নারদাকাণ্ডে ১১ বিধায়ক, সাংসদকে সমন CBI-এর, তালিকায় উল্লেখযোগ্যভাবে বাদ মুকুলের নাম!

তবে মুকুল রায়ের নাম এই তালিকায় কেন নেই, তা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে।

Updated By: Aug 29, 2019, 12:38 PM IST
নারদাকাণ্ডে ১১ বিধায়ক, সাংসদকে সমন CBI-এর, তালিকায় উল্লেখযোগ্যভাবে বাদ মুকুলের নাম!

নিজস্ব প্রতিবেদন:  নারদাকাণ্ডে এবার ১১ অভিযুক্ত বিধায়ক, সাংসদকে সময় সিবিআই-এর। তবে এই তালিকায় উল্লেখযোগ্যভাবে নাম নেই বিজেপিনেতা মুকুল রায়ের। তাঁর নাম বাদ দিয়েই প্রত্যেকের কাছে নোটিস পাঠানো হয়েছে। আগামী সপ্তাহের মধ্যেই প্রত্যেককে আলাদা আলাদা ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করবেন তদন্তকারীরা। এই তালিকায় নাম রয়েছে কাকলি ঘোষ দস্তিদার, সুব্রত মুখোপাধ্যায়দের। তাঁদের বয়ান রেকর্ড করবে সিবিআই। প্রয়োজনে ম্যাথু স্যামুয়েলের সামনে বসিয়েও জেরা করা হতে পারে বলে খবর। তবে মুকুল রায়ের নাম এই তালিকায় কেন নেই, তা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে।

 

এর আগে নারদাকাণ্ডে লুকনো ক্যামেরার সংশয় কাটাতে গত ২৭ অগাস্ট মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করা হয় ম্যাথু স্যামুয়েল, কেডি সিং ও দিল্লির ব্যবসায়ীকে। সেই জেরায় উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য। ম্যাথু দাবি করেন, অভিষেকের ওপর স্টিং অপারেশন করার কথা বলেছিলেন কেডি সিং। সেই জন্য তিনি তাঁর কাছ থেকে টাকাও পেয়েছিলেন। এই সংক্রান্ত তাঁকে পাঠানো কেডি সিংয়ের একটি মেসেজ তদন্তকারীদের দেখান ম্যাথু। প্রথমে কে়ডি সিং অস্বীকার করলেও, মেসেজ দেখানোর পর চুপ করে যান। তবে তদন্তকারীদের কাছে তিনি দাবি করেন, এই সংক্রান্ত কোনও মেসেজ তিনি ম্যাথুকে পাঠিয়েছিলেন বলে মনে করতে পারছেন না। শুধু অভিষেকই নয়, এই স্টিং অপারেশন যাঁদের যাঁদের ওপর হয়েছে, তা সবই কেডি সিংয়ের অঙ্গুলি হেলনেই হয়েছে বলে দাবি করেন ম্যাথু।  

নতুন করে স্টাফ সিলেকশন কমিশন গঠন করছে রাজ্য, আজ বিধানসভায় আনা হচ্ছে বিল

প্রসঙ্গত, নারদাকাণ্ডে এবার বিজেপিনেতা শোভন চট্টোপাধ্যায়কে চিঠি দিয়েছে সিবিআই। আগামী ৩১ অগাস্ট সিজিও কমপ্লেক্সে তাঁকে হাজিরা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সিবিআইয়ের দুই আধিকারিক শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সার্দান অ্যাভিনিউয়ের বাড়িতে যান। তখনই তাঁকে নোটিস দিয়ে আসেন তাঁরা। বিজেপিতে যোগদানের পর এই প্রথম তাঁকে নোটিস পাঠাল সিবিআই। এর আগে নারদাকাণ্ডে ইডি তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে।

সম্প্রতি ম্যাথু স্যামুয়েলের গোপন ক্যামেরার সূত্রে ধরে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উঠে এসেছে তদন্তকারীদের হাতে। সেগুলি নিয়েই প্রশ্ন করা হতে পারে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে।