রামমন্দিরের দাবিতে পরিক্রমা যাত্রা ঘিরে থমথমে অযোধ্যা

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কর্মসূচিকে ঘিরে থমথমে পরিস্থিতি অযোধ্যায়। উত্তরপ্রদেশ সরকার অনুমতি না দিলেও রামমন্দিরের দাবিতে কাল থেকে পরিক্রমা যাত্রা শুরুর বিষয়ে অনড় ভিএইচপি। অশোক সিঙ্ঘল সহ সংগঠনের একাধিক নেতাকে আটক করেছে পুলিস। অযোধ্যা ও ফৈজাবাদ শহরকে মুড়ে ফেলা হয়েছে নিরাপত্তার চাদরে।

Updated By: Aug 25, 2013, 10:46 AM IST

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কর্মসূচিকে ঘিরে থমথমে পরিস্থিতি অযোধ্যায়। উত্তরপ্রদেশ সরকার অনুমতি না দিলেও রামমন্দিরের দাবিতে কাল থেকে পরিক্রমা যাত্রা শুরুর বিষয়ে অনড় ভিএইচপি। অশোক সিঙ্ঘল সহ সংগঠনের একাধিক নেতাকে আটক করেছে পুলিস। অযোধ্যা ও ফৈজাবাদ শহরকে মুড়ে ফেলা হয়েছে নিরাপত্তার চাদরে।
রামমন্দিরের দাবিতে ২৫ অগাস্ট থেকে ১৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৮৪ কোশি পরিক্রমা যাত্রা। বিশ্ব হিন্দু পরিষদের এই কর্মসূচি উত্তরপ্রদেশ সরকারের অনুমতি পায়নি। সরকারি সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে জনস্বার্থ মামলাও শনিবার খারিজ করে দিয়েছে এলাহাবাদ হাইকোর্টের লখনউ বেঞ্চ। যদিও,সরযূর তির থেকে রবিবার যাত্রা শুরু করার বিষয়ে এখনও অনড় ভিএইচপি। পরবর্তী রণকৌশল ঠিক করতে শনিবার বৈঠকে বসেন সংগঠনের নেতারা।
  
গণ্ডগোলের আশঙ্কায় অশোক সিঙ্ঘল সহ বহু ভিএইচপি কর্মীকে আটক করেছে পুলিস। প্রবীণ তোগাড়িয়া সহ একাধিক ভিএইচপি নেতার বিরুদ্ধে জারি হয়েছে গ্রেফতারি পরোয়ানা। ফৈজাবাদ, বসতি, বরাবাঙ্কি, গোণ্ডা, বাহারাইচ ও আম্বেদকার নগর - এই ছটি জেলা দিয়ে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের পরিক্রমা যাত্রা যাওয়ার কথা। ছটি জেলাতেই নিরাপত্তা বাড়িয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। ফৈজাবাদ ও অযোধ্যায় নিরাপত্তার কড়াকড়ি সবচেয়ে বেশি। সরযূ নদীর ঘাট থেকে ফৈজাবাদের অলিগলি - সব জায়গাতেই শোনা যাচ্ছে নিরাপত্তারক্ষীদের ভারী বুটের আওয়াজ।
 
রামমন্দির নির্মাণের দাবিতে ৪০ থেকে ৫০ হাজার ভিএইচপি কর্মী পরিক্রমা যাত্রায় সামিল হতে পারেন বলে মনে করছে উত্তরপ্রদেশ সরকার। অযোধ্যায় ঢোকার চেষ্টা করলে তাঁদের আটকানো হবে বলে জানানো হয়েছে।