হ্যান্ড স্যানিটাইজার স্টিকার লাগানো ট্রাকে, লকডাউনের বাজারে তল্লাশি চালাতেই চোখ কপালে পুলিসের

তা না হলে ট্রাকে হ্যান্ড স্যানিটারের স্টিকার লাগিয়ে মানুষ পাচার করছে একদল স্বার্থন্বেষী ব্যক্তি!

Updated By: May 3, 2020, 12:35 PM IST
হ্যান্ড স্যানিটাইজার স্টিকার লাগানো ট্রাকে, লকডাউনের বাজারে তল্লাশি চালাতেই চোখ কপালে পুলিসের

নিজস্ব প্রতিবেদন: লকডাউনের স্বার্থকতা কোথায়? কেন এর গম্ভীরতা বুঝতে পারছেন না সকলে? তা না হলে ট্রাকে হ্যান্ড স্যানিটারের স্টিকার লাগিয়ে মানুষ পাচার করছে একদল স্বার্থন্বেষী ব্যক্তি! বীরভূমের সিউড়ির তারাপুর গ্রামে পুলিসের জালে ধরা পড়ল এক ট্রাকভর্তি মানুষ। জানা গিয়েছে, তাঁরা কলকাতা থেকে ঝাড়খণ্ডে পালানোর চেষ্টা করছিলেন।
লকডাউনে বন্ধ যানচলাচল। বিভিন্ন জায়গায় চলছে নাকা চেকিং, পুলিসি টহলদারি। এ কয়েকদিনে অন্যান্য প্রচুর অভিজ্ঞতা হয়েছে পুলিসকর্মীদের। তাই ট্রাকের বাইরে হ্যান্ড স্যানিটাইজার স্টিকার লাগানো থাকলেও পুলিসের চোখকে ফাঁকি দেওয়া সম্ভব হয়নি। সিউড়ির তারাপুর গ্রামে ট্রাকটি ঢোকা মাত্রই খটকা লাগে সিউড়়ি থানার আইসির। তিনি ট্রাকটিকে দাঁড় করিয়ে চালককে প্রশ্ন করেন। চালকের কথায় অসঙ্গতি থাকায়, ট্রাকে তল্লাশি চালান তিনি।  দেখা যায়, হ্যান্ড স্যানিটাইজার নয়, মানুষভর্তি সেই ট্রাক। ছোট্ট পরিসরের মধ্যে গাদাগাদি করে বসে রয়েছেন প্রায় ২৫ জন।

রেশন দুর্নীতির অভিযোগে ২৭১ জন রেশন ডিলারকে শোকজ, গ্রেফতার ১৯
জেরায় জানা গিয়েছে, ডানকুনি থেকে ১৪০০ টাকা ভাড়া দিয়ে তাঁরা ঝাড়খণ্ডের দুমকায় যাচ্ছিলেন। চালক অবশ্য দাবি করছেন, "ট্রাকের ভিতর কী রয়েছে, তা আমি জানতাম না। মালিক সব জানে। মালিক শুধু বলেছিল ট্রাকটিকে দুমকা পর্যন্ত নিয়ে যেতে হবে।"
প্রশ্ন উঠছে, এতটা রাস্তা পুলিসের চোখকে ফাঁকি দিয়ে কীভাবে বীরভূম পর্যন্ত আসতে পারল ট্রাকটি? বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।