ভারতে বন্ধ হয়ে যেতে পারে হোয়াটসঅ্যাপ!

সরকার সোশ্যাল মিডিয়ার ওপরে বেশকিছু বিধিনিষেধ লাগু করতে চাইছে সরকার। এর মধ্যে একটি হল সোশ্যাল মিডিয়াগুলিকে তাদের ব্যবহারকারীদের মেসেজের উত্স জানাতে হবে

Updated: Feb 8, 2019, 03:42 PM IST
ভারতে বন্ধ হয়ে যেতে পারে হোয়াটসঅ্যাপ!

নিজস্ব প্রতিবেদন: ভারত থেকে ব্যবসা গোটাতে পারে হোয়াটসঅ্যাপ। কারণ নিরাপত্তা সংক্রান্ত কেন্দ্রের কয়েকটি নীতি।

হোয়াটসঅ্যাপ সহ সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে গুজব ও প্ররোচনা ঠেকাতে বেশকিছু নতুন নিয়ম লাগু করার কথা ভাবছে কেন্দ্র। সংস্থার আধিকারিক কার্ল উগ সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, সরকার সোশ্যাল মিডিয়ার ওপরে বেশকিছু বিধিনিষেধ লাগু করতে চাইছে সরকার। এর মধ্যে একটি হল সোশ্যাল মিডিয়াগুলিকে তাদের ব্যবহারকারীদের মেসেজের উত্স জানাতে হবে।

অর্থাত্ কেন্দ্রের বিধিনিষেধ যদি মেনে চলতে হয় তাহলে এদেশে হোয়াটসঅ্টিযাপের ব্যবসা করা কঠিন হতে পারে। সংবাদমাধ্যমের খবর, সেক্ষেত্রে এদেশে ব্যবসা বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্তও নিতে পারে সংস্থা।

আরও পড়ুন-রবার্ট বঢ়রার বিরুদ্ধে তদন্ত করুন, তবে রাফাল নিয়ে ওঠা প্রশ্নের জবাব দিন: রাহুল

উল্লেখ্য, গত বছর থেকে হোয়াটসঅ্যাপের ওপরে চাপ সৃষ্টি করছে কেন্দ্র। সরকারের দাবি, গত বছর দেশে ঘটা বেশকিছু গণপিটুনির ঘটনায় গুজব ছড়ানো হয়েছিল হোয়াটসঅ্যাপ থেকেই। এড়াও বেশকিছু প্ররোচনামূলক ভিডও ছড়ানো হচ্ছে। এদের নাগাল পাচ্ছে না সরকার। ফলে হোওয়াটসঅ্যাপ বার্তার উত্স জানতে চায় সরকার। এনিয়েই সমস্যা।

আরও পড়ুন-লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে বাম-কংগ্রেস জোটের সম্ভাবনা উসকে দিলেন সোমেন মিত্র

এদিকে, হোয়াটসঅ্যাপের ব্যবসার প্রধান হাতিয়ার হল এর গোপনীয়তা। এক্ষেত্রে তারা বেশি গুরুত্ব দেয় এন্ড টু এন্ড এনক্রিপশনের ওপরে। অর্থাত্ মেসেজ প্ররক ও প্রাপক ছাড়া আর কেউ তা দেখতে পারবে না। সংস্থা ইতিমধ্যেই দেশের অধিকাংশ রাজনৈতিক দলের কাছে তাদের নীতির কথা জানিয়ে দিয়েছে। অর্থাত্ কেন্দ্রের তরফে কোনও চাপ এলে দেশের ২০ কোটি ব্যবহারকারীর হোয়াটসঅ্যাপ বন্ধ হয়েও যাওয়ার সম্ভাবনাও অমূলক নয়।