দিলীপকে 'মিথ্যেবাদী' বললেন শ্রীনি

২০০৮ সালে বিরাট কোহলিকে দলে নেওয়ার জন্য সওয়াল করেই নির্বাচক প্রধানের পদ খোয়াতে হয়েছিল বলে দিন কয়েক আগে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছিলেন প্রাক্তন জাতীয় নির্বাচক প্রধান দিলীপ বেঙ্গসরকার। এবার তারই পাল্টা হিসেবে দিলীপকেই সরাসরি মিথ্যেবাদী বললেন প্রাক্তন বোর্ড সভাপতি নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসন।

Updated By: Mar 10, 2018, 10:17 AM IST
দিলীপকে 'মিথ্যেবাদী' বললেন শ্রীনি

নিজস্ব প্রতিবেদন: ২০০৮ সালে বিরাট কোহলিকে দলে নেওয়ার জন্য সওয়াল করেই নির্বাচক প্রধানের পদ খোয়াতে হয়েছিল বলে দিন কয়েক আগে বিস্ফোরক মন্তব্য করেছিলেন প্রাক্তন জাতীয় নির্বাচক প্রধান দিলীপ বেঙ্গসরকার। এবার তারই পাল্টা হিসেবে দিলীপকেই সরাসরি মিথ্যেবাদী বললেন প্রাক্তন বোর্ড সভাপতি নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসন।

আরও পড়ুন- 'আজীবন ওর সঙ্গে থাকতে চাই', হাসিনের 'চক্রান্তে' কান্নায় ভেঙে পড়লেন শামি

বুধবার মুম্বইতে এক অনুষ্ঠানে গিয়ে প্রাক্তন নির্বাচক প্রধান দিলীপ বেঙ্গসরকারের দাবি, ভারতীয় দলে বিরাট কোহলির জন্য জোরালো সওয়াল করায়, মেয়াদ শেষের আগেই ২০০৮ সালে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের নির্বাচক কমিটির প্রধানের পদ খোয়াতে হয়েছিল তাঁকে। তামিলনাডুর ব্যাটসম্যান বদ্রীনাথের বদলে বিরাটের হয়ে কথা বলার বিষয়টি তখন মোটেও ভালভাবে নেননি বোর্ডের তত্কালীন কোষাধ্যক্ষ এন শ্রীনিবাসন।

আরও পড়ুন- এক দশক পর বিরাট নিয়ে বিস্ফোরক বেঙ্গসরকার, কটাক্ষ শ্রীনিকে

তাঁর বিরুদ্ধে আনা গুরুতর অভিযোগ নিয়ে প্রথমে মুখ না খুললেও, অবশেষে নিজের মত প্রকাশ করলেন শ্রীনি। তিনি বলেন, " বেঙ্গসরকার যা বলেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যে এবং ভিত্তিহীন। আমি কখনই দল নির্বাচনের বিষয়ে নাক গলায়নি। আর এটা সবাই জানে যে আমি তখন বোর্ডের কোষাধক্ষ্য ছিলাম, প্রেসিডেন্ট পদে ছিলাম না।" ১০ বছর বাদে কেন বেঙ্গসরকার এমন বিষয়ে কথা বললেন তা বেশ অবাক করেছে শ্রীনিকে।

কেন বেঙ্গসরকারকে নির্বাচক কমিটির প্রধানের পদ খোয়াতে হয়েছিল সে বিষয়টিও এদিন স্পষ্ট করে দেন শ্রীনিবাসন। তিনি জানান, "২০০৮ সালের অগাস্টে মুম্বই ক্রিকেট সংস্থার ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হন দিলীপ বেঙ্গসরকার। তত্কালীন বোর্ড প্রেসিডেন্ট শরদ পাওয়ার বোর্ডে নির্বাচকদের জন্য বেশ কিছু নতুন নিয়ম লাগু করেন। আর সেকারনেই জাতীয় নির্বাচক কমিটির প্রধানের পদ থেকে সরে যেতে হয় বেঙ্গসরকারকে।"

খেলার খবর জানতে দেখুন স্পোর্টস ২৪, রাত ৮ টা ৪০ মিনিটে। শুধুমাত্র ২৪ ঘণ্টায়