ভোটে তোয়াক্কা নেই ওঁদের, বেকারত্ব ভাগ করে নিতে ওদের দিন কাটে গাছতলায়

পঁয়তাল্লিশ ডিগ্রি গরমেও বাঁকুড়ায় ভোট প্রচারে ছুটে বেড়াচ্ছেন তারকা প্রার্থী বা ন`বারের সাংসদ। পার্লামেন্টের সেই দৌড়ে ওঁরা নেই। ওঁরা বেকার পার্লামেন্টের সদস্য। দিল্লি-দৌড়ের উত্তাপের তোয়াক্কা না করেই ওঁরা সময় কাটাচ্ছেন গাছতলার জমজমাট আড্ডায়।

Updated By: May 1, 2014, 11:59 PM IST

পঁয়তাল্লিশ ডিগ্রি গরমেও বাঁকুড়ায় ভোট প্রচারে ছুটে বেড়াচ্ছেন তারকা প্রার্থী বা ন`বারের সাংসদ। পার্লামেন্টের সেই দৌড়ে ওঁরা নেই। ওঁরা বেকার পার্লামেন্টের সদস্য। দিল্লি-দৌড়ের উত্তাপের তোয়াক্কা না করেই ওঁরা সময় কাটাচ্ছেন গাছতলার জমজমাট আড্ডায়।

ভোট প্রচারে সরগরম বাঁকুড়া। সংসদে যাওয়ার জমজমাট সেই লড়াইয়ের ময়দানে থমকে যেতে হবে এই পোস্টারে চোখ পড়লে। নামেই পরিষ্কার এই পার্লামেন্টের সকলেই বেকার। সদস্য সংখ্যা চল্লিশ। কেউ স্নাতক, কেউ স্নাতকোত্তরের পাঠ চুকিয়ে নাম লিখিয়েছেন পার্লামেন্টে। কথা বলতেই জানা গেল কেন তাঁরা সদস্য হয়েছেন বেকার পার্লামেন্টের।

বাঁশের মাচায় বসে বা ক্যারাম খেলে সময় কাটানো এই যুবকদের কিন্তু খুব একটা হেলদোল নেই সংসদের সদস্য বাছাই নিয়ে। তাদের একটাই দাবি বেকারদের জন্য কিছু করুক দিল্লির সাংসদেরা।

ভোট আসে ভোট যায়। কখনও সাংসদেরাও বদলে যান। আর এসবের মাঝেই নিজেদের যন্ত্রণা ভাগ করে নিতে যুবকেরা জড়ো হন বেকার পার্লামেন্টে।