গ্রামের শান্তশিষ্ট-শিক্ষিত ছেলেটাই 'লস্কর-ই-তইবা জঙ্গি'! মানতেই পারছে না বসিরহাটের মানুষ

 গ্রামবাসীদের দাবি, "বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া গ্রামে বাড়ি হওয়ায় কারো চক্রান্তের শিকার হতে হয়েছে শান্ত স্বভাবের আব্দুল রাজ্জাক গাজিকে।"

Edited By: অধীর রায় | Updated By: Aug 21, 2020, 04:47 PM IST
গ্রামের শান্তশিষ্ট-শিক্ষিত ছেলেটাই 'লস্কর-ই-তইবা জঙ্গি'! মানতেই পারছে না বসিরহাটের মানুষ
নিজস্ব চিত্র

নিজস্ব প্রতিবেদন : বসিরহাটের শান্ত লেখাপড়া জানা আবদুল রাজ্জাক গাজিকে জঙ্গি সন্দেহে গ্রেফতার করেছে গুজরাত পুলিসের অ্যান্টি টেরোরিস্ট স্কোয়াড। গত সোমবার  গুজরাত পুলিসের এসটিএফের একজন এসপি ইমতিয়াজ শেখের নেতৃত্বে পাঁচজনের একটি দল বসিরহাটে আসে। নিঃশব্দে অভিযানের নকশা তৈরি করে । মঙ্গলবার দুপুরে  রাজ্জাকের মোবাইল ট্র্যাক করে গুজরাত পুলিসের  অ্যান্টি টেরোরিস্ট স্কোয়াডের ওই দলটি বসিরহাটের দণ্ডিরহাট বাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করে গুজরাত নিয়ে যায়। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গত ২০০৬ সালে আমেদাবাদ বিস্ফোরণকাণ্ডে জড়িত মূল অভিযুক্তকে প্রথমে সে বাড়িতে থাকতে দেয়। পরে তাকে বাংলাদেশে পালিয়ে যেতে সাহায্য করেছিল রাজ্জাক। গুজরাত পুলিসের দাবি রজ্জাকের সাথে লস্কর-ই-তইবার যোগাযোগ রয়েছে। 

এযেন বিনা মেঘে বজ্রপাত! বিএ পাস করা সাদাসিধে একটা ছেলের সঙ্গে জঙ্গি যোগ থাকতে পারে বলে কোনওভাবেই মানতে পারছে না বসিরহাট থানার দক্ষিণ বাগুন্ডি গ্রামের মানুষরা। গ্রামবাসীদের দাবি, "বাংলাদেশ সীমান্ত লাগোয়া গ্রামে বাড়ি হওয়ায় কারো চক্রান্তের শিকার হতে হয়েছে শান্ত স্বভাবের আব্দুল রাজ্জাক গাজিকে।" গুজরাত পুলিস গ্রামের মানুষকে জানিয়েছে, রাজ্জাকের আমেদাবাদে যাতায়াত  ছিল। পুলিসের এই কথায় হতবাক দক্ষিণ বাগুন্ডি গ্রামের মানুষ। আমেদাবাদ তো দূরের কথা, রাজ্জাক কোনওদিন কলকাতায় গিয়েছে কিনা, সেটাই জানা নেই তার স্ত্রী এবং গ্রামের মানুষের। রাজ্জাকের স্ত্রীর দাবি, "২০০৬ সালে আমাদের বিয়ে হয়েছে। কোনওদিন অসামাজিক কাজ করতে দেখিনি। নিজের ব্যবসা নিয়েই থাকত। আমার স্বামীকে চক্রান্ত করে কেউ ফাঁসিয়ে দিয়েছে।" শুধু রাজ্জাকের স্ত্রী নয়, গ্রামবাসীদের বিশ্বাস রাজ্জাক নাশকতামূলক কাজে জড়িত থাকতে পারে না। তাঁদের বিশ্বাস, প্রকৃত তদন্ত হলে রাজ্জাক যে নির্দোষ তা প্রমাণ হবে। প্রমাণ হবে যে কেউ তাকে ফাঁসিয়েছে।

রাজ্জাকের পরিবার কিংবা গ্রামের মানুষ যেটাই দাবি করুক না কেন প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিস জানতে পেরেছে যে সীমান্ত লাগোয়া বাড়ি হওয়ায় রাজ্জাক বাংলাদেশের সঙ্গে হুন্ডির  ব্যবসা করত। সেই সূত্রে তার বাড়িতে দেশ-বিদেশের মানুষ যাওয়া-আসা ছিল। পড়াশোনা চলাকালীন উভয় দেশের মধ্যে মানুষ পাচারের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েছিল রাজ্জাক। তাছাড়া সীমান্তে বিএসএফের কিংবা পুলিসেরর তাড়ায় অনেক সময় অপরাধীরা নিজেকে আড়াল করতে রাজ্জাকের ঘরে ঢুকে পড়ত। রাজ্জাক তাঁদের আশ্রয় দিত। কীসের বিনিময়ে রাজ্জাক থাকতে দিত তা নিয়ে অবশ্য পুলিস মুখ খোলেনি।

সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল গুজরাত পুলিস এই অপারেশন করেছে রাজ্য পুলিসকে জানিয়েই। রাজ্জাককে গ্রেফতার করার সময় গুজরাত পুলিসের সঙ্গে ছিল বসিরহাট থানার পুলিস। এখানেই প্রশ্ন, কোনও প্রমাণ ছাড়া ভিন রাজ্যে এসে গুজরাতে পুলিসের পক্ষে কি এতবড় অপারেশন করা সম্ভব?  তার থেকেও বড় বিষয় হল গুজরাত পুলিসকে অপারেশনে সাহায্য করেছে স্থানীয় থানা। তাই রাজ্জাকের কার্যকলাপ নিয়ে কিছু প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

আরও পড়ুন, '৭ দিনের মধ্যে সব জমা দিন', নারদাকাণ্ডে মুকুল রায়কে 'কড়া' নোটিস ইডির