close

News WrapGet Handpicked Stories from our editors directly to your mailbox

ধর্ষণ করে খুন? ৫ দিনের মাথায় নিখোঁজ নাবালিকার দেহ ভেসে উঠল পুকুরে

কালীপুজো দেখার জন্য তার বাবা-মায়ের মহম্মদবাজারের আঙ্গারগড়িয়া পঞ্চায়েতের মালডিহা গ্রামে এসেছিল নাবালিকা।

Updated: Nov 15, 2018, 02:58 PM IST
ধর্ষণ করে খুন? ৫ দিনের মাথায় নিখোঁজ নাবালিকার দেহ ভেসে উঠল পুকুরে

নিজস্ব প্রতিবেদন : পাঁচ দিন ধরে মেয়ের অপেক্ষায় হত্যে দিয়ে পড়েছিলেন মা। বার বার ঠাকুরের কাছে প্রার্থনা করছিলেন জলদি যাতে মেয়ের কোনও খোঁজ পাওয়া যায়। ৫ দিন পর মিলল মেয়ের খোঁজ। কিন্তু, ঘরের মেয়ে আর ঘরে ফিরল না।  

আরও পড়ুন, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস, বোনের গর্ভে এল মামাতো দাদার সন্তান, পরের ঘটনা আরও ভয়াবহ

৫ দিন নিখোঁজ থাকার পর উদ্ধার হল নাবালিকার নিথর দেহ। মৃতের নাম পিউ বাগদি। বয়স ৭ বছর। এদিন সকালে গ্রামবাসীদের চোখে পড়ে পিউ বাগদির দেহ। গ্রামের বাইরে মাঠের ধারে একটা পুকুরের জলে নাবালিকার নিথর দেহ ভাসতে দেখেন তাঁরা। সঙ্গে সঙ্গেই মহম্মদবাজার থানায় খবর দেওয়া হয়। পুলিস এসে দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। এই ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে পুলিস।

আরও পড়ুন, পরকীয়ায় জড়িয়ে স্ত্রী! সন্দেহে ঘরে বন্দি করে খুনের চেষ্টা স্বামীর

জানা গিয়েছে, মহম্মদবাজারের সেকেড্ডা পঞ্চায়েতের দ্বারকোটা গ্রামে বাড়ি পিউ বাগদির। ১০ নভেম্বর শনিবার থেকে নিখোঁজ ছিল বছর সাতেকের পিউ বাগদি। জানা গেছে, কালীপুজো দেখার জন্য তার বাবা হলধর বাগদি ও মা আশা বাগদির সঙ্গে মহম্মদবাজারের আঙ্গারগড়িয়া পঞ্চায়েতের মালডিহা গ্রামে এসেছিল সে। মামার বাড়ি থেকেই নিখোঁজ হয়ে যায় সে।

আরও পড়ুন, দাদার বন্ধুর সঙ্গেই প্রেমের সম্পর্কে জড়ায় বোন, কেউ ভাবতে পারেনি পরিণতি এমন নৃশংস হতে পারে!

অনেক খোঁজাখুঁজির পরেও কোনও খোঁজ না পেয়ে মহম্মদবাজার থানায় দেয় বাড়ির লোক। কিন্তু তারপরেও ওই নাবালিকার কোনও খোঁজ মেলেনি। মহম্মদবাজার থানায় মিসিং ডায়রি করে নাবালিকার পরিবার। শেষে এদিন সকালে পুকুরের জলে ওই নাবালিকার দেহ ভাসতে দেখা যায়।

আরও পড়ুন, দেওরের সঙ্গে পরকীয়া বৌদির! শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হতে দেখে ফেলে স্ত্রী, তারপর...

এলাবাকাবাসী মনে করছে, ওই নাবালিকা ধর্ষণের পর খুন করা হয়েছে। তারপরই প্রমাণ লোপাটের জন্য গ্রামের বাইরে পুকুরে দেহ ফেলে দেওয়া হয়। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।