করোনার জেরে ফের বন্ধ সিনেমাহল, উদ্বিগ্ন হল মালিকরা, চিন্তায় টলিউড

করোনার জেরে দর্শক নেই সিনেমাহলে,  লাভ হচ্ছে না হল মালিকদের। ছবির মুক্তিও পিছিয়ে দিচ্ছেন পরিচালকরা। ফলে চিন্তার ভাঁজ হল মালিকদের কপালে। বন্ধ হচ্ছে শহরের একাধিক সিঙ্গল স্ক্রিন, মাল্টিপ্লেক্স বন্ধ মঙ্গলবার থেকেই। উদ্বিগ্ন টলিপাড়াও।

করোনার জেরে ফের বন্ধ সিনেমাহল, উদ্বিগ্ন হল মালিকরা, চিন্তায় টলিউড

নিজস্ব প্রতিবেদন: রাজ্যে আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ, হু হু করে বাড়ছে সংক্রমণ। তারই প্রভাব এবার টলিউডে। ফের বন্ধ হচ্ছে সিনেমাহল। PVR সূত্রে খবর মঙ্গলবার থেকেই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে PVR এর সব হল। শুক্রবার থেকে বন্ধ হচ্ছে সিঙ্গল স্ক্রিনগুলো। কোনওভাবেই হল মালিকরা এই পরিষেবা চালিয়ে যেতে পারছেন না।

 

আরও পড়ুন: 'বাইরে থেকে নেতারা এসে মিটিং-মিছিল করছেন', 'রাজনীতিবিদ' খোঁচা Dev-র

ফের একবার করোনা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। পঞ্চাশ শতাংশ দর্শক নিয়ে চলছিল সিনেমা হল। মাস খানেক আগেই একশ শতাংশ দর্শক নিয়ে চলতে শুরু করেছিলেন। তারই মাঝে আবার করোনার হানা। যে পরিমাণ স্যানিটাইজ করতে হচ্ছে সিনেমাহল. যত কর্মীরা কাজ করছে, সেই তুলনায় লাভ হচ্ছে না হল মালিকদের। ছবির মুক্তিও পিছিয়ে দিচ্ছেন পরিচালকরা। ফলে চিন্তার ভাঁজ হল মালিকদের কপালে। বন্ধ হচ্ছে শহরের একাধিক সিঙ্গল স্ক্রিন, মাল্টিপ্লেক্স বন্ধ মঙ্গলবার থেকেই। উদ্বিগ্ন টলিপাড়াও।

জি ২৪ ঘণ্টার তরফ থেকে প্রিয়া সিনেমার কর্ণধার অরিজিৎ দত্তর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন- 'শুক্রবার থেকে বন্ধ করতে হচ্ছে প্রিয়া। কর্মীদের বেতন দিতে পারছিলাম না, সরকার থেকে কোনও সাহায্য পাই নি। আগামি ছয় মাসের জন্য বন্ধ থাকবে হল।' অন্যদিকে নবীনা সিনেমা হলের মালিক নবীন চোখানির মতে সেইরকম সিনেমাও মুক্তি পাচ্ছে না যা হলে দর্শক টানবে, আর সিনেমাহলের পরিচর্যায় প্রচুর খরচ, দর্শক আসছে না সেইভাবে ফলে লাভের মুখ দেখা যাচ্ছে না। এহেন পরিস্থিতিতে মানুষের কথা ভেবেই এই সিদ্ধান্ত। সরকারি গাইডলাইন না আসলেও তাই আমরা দায়িত্ব নিয়েই বন্ধ করতে বাধ্য হলাম।'

আরও পড়ুন: সারেগামাপা-য় প্রথম হয়েও মনে আনন্দ নেই, ট্রোলের জবাব দিলেন Arkadeep

এই সিদ্ধান্তে মন খারাপ সিনেমাপ্রেমীদের। মে মাসে মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল অক্ষয় কুমারের 'সূর্যবংশী', কঙ্গনার 'থালাইভি'-র মতো ছবি। পরিস্থিতি হাতের বাইরে যেতেই মুক্তি পিছিয়ে দেন প্রযোজকরা। অন্যদিকে টলিউডে মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল SVF প্রযোজিত বিরসা দাশগুপ্তর 'সাইকো' এবং WINDOWS প্রযোজিত শিবপ্রসাদ-নন্দিতার 'বেলাশুরু'। অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে গেল সব ছবির মুক্তি।