WB Assembly Election 2021: Dinesh-কে স্বাগত: Dilip,অকৃতজ্ঞ, বললেন কুণাল

এনিয়ে বিজেপি নেতা অর্জুন সিং(Arjun Singh)বলেন, উনি স্পষ্ট বলেছিলেন, রেল আইসিইউতে চলে গিয়েছে। তাই ওঁকে রেলমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়

Edited By: সিকান্দর আবু জ়াফর | Updated By: Mar 6, 2021, 03:56 PM IST
WB Assembly Election 2021: Dinesh-কে স্বাগত: Dilip,অকৃতজ্ঞ, বললেন কুণাল

নিজস্ব প্রতিবেদন: দল ছেড়ে জেপি নাড্ডার হাত ধরে শনিবারই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদী। এনিয়ে খুশি বিজেপি শিবির। অন্যদিকে, দীনেশের বিরুদ্ধে সুর চড়ালেন কুণাল ঘোষ।

দীনেশ ত্রিবেদী BJP-তে যোগ দেওয়া নিয়ে রাজ্য বিজেপি সভাপতি Dilip Ghosh বলেন, সবাইকে স্বাগত। আজ থেকে আরও অনেকে বিজেপিতে যোগ দেবেন। এদের মধ্যে বিধায়ক-সাংসদও রয়েছেন। বিরোধী দলের যাঁরা নিজের দলে নিজেদের সুরক্ষিত মনে করছেন না, সেকরম সব নেতাকে আহ্বান করছি আপনারা আসুন। রাজ্য পরিবর্তনর জন্য সবাই লড়াই করছে, হাত মেলান।

আরও পড়ুন- কেন BJP-র প্রার্থীতালিকা প্রকাশে বিলম্ব, মুখ খুললেন Amit Malviya

রাজ্য WB Assembly Election 2021 এর মুখে দীনেশ ত্রিবেদী দল ছাড়ায় তাঁকে এক হাত নিলেন কুণাল ঘোষ। তিনি বলেন, দীনেশের অভিধানে নীতি নেই, আদর্শ নেই, কৃতজ্ঞতাও নেই। তাঁর আসনে অর্জুন সিং টিকিট চেয়েছিলেন। তাঁকে না দিদি দীনেশকে টিকিট দিয়েছিলেন। ভোটে তিনি পরাজিত হন। তার পরও তাঁকে রাজ্যসভার সদস্য করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই লোকটার মুখে নীতি আদর্শের কথা শুনবে তৃণমূল কংগ্রেস? তৃণমূলের দয়ায় যে মানুষটা লোকসভা, রাজ্যসভায় টিকিট পেয়েছিলেন তাঁর আর নীতি কী, আদর্শ কী, লজ্জাই বা কী! 

তৃণমূলে পরিবারের সেবা হয় বলে অভিযোগ তুলেছেন দীনেশ ত্রিবেদী। এনিয়ে কুণাল ঘোষ(Kunal Ghosh) বলেন, কৈলাশ বিজয়বর্গীয় ছেলে আকাশ  বিজয় বর্গীয়, মুকুল রায়ের ছেলে, এরা কারা? পরিবারতন্ত্র বলতে উনি কী বোঝাতে চাইছেন? যখন রেলমন্ত্রী হয়েছিলেন, সাংসদ হয়েছিলেন তখন তো উনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন। তখন মনে ছিল না?

আরও পড়ুন-WB assembly election 2021: বিদ্রোহের ভয়? পিছিয়ে যাচ্ছে বিজেপি'র প্রার্থীতালিকা প্রকাশ    

এনিয়ে বিজেপি নেতা অর্জুন সিং(Arjun Singh)বলেন, আগেই বলেছিলাম, উনি দলে এলে স্বাগত জানাব। কেন উনি ছাড়লেন তা নিয়ে অনেক কিছু বলা যায়। উনি স্পষ্ট বলেছিলেন, রেল আইসিইউতে চলে গিয়েছে। তাই ওঁকে রেলমন্ত্রীর পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এখন উনি বলছেন, তৃণমূলে কেউ নিজের কথা বলতে পারে না। একেবারে সঠিক কথা।