'সুশান্তকে যখন মিথ্যে মিটু-তে ফাঁসানো হয়, তখন কেন চুপ ছিলেন?

কঙ্গনাও সরব হন এর আগে 

Edited By: জয়িতা বসু | Updated By: Jul 21, 2020, 06:44 PM IST
'সুশান্তকে যখন মিথ্যে মিটু-তে ফাঁসানো হয়, তখন কেন চুপ ছিলেন?
ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদন : ​সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকে সবাই সরব হতে শুরু করেছেন কিন্তু অভিনেতাকে যখন মিথ্যে অভিযোগে ফাঁসানো হয়, তখন সবাই কোথায় ছিলেন! এবার এভাবেই প্রশ্ন তুললেন চিত্রনাট্যকার অপূর্ব আসরানি।

আরও পড়ুন  : নিজের জীবনকে কেন শেষ করে দিলেন সুশান্ত! কী বললেন বিদ্যা বালান

সম্প্রতি একটি ট্যুইট করেন অপূর্ব আসরানি। যেখানে তিনি জানান, সুশান্তকে দিনের পর দিন ধরে 'স্কার্ট চেজার' বলা হত। মিটু-র মিথ্যে অভিযোগে ফাঁসানো হয়। বলা হত সুশান্ত নাকি কাজের জায়গায় ঝামেলা তৈরি করেন। ওইসব অভিযোগ যখন উঠছিল, তখন সবাই চুপ করে ছিলেন। এরপরই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন সুশান্ত। অভিনেতার মৃত্যুর পর আবার তাঁকে মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত বলে দাগিয়ে দেওয়া হয়। সুশান্তের বিরুদ্ধে যখন মিটু -র মিথ্যে অভিযোগ করা হয়, তখন সবাই কেন চুপ করেছিলেন! কেন কথা বলেননি বলে প্রশ্ন তোলেন বলিউডে এই চিত্রনাট্যকার।

আরও পড়ুন  : সুশান্তের মৃত্যুর পর থেকে লাগাতার হুমকি, আক্রমণ, অপমান; ট্রোলারদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপের পথে করণ!

প্রসঙ্গত, দিল বেচারার শ্যুটিংয়ের সময় সুশান্ত নাকি সহঅভিনেত্রী সঞ্জনা সাঙ্ঘির শ্লীলতাহানি করেছেন বলে অভিযোগ তোলা হয়। যা নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করতে বাধ্য হন সুশান্ত। এবং সঞ্জনা পরে স্পষ্ট জানিয়ে দেন, সুশান্ত তাঁর সঙ্গে কোনও খারাপ ব্যবহার করেননি। এমনকী, ছবির পরিচালক মুকেশ ছাবড়াও সুশান্তের বিরুদ্ধে ওঠা শ্লীলতাহানির অভিযোগকে নস্যাত করে দেন। শোনা যায়, ওই ঘটনার পরই বিমর্ষ হয়ে পড়েন সুশান্ত।

 

এদিকে সুশান্তের মৃত্যুর পর তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা মিথ্যে মিটুর অভিযোগ নিয়ে সরব হন কঙ্গনা রানাউত। সঞ্জনা সাঙ্ঘির নাম করে ওই সময় সুশান্তকে মিথ্যে অভিযোগে ফাঁসানো হয় বলে অভিযোগে সরব হন কঙ্গনা।

প্রসঙ্গত সুশান্তের মৃত্যুর তদন্তে চলচ্চিত্র সমালোচক রাজীব মাসান্দকে মঙ্গলবার জিজ্ঞাসাবাদ করে ব্যান্দ্রা থানার পুলিস। ২০১৭  এবং ২০১৯ সালে  রাজীব সুসান্তের সিনেমাকে কম রেটিং দিয়ে তার সমালোচনা করেন বলে অভিযোগ। এমনকী, সুশান্তকে 'স্কার্ট চেজার' বলেও নাকি রাজীব কটাক্ষ করেন বলে অভিযোগ। যদিও রাজীব এখনও এ বিষয়ে পালটা কোনও মন্তব্য করেননি।