চিন্তা বাড়াচ্ছে নিম্ন রক্তচাপ? চাপ না নিয়ে সমস্যা সামাল দিন অব্যর্থ ঘরোয়া উপায়ে

নিম্ন রক্তচাপের সমস্যায় চিকিৎসকের কাছে পৌঁছানোর আগে পর্যন্ত কোন কোন ঘরোয়া উপায়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যায়, তা জেনে নিন...

Edited By: সুদীপ দে | Updated By: Oct 2, 2020, 08:38 PM IST
চিন্তা বাড়াচ্ছে নিম্ন রক্তচাপ? চাপ না নিয়ে সমস্যা সামাল দিন অব্যর্থ ঘরোয়া উপায়ে
—প্রতীকী চিত্র।

নিজস্ব প্রতিবেদন: নিয়মিত কোনও ক্লিনিকে গিয়ে রক্তচাপ পরীক্ষা করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। কিন্তু রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখাটাও অত্যন্ত জরুরি। একজন সুস্থ স্বাভাবিক পূর্ণ বয়স্ক মানুষের সিস্টোলিক ও ডায়াস্টোলিক চাপের পরিমাপ হচ্ছে ১২০/৮০। এই পরিমাপটি বয়স, লিঙ্গ, শারীরিক অবস্থার প্রেক্ষিতে পরিবর্তিত হয়।

রক্তচাপের পরিমাপ যদি ১২০/৮০ থেকে উপরে থাকে, তাহলে উচ্চ রক্তচাপ, আর যদি নিচে থাকে তাহলে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যাকে নির্দেশ করে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) আধুনিক জীবনযাপনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এই মাপকাঠিকে ১৪০/৯০ পর্যন্ত স্বীকৃতি দিয়েছে। ‘হু’-র মতে, রক্তচাপ যদি ১১০/৬০-এর নীচে নেমে যায়, তা হলে লো ব্লাড প্রেসার বলে তাকে ধরে নিতে হবে।

পরিবর্তিত খাদ্যাভ্যাস, মানসিক উদ্বেগ, অতিরিক্ত পরিশ্রম, স্নায়বিক দুর্বলতা ইত্যাদি নানা কারণ রক্তচাপকে প্রভাবিত করে। আমাদের অনেকেরই ধারণা, উচ্চ রক্তচাপের চেয়ে নিম্ন রক্তচাপ কম ভয়ের। কিন্তু এ ধারণা ভুল। চিকিৎসকদের মতে, উচ্চ রক্তচাপের মতো নিম্ন রক্তচাপও হৃদযন্ত্রের উপর প্রভাব ফেলে।

রক্তচাপ কমে গেলে মস্তিষ্ক, কিডনি, হৃৎপিণ্ডে ঠিক ভাবে রক্ত চলাচল করতে পারে না। ফলে অজ্ঞান হয়ে যাওয়া, বুক ধড়ফড় করা, চোখে অন্ধকার দেখা, বমি বমি ভাব, শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা ইত্যাদি উপসর্গ দেখা দেয়। এমন হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। তবে নিম্ন রক্তচাপের সমস্যায় চিকিৎসকের পৌঁছানোর আগে পর্যন্ত সামাল দেওয়ার জন্য ঘরোয়া কী কী উপায় অবলম্ব করা উচিত, তা জেনে রাখা ভাল। আসুন জেনে নেওয়া যাক, হঠাৎ প্রেশার কমে গেলে কী করা উচিত।

১) চিকিৎসকদের মতে, এমন হলে প্রথমেই রোগীকে নুন-চিনির জল দিন। এক গ্লাস জলে ২-৩ চা চামচ চিনি ও এক চা চামচ নুন মেশান। নুনের সোডিয়াম ও চিনির শর্করা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। তবে ডায়াবিটিসের রোগী হলে শুধু নুন-জল খান।

২) নিম্ন রক্তচাপের সমস্যায় রোগীর ঘাড়ে, কানের লতির দু’পাশে ও চোখে-মুখে ঠান্ডা জলের ঝাপটা দিলে দ্রুত অনেকটাই সুস্থ হয়ে উঠবেন।

৩) ক্যাফিন আছে এমন পানীয় তাড়াতাড়ি রক্তচাপ বাড়িয়ে দিতে পারে। কফি প্রেশার বাড়াতে খুব কার্যকর। তাই নিম্ন রক্তচাপের সমস্যায় কড়া করে খফি খেতে পারলে দ্রুত উপকার পাওয়া যায়।

আরও পড়ুন: রক্তে সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে কাজে লাগান মেথির টোটকা! ফল পাবেন হাতেনাতে

৪) নিম্ন রক্তচাপের সমস্যায় যষ্টিমধু খুবই কার্যকর। যষ্টিমধু রক্তচাপের ভারসাম্যও বজায় রাখে। বাড়িতে যষ্টিমধু থাকলে এক কাপ জলে ১০০ গ্রামের মতো যষ্টিমধু মিশিয়ে রেখে দিন। ২-৩ ঘণ্টা পর জলটি খেতে দিন রোগীকে। উপকার পাবেন।

৫) শরীরে প্রোটিন কমলেও রক্তচাপের উপর তার প্রভাব পড়ে। দুধ ও ডিমে হাই প্রোটিন। তাই এমন হলে রোগীকে পথ্য হিসাবে দিন ডিমের কুসুম ও দুধ।