ফেলে দেওয়া প্লাস্টিক-থার্মোকল দিয়ে ছাদ-বাগান, তাক লাগাচ্ছেন নদিয়ার কম্পিউটর ব্যবসায়ী

বাজারে ব্যবহার হচ্ছে মারাত্মক রাসায়নিক সার যা শরীরের পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকারক। তাই বাজার থেকে সবজি না কিনে তিনি নিজের বাড়ির ছাদে লাগানোর পরিকল্পনা করেন। 

Updated By: Jan 7, 2020, 01:54 PM IST
ফেলে দেওয়া প্লাস্টিক-থার্মোকল দিয়ে ছাদ-বাগান, তাক লাগাচ্ছেন নদিয়ার কম্পিউটর ব্যবসায়ী

নিজস্ব প্রতিবেদন: পরিবেশকে রক্ষার্থে বরাবরই বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে প্লাস্টিক, থারমোকলের মতো একাধিক দ্রব্য। প্রতিনিয়ত দূষণ ছড়াচ্ছে এমনই কিছু বস্তু। আর সেই কথা মাথায় রেখে পরিবেশকে দূষণমুক্ত করতে শান্তিপুরের স্টেশন পাড়ার সুরোজ হেলা নিজের বাড়িতেই তৈরি করে ফেলেছেন একটি সুন্দর মনোরম ছাদ বাগান। তবে এই বাগানের বেশ কিছু অনন্য দিকও রয়েছে। প্লাস্টিক, থারমোকল এখন মাথা ব্যথার কারণ। প্লাস্টিক এবং থারমোকল আবর্জনা হয়ে দূষণ ছড়াচ্ছে পরিবেশে ছাদের উপর তৈরি করেছেন বিভিন্ন শাক সবজির বাগান। ফেলে দেওয়া জিনিসকে কাজে লাগিয়ে পরিবেশে অক্সিজেনের জোগান দেওয়াই মূলত তার লক্ষ্য। 

বছর ৪০-এর সুরাজ হেলা পেশায় কম্পিউটার ব্যবসায়ী। বাড়ি নদিয়া শান্তিপুর থানার স্টেশন পাড়া এলাকায়। পুথিগত লেখাপড়া সেভাবে তার শেখা হয়নি অথচ পরিবেশ সম্বন্ধে তার যথেষ্ট সচেতন তিনি। তার ছাদের উপরে উঠলেই দেখা যাবে, বিভিন্ন শীতকালীন শাকসবজি। ফুলকপি, বাঁধাকপি, কড়াইশুঁটি, ধনেপাতা, ছোলা শাক, পালং শাক ,আলু সহ একাধিক গাছ তিনি তাক লাগিয়ে দিয়েছেন সকলকে। 

আরও পড়ুন: বাঁকুড়া-বিনপুরের জঙ্গলে পাওয়া পায়ের ছাপ এক বাঘিনীর! নিশ্চিত করলেন PCCF

তিনি জানাচ্ছেন, মূলত প্লাস্টিক দূষণ থেকে পরিবেশকে বাঁচাতেই তার এমনটাই উদ্যোগ। সবজি উৎপাদনে যেখানে ব্যবহার হচ্ছে মারাত্মক রাসায়নিক সার যা শরীরের পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকারক। তাই বাজার থেকে সবজি না কিনে তিনি নিজের বাড়ির ছাদে লাগানোর পরিকল্পনা করেন। এক্ষেত্রে তিনি ফেলে দেওয়া প্লাস্টিক এবং মাছের থার্মোকলের পেটি কুড়িয়ে নিয়ে তাতে মাটি এবং জৈব সার দিয়ে ফসল ফলিয়েছেন। সার হিসাবে ব্যবহার করেছেন গোবরের সার, পাতা পচা এবং চায়ের পাতা। তাতেই ভীষণরকম সাফল্য পেয়েছেন তিনি নিজে। অনায়াসেই ফলিয়েছেন বিষমুক্ত শাকসবজি। ভবিষ্যতে আরও বেশি করে ফসল ফলিয়ে তাক লাগিয়ে দেবেন এমনটাই আশা করছেন তিনি ।