TMC মানেই চালচোর-ত্রিপলচোর; রাজ্যে চলছে কাটমানির কালচার: Nadda

দিল্লিতে কৃষক আন্দোলন ক্রমশ শক্তিশালী হচ্ছে। দেশজুড়ে প্রচার চলছে, নয়া ৩ কৃষি আইন কৃষকদের সর্বনাশ করবে। এদিকে লক্ষ্য করেই আজ মুষ্ঠিভিক্ষা কর্মসূচি চালু করছে বিজেপি

Updated By: Jan 9, 2021, 03:13 PM IST
TMC মানেই চালচোর-ত্রিপলচোর; রাজ্যে চলছে কাটমানির কালচার: Nadda

নিজস্ব প্রতিবেদন: কৃষকদের প্রতি বঞ্চনা, রেশন দুর্নীতি, ত্রাণ দুর্নীতি-সহ একাধিক অভিযোগ তুলে রাজ্য সরকারকে বিঁধলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। শনিবার কাটোয়ার সভা থেকে রাজ্য সরকারকে চালচোর, রেশনচোর, বালিচোর বলেও আক্রমণ করলেন নাড্ডা।

কাটোয়ার জগদানন্দপুরের সভা থেকে নাড্ডা(J P Nadda) অভিযোগ, বাংলার কালচার এখন কাটমানির কালচার। বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি বলেন, বাংলায় এখন চাল চোর, বালি চোর, রেশন চোরে ভরে গিয়েছে। করোনার সময়ে গরিব মানুষের জন্য খাদ্য শস্য দেওয়া হয়েছিল তা পাওয়া গিয়েছে তৃণমূল নেতাদের ঘরে। TMC মানেই এখন চালচোর, রেশন চোর, ত্রিপল চোর।

আরও পড়ুন-দিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে বৈঠক রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের

দিল্লিতে কৃষক আন্দোলন(Farmers Protest) ক্রমশ শক্তিশালী হচ্ছে। দেশজুড়ে বিরোধীদের প্রচার চলছে, নয়া ৩ কৃষি আইন(Farm Laws) কৃষকদের সর্বনাশ করবে। এদিকে লক্ষ্য করেই আজ মুষ্ঠিভিক্ষা কর্মসূচি চালু করছে বিজেপি। এই প্রকল্পে কৃষকদের কাছে থেকে চাল ও সবজি সংগ্রহ করা হবে। 

কাটোয়ার সভা থেকে ফের রাজ্যের কৃষকদের বঞ্চিত করার অভিযোগ তুলেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। তিনি বলেন, গোটা দেশে ফসলের মূল্যের নিরীখে বাংলার স্থান ২৪ নম্বর।  এরকম এক অবস্থায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee) সরকার রাজ্যের লাখ লাখ কৃষককে প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি(PM-KISAN) প্রকল্প থেকে বঞ্চিত করেছেন।

নাড্ডা বলেন, মোদী সরকারের আমলে দেশে কৃষি বাজেট ৬ গুণ হয়েছে। স্বামীনাথন কমিটির সুপারিশ লাগু করেছে সরকার। এখন মমতা দিদি পিএম কিষাণ প্রকাল্পের জন্য কেন্দ্রকে চিঠি লিখেছেন ওই প্রকল্প লাগু করার জন্য। তার আর প্রয়োজন নেই দিদি। রাজ্যের ২৩ লাখ কৃষক ওই প্রকল্পের জন্য আবেদন করেছিলেন। তখন তা নেওয়ার প্রয়োজন মনে করেননি। এবার রাজ্যে বিজেপি সরকার এল তা হবে।

আরও পড়ুন-LIVE: মথুরা মণ্ডলের বাড়িতে ভাত, শুক্তো, পোস্ত দিয়ে মধ্যাহ্নভোজে নাড্ডা

আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের সুবিধা না নেওয়ায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যকে নিয়ম করে আক্রামণ করেন বিজেপি নেতারা। সেটাই ফের করলেন বিজেপি সভাপতি। বলেন, কেন্দ্রের স্বাস্থ্য প্রকল্পের আওতায় প্রতিটি পরিবার বছরে ৫ লাখ টাকার চিকিত্সার সুযোগ পায়। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের ৪ লাখ মানুষকে ওই প্রকল্প থেকে বঞ্চিত করেছেন। উনি সবসময় বলেন, হবে না, হবে না। আমরা বলছি রাজ্যে বিজেপি সরকার এলে সব হবে। এই সভায় আপনাদের উত্সাহ প্রমাণ করে দিয়েছে রাজ্যে বিজেপি সরকার আনার ব্যাপারে মনস্থির করে ফেলেছেন আপনারা।