close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

ভুল করে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ঢুকল ৪০ লক্ষ টাকা! খরচ করায় ৩ বছরের জেল হল দম্পতির!

আদালত গুণাসেকরণ দম্পতিকে ৩ বছরের জেলহেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে।

Sudip Dey Sudip Dey | Updated: Sep 18, 2019, 05:19 PM IST
ভুল করে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ঢুকল ৪০ লক্ষ টাকা! খরচ করায় ৩ বছরের জেল হল দম্পতির!
—প্রতীকী ছবি।

নিজস্ব প্রতিবেদন: আচমকাই একদিন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ৪০ লক্ষ টাকা জমা পড়ার মেসেজ পান এক ব্যক্তি। ঘটনাটি ঘটে তামিলনাড়ুর তিরুপুরের বাসিন্দা ভি গুণাসেকরণের সঙ্গে। পেশায় বিমা সংস্থার এজেন্ট গুণাসেকরণ যেন হাতে স্বর্গ পেয়ে গিয়েছেন! স্ত্রীকে রাধাকেও তিনি জানান, গোটা বিষয়টা। দু’জনেই তখন আনন্দে আত্মহারা! কী ভাবে, কোথা থেকে এতগুলো টাকা তাঁর অ্যাকাউন্টে এল, তা ভাবার মতো অবস্থা তখন ছিল না ওই ব্যক্তির। বিপুল পরিমাণ এই টাকা দিয়ে সম্পত্তি, গয়না, জামা-কাপড় কিনতে শুরু করেন দু’জনে। বিমা সংস্থার এজেন্ট গুণাসেকরণের মধ্যবিত্ত জীবন তখন অনেকটাই বদলে গিয়েছে এক ধাক্কায়।

সম্পত্তি, গয়নাগাটি, জামা-কাপড় কেনার পাশাপাশি ওই টাকা থেকে ধুমধাম করে মেয়ের বিয়েও দেন গুণাসেকরণ দম্পতি। এই টাকা খরচ করার জন্য সোমবার তামিলনাড়ুর একটি আদালত এই দম্পতিকে ৩ বছরের জন্য জেলহেফাজতের নির্দেশ দিল।

ঘটনাটি ২০১২ সালের। আদালতে সরকার পক্ষের আইজীবী জানান, ওই টাকা এলাকার উন্নয়নের জন্য স্থানীয় সাংসদের তহবিল থেকে তিরুপুরের জনস্বাস্থ্য কারিগরি দফতরের (PWD) কর্পোরেশন ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্টে জমা হওয়ার কথা ছিল। ঘটনাচক্রে গুণাসেকরণেরও ওই ব্যাঙ্কে একটি সেভিংস অ্যাকাউন্ট ছিল। জনস্বাস্থ্য কারিগরি দফতরের কর্মীরা ভুলবসত নির্দিষ্ট সরকারি অ্যাকাউন্ট নম্বরের পরিবর্তে গুণাসেকরণের অ্যাকাউন্ট নম্বর বলে ফেলেন। সাংসদের তহবিল থেকে টাকা চলে যায় গুণাসেকরণের অ্যাকাউন্টে। আট মাস পর্যন্ত বিষয়টি জানতেনই না তিরুপুরের জনস্বাস্থ্য কারিগরি দফতরের কর্তৃপক্ষ। এর পর যখন তাঁদের টনক নড়ে, ততদিনে সমস্ত টাকাই তুলে ফেলা হয়েছে গুণাসেকরণের অ্যাকাউন্ট থেকে।

আরও পড়ুন: পুজোর মুখে চওড়া হাসি সাড়ে ১১ লক্ষ কেন্দ্রীয় কর্মচারির, ৭৮ দিনের বোনাস ঘোষণা কেন্দ্রের

এর পর ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের তরফে গুণাসেকরণকে ওই টাকা ফিরিয়ে দিতে অনুরোধ জানানো হয়। কিন্তু নির্দারিত সময়ের মধ্যে ওই টাকা ব্যাঙ্কে ফেরত দিতে ব্যর্থ হন গুণাসেকরণ। এর পর ২০১৫-এ ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের অভিযোগের ভিত্তিতে অসৎ উপায়ে সম্পত্তি আত্মসাতের অভিযোগ (ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪০৩ ধারায়), অপরাধমূলক ষড়যন্ত্র (ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২০ বি ধারায়) মামলা দায়ের করে তিরুপুরের কেন্দ্রীয় অপরাধ শাখা (Central Crime Branch)। ২০১৫ সালের ওই মামলায় তিরুপুরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত গুণাসেকরণ দম্পতিকে ৩ বছরের জেলহেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে।