোগ আছে কি?" তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে বিজেপির গোপন আঁতাতের ইঙ্গিত করেন বাম নেতা।

জবাব দিতে উঠে মুখ্যমন্ত্রী প্রথমেই বলেন, "সব এক বুলি। কুত্‍সা, অপপ্রচার। অবসাদ থেকে রাজনৈতিক দূষণ।" কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ঐশীর সভা বাতিল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, "দীনেশ ত্রিবেদিকে পাঠিয়েছিলাম। সৌজন্য বজায় রেখেছি। বেশি জ্ঞান দেবেন না। নিজের চরকায় তেল দিন। আমিও এক সময় বিরোধী ছিলাম।"

মুখ্যমন্ত্রী যখন একথা বলছেন, ঠিক তখনই সুজন চক্রবর্তী বলেন, "হ্যাঁ, তখন আপনি বিধানসভায় ভাঙচুর করেছিলেন।" সুজন চক্রবর্তীর এই মন্তব্যের পরই তীব্র প্রতিবাদ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন সুজন চক্রবর্তীর উদ্দেশে। বলেন, "কোথাও কোনও ভিডিওতে নেই। প্রমাণ করুন নইলে কথা ফেরত নিন।"

এরপর ভবানীপুর কেন্দ্র নিয়ে সুজনের খোঁচারও জবাব দেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, "ভবানীপুর নিয়ে আপনাকে চিন্তা করতে হবে না। আপনি যাদবপুর নিয়ে ভাবুন। গতবার লাড্ডু পেয়েছেন। এবার রাজভোগ পাবেন।" গত ২৯ জানুয়ারি জলঙ্গির সাহেবনগরে এনআরসি বিরোধী আন্দোলনে দুজনের মৃত্যু হয়। সেই ঘটনাকে হাতিয়ার বিধানসভায় সুজন চক্রবর্তীকে পাল্টা প্রশ্ন করেন মুখ্যমন্ত্রী, "সরস্বতী পুজোর দিন কেন বনধ করেছিলেন? সাম্প্রদায়িক তাস খেলার জন্য? বাংলাকে বনধের বিশ্ববিদ্যালয় করছেন? (জলঙ্গিতে) মৃত্যুর জন্য আপনারা দায়ী?"

আরও পড়ুন, 'কালিদাসের মতো ডাল কাটছেন?' বিধানসভায় বিজেপিকে তুলোধনা মমতার

আরও পড়ুন, 'ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর টাকা জোগাড়ে অনেক চোখের জল ফেলেছি, ছবি চাই না, খবরটুকু দিত'

বামেদের পাশাপাশি এদিন কংগ্রেসের সমালোচনাও করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। বলেন, "কংগ্রেস যত সিপিআইএমের কাছে যাচ্ছে তত সাইনবোর্ড হয়ে যাচ্ছে। ওই জন্য কংগ্রেস ছেড়েছিলাম। দেখছেন না সব জায়গায় আঞ্চলিক দল শক্তিশালী, কংগ্রেস নয়। যেখানে আঞ্চলিক দল নেই, কংগ্রেস শুধু সেখানেই। আমি বিরোধী দলের রাজনীতি করেছি।" যদিও মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্যকে 'সবই আবোল-তাবোল কথা' বলে ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়েছে কংগ্রেস।