চুরির অপবাদে বাবা ও ছেলেকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ

চুরির অপবাদে দলীয় কার্যালয়ে ডেকে বাবা ও ছেলেকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ। বাসন্তীতে তৃণমূল কার্যালয়ে সালিশি সভা বসিয়ে অভিযুক্ত বাবা ও ছেলেকে ২৫ হাজার টাকা ফাইন করা হয়। অভিযোগ স্থানীয় ফুলমালঞ্চ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান আফতার মোল্লার বিরুদ্ধে। টাকা দিতে না পারায় দুজনকে লাঠি, ঝাঁটা দিয়ে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ।

Updated By: Aug 14, 2016, 09:05 PM IST
চুরির অপবাদে বাবা ও ছেলেকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ

ওয়েব ডেস্ক: চুরির অপবাদে দলীয় কার্যালয়ে ডেকে বাবা ও ছেলেকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ। বাসন্তীতে তৃণমূল কার্যালয়ে সালিশি সভা বসিয়ে অভিযুক্ত বাবা ও ছেলেকে ২৫ হাজার টাকা ফাইন করা হয়। অভিযোগ স্থানীয় ফুলমালঞ্চ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান আফতার মোল্লার বিরুদ্ধে। টাকা দিতে না পারায় দুজনকে লাঠি, ঝাঁটা দিয়ে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ।

লুকোছাপার কোনও ধার ধরা নেই। একেবারে সরাসরি। একেবারে দলীয় কার্যালয়ে সালিশি সভা বসাচ্ছেন তৃণমূল নেতা। সালিশির ফরমান না মানলে লাঠ্যষৌধির নিদান দিচ্ছেন। তিনি এলাকার দোর্দণ্ডপ্রতাপ তৃণমূল নেতা। আবার গ্রাম প্রঞ্চায়েতের প্রধান। তিনি আফতার মোল্লা। তাঁর নিদানে হাসপাতালে ভর্তি বাসন্তী থানার ছোট কলা হাজরা গ্রামের মইনুদ্দিন মোল্লা ও সইফুদ্দিন মোল্লা। দুজন সম্পর্কে বাবা ও ছেলে। এলাকায় দিন কয়েক আগে দুটি দোকানে চুরি হয়। পুলিস, আদালত নয়। সালিশি সভা নিদান দেয়, চোর মইনুদ্দিন মোল্লা ও সইফুদ্দিন মোল্লা।

তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে পঞ্চায়েত প্রধান আফতার মোল্লা চুরির শাস্তি হিসেবে মইনুদ্দিন মোল্লা ও সইফুদ্দিন মোল্লাকে ২৫ হাজার টাকা ফাইন করেন। টাকা দিতে না পারায় দুজনকে দলীয় কার্যালয়ে বেধড়ক মারধর করা হয়। গুরুতর জখম অবস্থায় মইনুদ্দিন মোল্লা ও সইফুদ্দিন মোল্লাকে ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে আফতার মোল্লাতো বটেই স্থানীয় কোনও তৃণমূল নেতা মুখ খুলতে চাননি।