'অঘোষিত' বনধ নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে, বিপাকে পর্যটকেরা

এনজেপি'র কাছে স্থলবন্দরে শ্রমিক নিয়োগকে কেন্দ্র করে গন্ডগোল।

Updated By: Feb 5, 2021, 07:20 PM IST
'অঘোষিত' বনধ নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশনে, বিপাকে পর্যটকেরা

নিজস্ব প্রতিবেদন: 'অঘোষিত' ধর্মঘট চলছে। পর্যটক থেকে সাধারণ যাত্রীরা বিপাকে। শুক্রবার গাড়ি না পেয়ে তাই হেঁটেই স্টেশন চত্বর ছাড়তে হল তাঁদের।

কেন ধর্মঘট? 

স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে, ব্যবসায়ী-সহ গাড়ি চালকদের বলা হয়েছে ধর্মঘট করতে তাই তাঁরা ধর্মঘটে সামিল। এ বিষয়ে আইএনটিটিইউসির ট্যাক্সি চালক ইউনিয়নের নেতা বাবু দাস বলেন, 'গতকাল স্থলবন্দরে আমাদের আইএনটিটিইউসি কয়েকজন নেতাকে পুলিশ বিনা দোষে গ্রেফতার করে। তাই স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে শ্রমিকরা কর্মবিরতি পালন করছেন। আমরা কিছু বলিনি।'

আরও পড়ুন: দেওয়াল দখল নিয়ে গন্ডগোল সিপিএম-বিজেপি'র

শুক্রবার সকাল থেকে প্রায় ঘণ্টাপাঁচেক এনজেপি চত্বর বন্ধের চেহারা নেয়। পরে ঘটনাস্থলে এনজেপি থানার পুলিশ আসে। নামে র‌্যাফ। চলে পুলিশের রুটমার্চ। পুলিশ ওই এলাকার সমস্ত ব্যবসায়ী ও গাড়ি চালকদের আশ্বাস দেওয়ার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে  দোকানপাট ও গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক হয়।

কেন এই কান্ড? 

শিলিগুড়ির অদূরে এনজেপি'র কাছে স্থলবন্দরে শ্রমিক নিয়োগকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার কান্ড ঘটেছিল বৃহস্পতিবার। জানা যায়, তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যেই এই সংঘর্ষ। এর জেরে স্থলবন্দরে চালানো হয় ভাঙচুর। অভিযোগ, তৃণমূলের এনজেপির আইএনটিটিইউসি প্রভাবশালী নেতা প্রসেনজিৎ রায় গোষ্ঠী ও সুকান্ত কর গোষ্ঠীর মধ্যেই এই ঝামেলা। কার দখলে যাবে এই স্থলবন্দর তা নিয়ে। ঘটনায় গতকালই পাঁচজন আইএনটিটিইউসি নেতা ও কর্মীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এর পরেই শুক্রবার নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন চত্বর এলাকায় ধর্মঘট ডাকা হয়। স্বভাবতই সকাল থেকে বন্ধ থাকে হোটেল-সহ দোকানপাট। চলে না ছোট বড় কোনও গাড়িই। আর এতেই বিপাকে পড়েন পর্যটকেরা।

এ বিষয়ে এনজেপির বিজেপি নেতা জয়দীপ নন্দীর বক্তব্য, এই ঘটনা প্রমাণ করে রাজ্যে নৈরাজ্য চলছে। মুখ্যমন্ত্রী শহরে থাকাকালীন এহেন ঘটনা মেনে নেওয়া যায় না। পুলিশ চাইলেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে পারে।

আরও পড়ুন: নাড্ডা আসছেন, প্রস্তুতি তুঙ্গে নদিয়ার চটির মাঠে