ধর্ষকদের আদালতে নিয়ে যাওয়ার দরকার নেই... জয়ার সমর্থনে মিমির বার্তা

যাদবপুরের সাংসদ এ দিন টুইট করে জানান, “তাঁর (জয়া বচ্চন) মন্তব্যকে সমর্থন জানাচ্ছি। আমার মনে হয় না, নিরাপত্তা দিয়ে ধর্ষকদের আদালতে নিয়ে যাওয়ার দরকার আছে বা বিচারের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। সঙ্গে সঙ্গে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।” 

Updated By: Dec 3, 2019, 12:00 PM IST
ধর্ষকদের আদালতে নিয়ে যাওয়ার দরকার নেই... জয়ার সমর্থনে মিমির বার্তা
ফাইল চিত্র

নিজস্ব প্রতিবেদন: ফুঁসছে দেশ। বিক্ষোভ, মিছিল, প্রতিবাদে সরব নাগরিক সমাজ। সেই ঢেউ আছড়ে পড়ে সংসদেও। হায়দরাবাদে পশুচিকিত্সকে ধর্ষণ এবং খুনের ঘটনায় উত্তাল সংসদের উভয়কক্ষ। সোমবার রাজ্যসভায় নারীদের নিরাপত্তা নিয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ক্ষোভ উগরে দেন সমাজবাদী পার্টির সাংসদ তথা অভিনেত্রী জয়া বচ্চন। তাঁর দাবি, প্রকাশ্যেই অভিযুক্তদের শাস্তি দেওয়া উচিত। জয়া বচ্চনের এ ধরনের মন্তব্যে বিতর্ক ছড়ালেও, সমর্থন জানাচ্ছেন তৃণমূল সাংসদ মিমি চক্রবর্তীও।

যাদবপুরের সাংসদ এ দিন টুইট করে জানান, “তাঁর (জয়া বচ্চন) মন্তব্যকে সমর্থন জানাচ্ছি। আমার মনে হয় না, নিরাপত্তা দিয়ে ধর্ষকদের আদালতে নিয়ে যাওয়ার দরকার আছে বা বিচারের জন্য অপেক্ষা করতে হবে। সঙ্গে সঙ্গে শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে।” তাঁর আরও মন্তব্য, সব মন্ত্রীদের কাছে অনুরোধ করছি, এমন কঠোর আইন আনা প্রয়োজন, ধর্ষণ করার আগে ১০০ বার ভাবা উচিত। এমনকি মেয়েদের দিকে খারাপ উদ্দেশ্যে তাকাতে ভয় পায়।

আরও পড়ুন- জেলে ফ্রায়েড রাইস, মটন কারি খেল হায়দরাবাদ গণধর্ষণ কাণ্ডের অভিযুক্তরা

সংসদে জয়া বচ্চনও কার্যত একই বার্তা দিয়েছিলেন। জয়ার দাবি ছিল, এ ধরনের ঘটনায় প্রকাশ্যে গণপিটুনি দিয়ে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া উচিত। নির্ভয়া, কাঠুয়া এবং এই ঘটনার পর এবার সরকারের উচিত শাস্তির বিধান নির্দিষ্ট করার। উল্লেখ্য, গত বুধবার রাতে হায়দরাবাদের পশুচিকিত্সককে ধর্ষণ এবং নির্মমভাবে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় ৪ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। ভয়াবহ ঘটনার কথা অভিযুক্তরা কবুলও করেছে বলে জানা যাচ্ছে। উল্লেখ্য, ঘটনার দু’দিনের মধ্যে প্রায় একই জায়গায় আরও একটি দগ্ধ মহিলার দেহ উদ্ধার হয়।