ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে বাঁধাকপির চাষ!

আকাশে কি বাঁধাকপি ফলে? আলবাত ফলে। অনেক সাধ্যসাধনা করতে হয়েছে বটে। কিন্তু ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে অবশেষে বাঁধাকপির চাষ হল। আহা, কী টেস্ট, কী কালার। মুখে দিয়ে বলতেই হবে, বাহ্, বাঁধাকপি। না আছে মাটি। না আছে জল। তবুও দিব্যি চাষ হচ্ছে বাঁধাকপি। গোল, পুরুষ্টু। আহা, কী রং!

Updated By: Mar 11, 2017, 08:13 PM IST
ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে বাঁধাকপির চাষ!

ওয়েব ডেস্ক: আকাশে কি বাঁধাকপি ফলে? আলবাত ফলে। অনেক সাধ্যসাধনা করতে হয়েছে বটে। কিন্তু ইন্টারন্যাশনাল স্পেস স্টেশনে অবশেষে বাঁধাকপির চাষ হল। আহা, কী টেস্ট, কী কালার। মুখে দিয়ে বলতেই হবে, বাহ্, বাঁধাকপি। না আছে মাটি। না আছে জল। তবুও দিব্যি চাষ হচ্ছে বাঁধাকপি। গোল, পুরুষ্টু। আহা, কী রং!

চমকে উঠলেন? স্বাভাবিক। মহাকাশে আবার বাঁধাকপির চাষ হয় নাকি? হয় হয়। আলবাত হয়। চমকানোর তো আরও বাকি। একমাসের কঠোর পরিশ্রম। নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা। অবশেষে আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে বাঁধাকপি ফলিয়েছেন মার্কিন মহাকাশচারী। চিনা বাঁধাকপি। যেমন রং তেমন টেস্ট। তাক লাগিয়ে দিয়েছেন মহাকাশচারী পেগি হুইটসন।

শ্যুটিংয়ে গাড়ির ধাক্কায় জখম জিত্‌! দেখুন ভিডিও

মহাকাশের আলোয় অনেক সময়ই শস্যের টেস্ট নষ্ট হয়ে যায় বলে দাবি করেন মহাকাশচারীরা। হট সস, মধু অথবা সয়া সস মিশিয়ে টেস্ট আনতে হয়। কিন্তু এই চিনা বাঁধাকপির বিন্দাস টেস্ট। মুখে দিলেই আহা। চাষ করতে করতে আস্ত একটা স্পেস গার্ডেনই তৈরি করে ফেলেছেন মহাকাশচারীরা।

এর পর এক বিরল প্রজাতির ছোট্ট ফুল ফোটানোর চেষ্টা চলছে মহাকাশে। নামটি তার আরাবিডপসিস। গাছেরও তো প্রাণ আছে।এই পৃথিবীর বাইরে তারা কীভাবে মানিয়ে নিতে পারে, তারই পরীক্ষা চলছে। অনবরত। এর পর থেকে মহাকাশচারীরা যখন মহাকাশে পাড়ি দেবেন, তখন এখান থেকেই যাতে গাছগাছালি নিয়ে যাওয়া যায়, তারই চেষ্টা চলছে। এবার তাই শুধু বাঁধাকপিই নয়, মহাকাশে ফুলকপি, শিম, মটরশুঁটি, বিট, গাজরের চাষ হলেও আশ্চর্যের কিছু থাকবে না।