পুজো নিয়ে নেতা-নেত্রী ইগোর লড়াইয়ে অবরুদ্ধ রাস্তা

পুজো নিয়ে নেতা-নেত্রী ইগোর লড়াইয়ে অবরুদ্ধ রাস্তা

জমি, সিন্ডিকেটের পর এবার দুর্গাপুজো নিয়েও গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব তৃণমূলের অন্দরে। দোকান ভাঙচুর থেকে মারধর, বাদ রইল না কিছুই। দুই নেতা-নেত্রীর ইগোর লড়াইয়ে অবরুদ্ধ হল রাস্তা। ভুগতে হল আমনাগরিকদের।

প্রকাশ্যে তৃণমূলের 'হেভিওয়েট' নেতাদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, পুলিস নির্বিকার প্রকাশ্যে তৃণমূলের 'হেভিওয়েট' নেতাদের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, পুলিস নির্বিকার

ফের প্রকাশ্যে তৃণমূল নেতা শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় এবং স্বরূপ বিশ্বাসের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। নিউ আলিপুরের সাহাপুরে শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের অনুগামী সৌমেন মালাকারকে ডেকে পাঠিয়ে মারধরের অভিযোগ উঠল স্বরূপ বিশ্বাসের লোকজনের বিরুদ্ধে। অভিযোগ, বাধা দিতে গেলে প্রহৃত হন সৌমেন মালাকারের আত্মীয়া অনিন্দিতা পাল ওরফে তানিয়া। সৌমেনের গলার হার ছিনিয়ে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ।   

নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে

প্রচারে যাওয়ার পথে নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ উঠল তৃণমূল নেতা শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে। বিধানসভায় তিনি শাসকদলের মুখ্য সচেতক। গতকাল তিনি লালবাতি লাগানো গাড়িতে চড়ে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার জয়নগরে প্রচারে যান বলে। বিরোধীদের অভিযোগ, নির্বাচনী প্রক্রিয়া চলাকালীন এভাবে লালবাতি লাগানো গাড়ির ব্যবহার সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ। কাজেই সেই গাড়ি ব্যবহার করে শাসক দলের মুখ্যসচেতক নির্বাচনী বিধিভঙ্গ করেছেন বলে তারা সরব হয়েছেন।

তৃণমূলে এখন সকলেই আড়চোখে সকলকে দেখে... তৃণমূলে এখন সকলেই আড়চোখে সকলকে দেখে...

তৃণমূল শিবির জুড়ে এখন অবিশ্বাসের ছায়া। কে যায়? কোথায় যায়? কেন যায়? নজরদারিতে ব্যস্ত তৃণমূলের শীর্ষনেতারা। ফোনে কারা কারা যোগাযোগ রাখছেন মুকুল রায়ের সঙ্গে?

শ্রমিক সংগঠনে এবার আরও কোণঠাসা দোলা সেন শ্রমিক সংগঠনে এবার আরও কোণঠাসা দোলা সেন

তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠন আইএনটিটিইউসিতে এবার আরও কোণঠাসা দোলা সেন। ভেঙে দেওয়া হল আইএনটিটিইউসির সব কমিটি। ঠিক হয়েছে, কারখানা বা প্রতিষ্ঠানপিছু এবার একটিই কমিটি থাকবে আইএনটিটিইউসির। যার রাশ থাকবে সুব্রত

ত্রাণের টাকা থেকে কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

ত্রাণের টাকা থেকেও কাটমানি চাওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। জড়িয়ে গেল কাউন্সিলর জুঁই বিশ্বাসের নাম। চারু মার্কেট থানার বিরুদ্ধে উঠল পুলিসি নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ।   

শোভনদেবকে নিগ্রহের ঘটনায় উদ্বিগ্ন রাজ্যপাল

শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কে নিগ্রহের ঘটনায় অস্বস্তি বাড়ল তৃণমূলের। নিগ্রহকাণ্ডে এবার মুখ খুললেন রাজ্যপাল। এই ঘটনায়কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তিনি। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এধরনের ঘটনা একেবারেই বাঞ্ছিত নয় বলেও মন্তব্য করেছেন রাজ্যপাল এম কে নারায়নণ।

দল নির্দেশ দিলে শোভনদেবের কাছে ক্ষমা চাইবেন মম্মথ

দল নির্দেশ দিলে তিনি ক্ষমা চাইতে প্রস্তুত। আজ একথা জানিয়ে দিলেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় নিগ্রহের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মন্মথ বিশ্বাস। কিন্তু, ঘটনার চারদিন কেটে গেলেও দল এখনও কেন সেই নির্দেশ পাঠালো না তা নিয়ে এবার প্রশ্ন উঠছে। অন্যদিকে, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের অনুগামীরা সোমবার কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবাদ মিছিলে সামিল হন।

মমতার বাড়ি গিয়েও ফোনেই কথা বললেন শোভনদেব

তৃণমূলেই থাকছেন, নাকি দল ছাড়ছেন ক্ষুব্ধ-অপমানিত শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়? শনিবারও স্পষ্ট হল না ছবিটা। এদিন দুপুরে বাড়িতে গেলেও শোভনদেবের সঙ্গে দেখা করেননি মুখ্যমন্ত্রী। তবে সামনাসামনি দেখা না হলেও টেলিফোনে কথা হয় দু'জনের। তার আগে বিধানসভায় সুব্রত মুখোপাধ্যায় ও পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে একদফা আলোচনা সারেন শোভনদেব। তৃণমূল সূত্রে খবর, সেই আলোচনার ফল ইতিবাচক। 

পার্থর ফোনে মাঝপথ থেকেই ফিরে গেলেন শোভন

তৃণমূলের দলীয় বৈঠক ঘিরে জোর নাটক। বিক্ষুদ্ধ শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কে বৈঠকে ডেকেও তাঁকে ফিরে যেতে বলা হল। তৃণমূল ভবনে বৈঠক চলাকালীন শোভনদেবকে ডেকে পাঠানো হয়। কিন্তু তারপরই পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ফোন পেয়ে মাঝপথ থেকে ফিরে যান শভনদেব বাবু। দলীয় অস্বস্তি এড়াতেই কী তড়িঘড়ি এই পদক্ষেপ? উঠছে প্রশ্ন।