তাপস পালের কটূক্তি মামলার রায়ে সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দিল হাইকোর্ট, চলবে না আদালতের নজরদারি

কলকাতা হাইকোর্টে আজ তাপস পাল মামলার রায় দিলেন তৃতীয় বিচারপতি নিশীথা মাত্রে। এই ঘটনায় সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দিলেন তিনি। তবে আদালতের নজরদারি চলবে না এই তদন্তে। দুই বিচারপতির রায়কে পর্যবেক্ষণ করে সম্পূর্ণ নতুন রায় দিলেন নিশীথা মাত্রে।

Updated By: Sep 25, 2014, 03:45 PM IST
তাপস পালের কটূক্তি মামলার রায়ে সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দিল হাইকোর্ট, চলবে না আদালতের নজরদারি

কলকাতা: কলকাতা হাইকোর্টে আজ তাপস পাল মামলার রায় দিলেন তৃতীয় বিচারপতি নিশীথা মাত্রে। এই ঘটনায় সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দিলেন তিনি। তবে আদালতের নজরদারি চলবে না এই তদন্তে। দুই বিচারপতির রায়কে পর্যবেক্ষণ করে আংশিক কিছু পরিবর্তন ছাড়া বজায় রইল বিচারপতি দীপঙ্কর দত্তের রায়।

ডিভিশন বেঞ্চে মতভেদ হওয়ায় ওই মামলা যায় বিচারপতি নিশীথা মাত্রের সিঙ্গল বেঞ্চে। নিয়ম অনুযায়ী তৃতীয় বিচারপতি ডিভিশন বেঞ্চের কোনও একটি সিদ্ধান্তকে বেছে নিতে পারেন। তবে রেফারি বিচারপতি হিসেবে তিনি আদৌ কী  নতুন করে কোনওসিদ্ধান্ত নিতে পারেন ? শুনানির সময় এপ্রশ্ন নিজেই তোলেন বিচারপতি নিশীথা মাত্রে।

নদিয়ার নাকাশিপাড়ায় তৃণমূল সাংসদ তাপস পালের মন্তব্য প্রকাশ্যে আসার পরই সমালোচনার ঝড় ওঠে। তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে মামলা দায়ের হয় আদালতে। সিঙ্গল বেঞ্চ, ডিভিশন বেঞ্চ ঘুরেও নিষ্পত্তি না হওয়ায় মামলা গড়ায় তৃতীয় বিচারপতি ঘরে।উস্কানিমূলক এই মন্তব্যের জেরে ২৩ শে জুলাই  হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চে তৃণমূল সাংসদ তাপস পালের বিরুদ্ধে মামলার শুনানি শুরু হয়।  ২৮ শে জুলাই বিচারপতি দীপঙ্কর দত্ত তাপস পালের বিরুদ্ধে আদালতের নজরদারিতে সিআইডি তদন্তের নির্দেশ দেন। ৭২ ঘণ্টার মধ্যে পুলিসকে এফআইআর দায়ের করা নির্দেশ দেওয়া হয়।

হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে একদিন পরই বিচাপরতি গিরিশচন্দ্র গুপ্ত ও তপোব্রত চক্রবর্তীর  ডিভিশন বেঞ্চে আপিল করে রাজ্য। আপিল করেন তাপস পালও। পয়লা অগাস্ট ওই মামলার শুনানি শেষ হয়।

১৩ অগাষ্ট মামলার রায় ঘোষণা করতে গিয়ে দুই বিচারপতির মতপার্থক্য তৈরি হয়। বিচারপতি তপোব্রত চক্রবর্তী সিঙ্গলবেঞ্চের রায় বহাল রাখলেও সিআইডি তদন্তের নির্দেশ খারিজ করে দেন বিচাপরতি গিরিশচন্দ্র গুপ্ত।

মতপার্থক্য তৈরি হওয়ায় মামলা যায় তৃতীয় বিচারপতি নিশীথা মাত্রের ঘরে।  মামলা শুরুর পরই তাপস পালের বিরুদ্ধে এফআইআরের ওপর স্থগিতাদেশ দেন তিনি। তৃতীয় বিচারপতির ঘরে মামলা চলাকালীনই সরকারের তরফে জানানো হয়, সিআইডি তদন্তে তাদের কোনও আপত্তি নেই।  শুনানির সময় উস্কানিমূলক মন্তব্যের জন্য বিচারপতি নিশীথা মাত্রে  একাধিকবার কাঠগড়ায় তোলেন তাপস পালকে। পুলিস ও সরকারের ভূমিকা নিয়েও তীব্র সমালোচনা শোনা যায় বিচারপতির গলায়। তাপস পালকে সরকার আড়াল করছে বলেও প্রশ্ন তোলেন বিচারপতি।