#ভ্রমণ: ছুটিতে যেতে চান নির্জন সৈকতে? চলুন লাল কাঁকড়ার দেশে

সমুদ্রতীরে যেন লাল ফুল ছড়িয়ে থাকে সব সময়!

Updated By: Oct 16, 2021, 05:28 PM IST
#ভ্রমণ: ছুটিতে যেতে চান নির্জন সৈকতে? চলুন লাল কাঁকড়ার দেশে

নিজস্ব প্রতিবেদন: জলের অপরিমিত কল্লোল, আকাশ আর বাতাসের রঙিন মেলবন্ধন, বনঝাউয়ের মাতাল মাতামাতি। হাতের মুঠোয় এক নির্জন আবহ। শহর থেকে দূরে এক টুকরো স্নিগ্ধ অবসরের হাতছানি।

দিঘা-মন্দারমণি তো অনেক হল। এবার একটু স্বাদবদল করা যাক। এবার না হয় চলুন বগুরান-জলপাই। কাঁথি থেকে মাত্র ১২কিলোমিটার দূরে, ঘন ঝাউবনবেষ্টিত শান্ত, নির্জন এই সমুদ্রসৈকত সম্প্রতি সমুদ্রপ্রেমীদের কাছে অপরূপ স্পটে পরিণত হয়েছে।

আরও পড়ুন: Durga Pujo 2022: মহালয়া থেকে দশমী, একনজরে আগামী বছরের দুর্গাপুজোর নির্ঘন্ট

শহুরে জীবন থেকে দূরে প্রকৃতির মাধুর্য ও ঐশ্বর্যের মধ্যে জেগে থাকা এই সৈকতটি বাংলার সমুদ্রকেন্দ্রিক পর্যটন-মানচিত্র আক্ষরিক অর্থেই এক নতুন সংযোজন। জনহীন, শুধু জল বাতাস আর পাখির ডানার শব্দ এই বেলাভূমিতে। আছে একটি নদীর রেখা। শান্ত, একাকী সেই জলধারা এই সৈকতকে যেন আরও মোহময়ী করে তুলেছে। আর আছে কাঁকড়া। লাল কাঁকড়ার প্রাচুর্য। দেখে মনে হওয়া স্বাভাবিক, সমুদ্রতীরে যেন লাল ফুল ছড়িয়ে রয়েছে সব সময়!

কী ভাবে যাবেন?

রেল বা সড়ক-- দুভাবেই যেতে পারেন। বগুরান-জলপাইয়ের নিকটবর্তী রেলস্টেশন কাঁথি, বাসস্টপও কাঁথি। নিজেদের গাড়ি নিয়ে গেলে সব চেয়ে ভাল হয়। অন্যথায়, যে হোটেলে আপনি উঠছেন, বলে রাখলে তারাই বাসস্ট্যান্ডে বা রেলস্টেশনে অটো বা অন্য গাড়ি পাঠিয়ে দেবে। ভাড়া মোটামুটি ৩৫০-৪৫০ টাকার মতো। নিজের গাড়িতে গেলে গুগল ম্যাপ দেখে দেখে পৌঁছে যান সৈকতের নিকট সান্নিধ্যে।কোথায় থাকবেন?

এখনও জায়গাটি 'ভার্জিন স্পটে'র মর্যাদাই পাচ্ছে। আসলে এখনও এখানে হোটেল-রেস্তোরাঁ-হোমস্টের ভিড় লাগেনি। এখনও পর্যন্ত এখানে থাকার একমাত্র জায়গা একটি গেস্ট হাউস। ঝাউবনে ঘেরা এই হোটেলটি সমুদ্র থেকে অনেকটাই দূরে। জায়গাটি নির্জন, তা বলে হোটেল থেকেই সমুদ্রগর্জন শোনা যাবে না। এবং সমুদ্রসৈকতে পৌঁছেও যে চট করে ছুঁয়ে ফেলা যাবে সমুদ্র-- তা-ও নয়। 

সাগর নিরালায় নামের এই একমাত্র গেস্ট হাউসে আছে নানা কিসিমের প্যাকেজ। রুম বা টেন্ট রিজনেবল চার্জে মেলে। আছে নিজস্ব ক্যান্টিন। সেখানে খাবারের নানা বৈচিত্র। এদের রয়েছে কয়েকটি ফোর-বেডেড রুম আর টেন্ট (বুকিং-এর জন্য নম্বর-- 094340 12200)।

আরও ঘুরে বেড়ান: 

বগুরান-জলপাই গেলে যে আপনাকে সেখানেই বন্দি থাকতে হবে, তা নয়। তবে স্বেচ্ছাবন্দিত্ব উপভোগ করেও আপনি ঘুরে নিতে পারেন আশপাশের জুনপুট, বাঁকিপুর, দরিয়াপুর লাইটহাউস, কপালকুণ্ডলা মন্দির, পেটুয়াঘাট মৎস্য বন্দর। আর খেয়া পেরিয়ে যেতে পারেন হিজলি শরিফ, রসুলপুর নদীর ওপারে।

তা হলে আর দেরি করবেন না। পুজোর ছুটি থাকতে থাকতেই ব্যাগ গুছিয়ে বেরিয়ে পড়ুন। আর তা যদি না হয়, তবে এই টুরটি তুলে রাখুন কোনও এক উইকেন্ডের জন্য।

(Zee 24 Ghanta App : দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App)

আরও পড়ুন: Google Doodle: করোনার বিরুদ্ধে 'বিশেষ বার্তা' গুগল ডুডলের, জীবন বাঁচাতে ভ্যাকসিন নেওয়ার আহ্বান