বৈঠকের কথা বাইরে কেন? সৌগতকে 'বার্তা' ক্ষুব্ধ শুভেন্দুর

'যেভাবে দলের সঙ্গে তাঁর সমস্যা মিটে গিয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে, তা একেবারেই ভালোভাবে নিচ্ছেন না প্রাক্তন পরিবহণমন্ত্রী!'

Reported By: শ্রেয়সী গঙ্গোপাধ্যায় | Updated By: Dec 2, 2020, 05:10 PM IST
বৈঠকের কথা বাইরে কেন? সৌগতকে 'বার্তা' ক্ষুব্ধ শুভেন্দুর

নিজস্ব প্রতিবেদন: বরফ গলেনি! গতকালের বৈঠক নিয়ে সংবাদমাধ্যমের কাছে মুখ খুলে বিপাকে পড়লেন তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়। সূত্রের খবর, তাঁকে  'অসন্তোষের' কথা জানিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। তাঁর ঘনিষ্ঠমহলের দাবি, বৈঠকের পর থেকে যেভাবে দলের সঙ্গে তাঁর সমস্যা মিটে গিয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে, তা একেবারেই ভালোভাবে নিচ্ছেন না প্রাক্তন পরিবহণমন্ত্রী।  সেকথা দমদমের সাংসদকে জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন: তৃণমূলেই থাকছে শুভেন্দু: সৌগত, সৌগতবাবুর কথা বিশ্বাস করছি না: দিলীপ

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় ও সৌগত রায়ের উপস্থিতিতে মঙ্গলবার অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্তের কিশোরের সঙ্গে ঘণ্টা দুয়েকের বৈঠক। তাতেই নাকি সব ভুল বোঝাবুঝি মিটে গিয়েছে! বৈঠকে শেষে অন্তত তেমনই দাবি করেছিলেন সৌগত রায়। তিনি এও জানিয়েছিলেন, শুভেন্দু অন্য কোনও দলে যাচ্ছেন না, একসঙ্গে লড়াই করবেন। এমনকী, মুখ্যমন্ত্রী ফোনে শুভেন্দুকে শুভেচ্ছাও জানিয়েছেন। কিন্তু এই বৈঠক নিয়ে শুভেন্দু নিজে কেন মুখ খুলছেন না? তা নিয়ে জল্পনা চলছিলই। যদিও সৌগত রায়ের দাবি ছিল, দু'একদিনের মধ্যে সাংবাদিক সম্মেলনে করে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবেন শুভেন্দু। কিন্তু, তা আর হল না, বরং জল্পনাই সত্যি হল বলা যায়।

আরও পড়ুন: 'এই কর্মসূচিকে ভয় পেয়েছে বিজেপি', 'দুয়ারে সরকার' ইস্যুতে দিলীপকে পাল্টা ফিরহাদের

শুভেন্দুর ঘনিষ্ঠমহল সূত্রে খবর, বৈঠকে যে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোরও থাকবেন, তা জানতেন না তিনি। কিছুক্ষণ পর যখন দু'জনে বৈঠকে ঢোকেন, তখন চুপ করে যান শুভেন্দু। এরপর সৌগত রায় ফোন করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। ফোনে দলনেত্রীর সঙ্গে শুভেন্দুর সৌজন্যমূলক কথাবার্তা হয়। এর বেশি বৈঠকে আর একটি কথাও বলেননি নন্দীগ্রামের বিধায়ক। অথচ সাংবাদমাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে যে, দলের সঙ্গে তাঁর সমস্ত সমস্যা বা ভুল বোঝাবুঝি মিটে গিয়েছে! এতে তিনি যে 'অসন্তুষ্ট', বুধবার ব্যক্তিগতভাবে তা সৌগত রায়কে জানিয়ে দিয়েছেন শুভেন্দু। উল্লেখ্য, দলের কাছে শুভেন্দুর নির্দিষ্ট কিছু চাহিদা ছিল, সেসবের সমাধানের আগেই আনুষ্ঠানিকভাবে সংবাদমাধ্যমে বেরিয়ে যাওয়ায় ক্ষুব্ধ শুভেন্দু। এমনটাই মত রাজনৈতিক মহলের।