শোভন আমার মেন্টর, তাঁকে পুজো করি, অগ্নিমিত্রার মন্তব্যে পাল্টা বৈশাখীর

ঝামেলার সূত্রপাল, অগ্নিমিত্রার একটি মন্তব্যে। 

Updated By: Nov 24, 2020, 07:15 PM IST
শোভন আমার মেন্টর, তাঁকে পুজো করি, অগ্নিমিত্রার মন্তব্যে পাল্টা বৈশাখীর

নিজস্ব প্রতিবেদন: বঙ্গ বিজেপিতে নয়া দ্বন্দ্ব! বিজেপিতে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের 'গুরুত্ব' নিয়ে বলেছিলেন অগ্নিমিত্রা পল। তার পাল্টা ১০ পয়েন্টে মহিলা মোর্চার সভানেত্রীকে জবাব দিলেন বৈশাখী। অগ্নিমিত্রা পল দাবি করলেন, তাঁর মন্তব্যের অপব্যাখ্যা করেছে সংবাদমাধ্যম। 

ঝামেলার সূত্রপাল, অগ্নিমিত্রার একটি মন্তব্যে। বিজেপির মহিলা মোর্চার সভানেত্রী বলেছেন, ''শোভন চট্টোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক গুরুত্ব অনেক বেশি। বৈশাখী দি একই গুরুত্ব পাবেন না।'' এরপরই যারপরনাই ক্ষুব্ধ বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় দীর্ঘ ফেসবুক পোস্ট লেখেন। তিনি লিখেছেন,''বিজেপিতে যোগদানের আগে অগ্নিমিত্র পলের একটাই পরিচয়। তিনি ফ্যাশন ডিজাইনার। যত দূর জানি তাঁর কোনও রাজনৈতিক পরিচয় নেই। নেই রাজনীতিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকাও। তা সত্ত্বেও বিজেপির মহিলা মোর্চার সভানেত্রীর মতো বিরাট দায়িত্ব পেয়েছেন।'' 

তিনি আরও লিখেছেন,''প্লেটে করে কেউ রাজনৈতিক পদ তুলে দেয়নি আমায়। দীর্ঘ লড়াইয়ের পর WBCUPA-র সাধারণ সম্পাদক হই। আমার ছবি কখনও পেজ থ্রি-তে ছাপেনি। তবে আমি জাতীয় ও আঞ্চলিক টিভি চ্যানেলে দলের হয়ে গলা ফাটিয়েছি। সংগঠনের নেত্রী হিসেবে পুরুলিয়া থেকে বর্ধমান, গোসাবা থেকে গড়িয়া, ধর্মতলা থেকে যাদবপুর ঘুরেছি। নির্বাচনের টিকিট পেতে নয়, দলের সংগঠন বাড়ানোই ছিল লক্ষ্য। শিক্ষাবিদ তো বটেই, মহিলা, প্রান্তিক ও সংখ্যালঘুদের অধিকার রক্ষায় সরব হয়েছি। শিশু নির্যাতন, সাংসারিক হিংসা ও নিরক্ষরতার বিরুদ্ধে লড়াই করেছি।''   

অগ্নিমিত্রাকে বৈশাখীর কটাক্ষ, ফেসবুক, টুইটারে ছবি পোস্ট করে জনসমর্থন পাইনি। মিছিল-মিটিং, বিক্ষোভে অংশ নিয়েছি। দলে যোগদান করার পর বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ডেকেছেন আপনার পূর্বসূরী লকেট চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু সংবাদমাধ্যমে আপনার বক্তব্য আমাকে আঘাত করেছে। আমায় বিরোধীরা নয়, বরং দলের সতীর্থই সমালোচনা করছেন। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষও আমায় ব্যক্তিগত আক্রমণ করেননি। লকেটদি, কুণাল ঘোষের আচরণ বলে দেয়, সত্যিকারের রাজনীতিকরা নিম্নরুচির ঊর্ধ্বে। 

বৈশাখী  লিখেছেন,''এটা মাথায় রাখুন রাজনীতিতে আমার কোনও গডফাদার নেই। শোভন চট্টোপাধ্যায়, মুকুল রায়, পার্থ চট্টোপাধ্যায়  ও কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে আদর্শ শিখেছি। আর বিজেপিতে রামলালজি, শিবপ্রকাশজি, মেননজি ও অমিতাভদার কাছে শিখেছি। শোভন আমার মেন্টর। তাঁকে সম্মান ও পুজো করি। তিনি আমায় নম্র ও মাথা উঁচু রাখা শিখিয়েছেন। সমস্ত রকম পদ ছেড়ে দিয়েছিলেন শুধুমাত্র মূল্যবোধের কারণে। বিজেপিতে আমায় পদ পাইয়ে দেওয়ার জন্য শোভন চেষ্টা করেছিল বলে আপনি শুনেছেন? আর ম্যাডাম পল, আপনার এই ধরনের দায়িত্বজ্ঞানহীন বক্তব্যে শোভন চ্যাটার্জি মোটেও খুশি নন, তিনি প্রচণ্ড বিরক্ত।''

 

ঝাড়গ্রামে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্ষোভের জবাব দেন অগ্নিমিত্রা পল। বলেন,''শোভন-বৈশাখীকে নিয়ে বাড়াবাড়ি করছে সংবাদমাধ্যম। আমার মন্তব্যের অপব্যাখ্যা করা হয়েছে।''

আরও পড়ুন- খেয়ে পালিয়েছে, মেয়েটার চিকিৎসার দায়িত্ব আমরা নিয়েছি: মমতা