স্থানীয় নেতার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা স্ত্রীর, অপমানে আত্মঘাতী স্বামী, জোর চাঞ্চল্য সাঁইথিয়ায়

অভিযুক্ত নেতা রামকৃষ্ণ দাস তৃণমূল করেন বলে দাবি করেছেন।

Updated By: Nov 16, 2020, 04:59 PM IST
স্থানীয় নেতার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা স্ত্রীর, অপমানে আত্মঘাতী স্বামী, জোর চাঞ্চল্য সাঁইথিয়ায়
নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব প্রতিবেদন : স্ত্রীর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরেই একটা 'ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক' গড়ে উঠেছিল স্থানীয় নেতার। বিবাহ বহির্ভূত সেই সম্পর্কের প্রতিবাদ করেছিলেন স্বামী। বদলে জোটে অপমান। অপরমানিত হয়ে শেষমেশ আত্মঘাতী হলেন স্বামী। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের সাঁইথিয়ার ফুলুর পঞ্চায়েতের কেন্দুয়া গ্রামে।

ওই গ্রামের বাসিন্দাদের কথায় জানা গিয়েছে, স্থানীয় নেতা  রামকৃষ্ণ দাসের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরেই ঘনিষ্ঠতা গৃহবধূ নীলিমা মন্ডলের। দীর্ঘদিন ধরেই চলছে এই বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক। সম্প্রতি বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের এই বিষয়টি জানাজানি হয়ে যায়। স্ত্রীর পরকীয়ার কথা জানতে পেরে প্রতিবাদ করেন পেশায় রং মিস্ত্রি স্বামী জুরান মন্ডল। অভিযোগ, পাল্টা স্বামীকে অপমান করেন স্ত্রী। এরপরই রবিবার সন্ধ্যায় এলাকারই একটি পুকুর পাড়ের গাছে গলার দড়ি দিয়ে আত্মঘাতী হন জুরান মন্ডল।

জুরান মন্ডলের আত্মহত্যার খবর পেতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে গ্রামের মানুষ। মারধর করে অভিযুক্ত নেতাকে। ঘটনার খবর পেয়ে গ্রামে পৌঁছায় সাঁইথিয়া থানার পুলিস। তখন অভিযুক্ত নেতাকে পুলিসের হাতে তুলে দেয় গ্রামবাসীরা। তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্ত নেতা ও জুরান মন্ডলের স্ত্রী নীলিমা মন্ডলকে আটক করেছে সাঁইথিয়া থানার পুলিস। 

এখন অভিযুক্ত নেতা রামকৃষ্ণ দাস তৃণমূল করেন বলে দাবি করেছেন স্থানীয়রা। তিনি নিজেও 'তৃণমূল করি' বলে দাবি করেছেন। যদিও স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্বের স্পষ্ট দাবি, "অভিযুক্ত ব্যক্তি এখন আর তৃণমূলে নেই।" তৃণমূলের ব্লক সভাপতি সাবের আলিও বলেন, "রামকৃষ্ণ দাস এখন আর আমাদের দলের কেউ নয়। আমরা আগেই ওকে দল থেকে বের করে দিয়েছি।" সব মিলিয়ে এই ঘটনা ঘিরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।

আরও পড়ুন, একাদশ শ্রেণির ছাত্রীর 'বিকৃত' ঘনিষ্ঠ ছবি ছড়াল সোশ্যাল মিডিয়ায়, পরিণতি মর্মান্তিক