উপমহাদেশে যুদ্ধের আতঙ্ক তৈরি করছে পাকিস্তান, কড়া প্রতিক্রয়া ভারতের

এর বদলে সন্ত্রাসবাদ দমনে নিজেদের গোয়েন্দাদের ব্যবহার করানো উচিত বলে পরামর্শ দিয়েছে ভারত।

Updated By: Apr 7, 2019, 09:18 PM IST
উপমহাদেশে যুদ্ধের আতঙ্ক তৈরি করছে পাকিস্তান, কড়া প্রতিক্রয়া ভারতের

নিজস্ব প্রতিবেদন: পাকিস্তানের আতঙ্ক নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া দিল ভারত। স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হল, উপমহাদেশে যুদ্ধের আতঙ্ক ছড়াতে চাইছে ইমরান খানের সরকার। ভারত হামলা করতে পারে, পাকিস্তানের এমন আতঙ্ককে ভারতীয় বিদেশমন্ত্রক দায়িত্বজ্ঞানহীন বলেই মন্তব্য করেছে।

প্রসঙ্গত, রবিবার আচমকা পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি একটি বিবৃতি দেন। তাতে তিনি আশঙ্কাপ্রকাশ করেন যে ভারত আবার তাঁদের দেশে হামলা চালাতে পারে। চলতি এপ্রিলের ১৬ থেকে ২০ তারিখের মধ্যে ফের হামলা চালাতে পারে ভারত।

কেন ভারত হামলা চালাবে, সেই প্রশ্নের উত্তরে কুরেশির যুক্ত ছিল, ভারত চায় পাকিস্তানের উপর চাপ সৃষ্টি করতে, তাই তারা এমন পদক্ষেপ নেবে।

আরও পড়ুন: ভারত ফের হামলা চালাতে পারে, আতঙ্কে রাতে ঘুম হচ্ছে না পাকিস্তানের

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে উরি ও ২০১৯-এর ফেব্রুয়ারিতে পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার পর ভারত পাল্টা প্রত্যাঘাত করে। প্রথমবার পাকিস্তানের অধিকৃত কাশ্মীরে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করা হয়। ধ্বংস করা হয় জইশ-ই-মহম্মদের জঙ্গি ঘাঁটি। দ্বিতীয়বার এয়ার স্ট্রাইক করে ভারতীয় বায়ুসেনা। এবার ধ্বংস করা হয় জইশের সবচেয়ে বড় জঙ্গিঘাঁটি। ওই হামলা হয় পাকিস্তানের বালাকোটে।

তার পর ইমরান খানের সরকারের বিদেশমন্ত্রীর এই মন্তব্যে হইচই পড়ে যায় সর্বত্র। প্রশ্ন উঠতে থাকে, ভারত কি সত্যিই এমন পরিকল্পনা করছে! কারণ, সন্ত্রাসবাদ দমনে কড়া অবস্থান নেওয়ার ইঙ্গিত ইতিমধ্যেই ভারতের তরফে দেওয়া হয়েছে একাধিকবার।

কিন্তু পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রীর বিবৃতি সামনে আসার কয়েকঘণ্টার মধ্যেই জবাব দেওয়া হল ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের তরফে। পাকিস্তানের আশঙ্কাকে সোজাসাপ্টা উড়িয়ে দেওয়া হল। তাদের বক্তব্য, এই ধরনের আশঙ্কা প্রকাশ করে পাকিস্তান দায়িত্বজ্ঞানহীনের কাজ করছে। এই বক্তব্যের মাধ্যমে উপমহাদেশে যুদ্ধের আতঙ্ক ছড়ানোর চেষ্টা করছে পাকিস্তান।

বিদেশমন্ত্রকের দাবি, এই ধরনের মন্তব্য করে পাকিস্তান আসলে তাদের মদতপুষ্ট জঙ্গিদের ভারতে সন্ত্রাসবাদী হামলা করতে উত্সাহিত করছে। এর বদলে সন্ত্রাসবাদ দমনে নিজেদের গোয়েন্দাদের ব্যবহার করানো উচিত বলে পরামর্শ দিয়েছে ভারত।

পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে যেকোনও পদক্ষেপ নিতে যে ভারত পিছপা হবে না, সেটাও জানানো হয়েছে বিদেশমন্ত্রকের ওই প্রতিক্রিয়ায়।