Howrah: শিবপুরে প্রকাশ্যে ধারাল অস্ত্রের কোপ, আশঙ্কাজনক হাইকোর্টের আইনজীবী

মঙ্গলবার সকালে হাওড়ার শিবপুরের কাজিপাড়ায় ওই ঘটনা ঘটে

Updated By: Oct 26, 2021, 01:53 PM IST
 Howrah: শিবপুরে প্রকাশ্যে ধারাল অস্ত্রের কোপ, আশঙ্কাজনক হাইকোর্টের আইনজীবী

নিজস্ব প্রতিবেদন: প্রকাশ্যে হাইকোর্টের আইনজীবীকে কুপিয়ে খুনের চেষ্টা হল হাওড়ার শিবপুরে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি ওই আইনজীবী।

মঙ্গলবার সকালে হাওড়ার শিবপুরের কাজিপাড়ায় নবান্নর কাছেই ওই ঘটনা ঘটে। তনভির আলম নামে হাইকোর্টের ওই আইনজীবীকে প্রকাশ্য রাস্তায় ধারাল অস্ত্র দিয়ে কোপায় কিছু দুষ্কৃতী। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তনভিরকে ভর্তি করা হয়েছে হাওড়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে।

আরও পড়ুন-Jalpaiguri: অরুণাচল থেকে হাতি পাচার! অসম বন বিভাগের তৎপরতায় পাকড়াও জলপাইগুড়িতে

সূত্রের খবর, প্রমোটারি সংক্রান্ত বিবাদের জেরেই ওই হামলা হয়েছে। আইনজীবীর হাতে ও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় গভীর ক্ষত হয়েছে। চিকিত্সকেরা জানিয়েছেন তনভিরের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

পুলিস সূত্রে খবর কাজিপাড়ার সফিকুল আলম রোডের এক ব্যাস্ত এলাকায় হামলা চালানো হয় তনভিরের উপরে। তিনজন দুষ্কৃতী ওই হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল এদের মধ্যে ২ জনের নাম এখনও পর্যন্ত জানা য়াচ্ছে। এরা হল গোপী ও চাঁদ। দুজনই এলাকার দাগী অপরাধী বলে জানা যাচ্ছে। তাদের গ্রেফতার করেছে পুলিস। ওই দুজনকে তনভিরকে খুনের জন্য কোনও সুপারি দেওয়া হয়েছিল কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

হামলার সময় বাড়ির দিক থেকে হেঁটে আসছিলেন তনভির। জমি ও বহুতল নির্মাণকে কেন্দ্র করে বেশ কয়েকজনের সঙ্গে বিবাদ চলছিল তনভিরের। তার জেরেই এই হামলা। দুষ্কৃতীরা এখনও অধরা। এর আগেও তার উপরে হামলা হয়েছিল। ওই ঘটনায় এলাকায় প্রবল আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকায় মোতায়েন করা হয়েছে র্যাফ। 

আরও পড়ুন-Goa: উত্তপ্ত গোয়ার রাজনীতি, BJP-র বিরুদ্ধে তৃণমূলের হোর্ডিং-পোস্টার ভাঙার অভিযোগ

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, আজ রাস্তার মোড়ে তনভিরের জন্য অপেক্ষা করছিল দুষ্কৃতীরা। তনভির আসার পরই তার উপরে চপার নিয়ে হামলা চালানো হয়। হামলায় তরভিরের সঙ্গেই গুরুতর আহত হয়েছেন আরও একজান। তিনিও হাসপাতালে ভর্তি। এদিকে, এলাকায় দুষ্কৃতীদের তাণ্ডব নিয়ে পুলিসের বিরুদ্ধে আঙুল তুলছেন এলাকাবাসী। তাদের দাবি, ওইসব দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে একাধিকবার পুলিসে অভিযোগ করেছিলেন তনভির ও এলাকার বেশ কয়েকজন। তার পরও ওইসব দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।