'জাগো বাংলা'য় অনিল-কন্যার লেখা, 'অজন্তার কাজ মেনে নেওয়া যায় না', বললেন Surjyakanta

বাম নেতার মেয়ের পাশে দাঁড়ালেন Kunal Ghosh। 

Updated By: Aug 1, 2021, 05:08 PM IST
'জাগো বাংলা'য় অনিল-কন্যার লেখা, 'অজন্তার কাজ মেনে নেওয়া যায় না', বললেন Surjyakanta

নিজস্ব প্রতিবেদন: তৃণমূলের মুখপত্র 'জাগো বাংলা'য় প্রবাদপ্রতিম বাম নেতা অনিল বিশ্বাসের মেয়ে অজন্তা বিশ্বাসের (Ajanta Biswas) লেখা উত্তর সম্পাদকীয় প্রকাশ। এমনকী শেষ পর্যায়ের লেখায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) স্তুতি। গোটা ঘটনায় রাজ্য রাজনীতিতে জোর শোরগোল। অজন্তার (Ajanta Biswas) শাস্তির দাবিতে সরব দলেরই একাংশ। ইতিমধ্যে জমা পড়েছে বহু অভিযোগ। রবিবার অজন্তার কাজের নিন্দা করলেন সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র (Surjyakanta Mishra)। তবে বাম নেতার মেয়ের পাশে দাঁড়ালেন রাজ্য তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ (Kunal Ghosh)। 

এদিন অজন্তা বিশ্বাসের (Ajanta Biswas) সমালোচনা করেন সূর্যকান্ত মিশ্র। স্পষ্ট করে জানান, অজন্তা বিশ্বাসের (Ajanta Biswas) কারণ তৈরি হওয়া পরিস্থিতির উপর নজর রাখছে দল। সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক বলেন, 'বিষয়টা আমি শুনেছি। অজন্তা যা করেছে, তা কোনও ভাবেই ছোট করে দেখা যায় না। অজন্তা ইউনিটের সদস্য। যা পদক্ষেপ নেওয়ার আগে ইউনিট নেবে। তারপর কলকাতা জেলা কমিটি রয়েছে। তারপর আমরা। ওকে আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেওয়া হবে। তবে ও যা করেছে, তা কোনও ভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।' 

আরও পড়ুন: শিক্ষামন্ত্রী Bratya Basu-র বাড়ির সামনে SSC চাকরিপ্রার্থীদের বিক্ষোভ, তুমুল উত্তেজনা

আরও পড়ুন: Abhishek Banerjee: ১ দিনের সফর, সোমবার আগরতলা যাচ্ছেন অভিষেক

'বঙ্গ রাজনীতিতে নারীশক্তি'-এই শীর্ষক ওই উত্তর সম্পাদকীয়র শেষ পর্যায়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্য়োপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) প্রশংসা করেন অজন্তা। অগ্নিকন্যা, দিদি এবং ঘরের মেয়ে ইত্যাদি নানান বিশেষণে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সম্পর্কে ব্যবহার করেন তিনি। কার্যত যাকে বলে 'মমতা-স্তুতি'। এই নিয়েও অজন্তার সমালোচনা করেন সূর্যকান্ত মিশ্র। তিনি বলেন, 'যদি এমনটা বলে থাকে, তবে এরচেয়ে মূর্খতা হতে পারে না।' 

একদিকে যখন অজন্তার বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার ভাবনা-চিন্তা শুরু করেছে সিপিএম নেতৃত্ব। তখন অনিল-কন্যার পাশে দাঁড়িয়েছেন তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ Kunal Ghosh)। টুইটে কার্যত বাম নেতাদের একহাত নেন তিনি। লেখেন, "যারা প্রয়াত অনিল বিশ্বাসকে টেনে অজন্তাকে কুৎসিত আক্রমণ করছে, তারা মনে রাখুক একাধিক সিপিএম ও বাম নেতা একাধিক কারণে তৃণমূলনেত্রীর সঙ্গে কথা বলেছেন। তাঁদের একান্ত ব্যক্তিগত অনুরোধও নেত্রী রক্ষা করেছেন। সেগুলো লেখা রুচিবিরুদ্ধ। কিন্তু বাধ্য করবেন না।"

শনিবার থেকে যখন তাঁকে ঘিরে রে রে রব উঠেছে বাম শিবিরে, তখন একটি অডিয়ো বার্তা প্রকাশ করেছেন অজন্তা বিশ্বাস (Surjyakanta Mishra)। সেখানে তিনি বলেন, 'ইতিহাসের শিক্ষার্থী হিসেবে আমার গবেষণার অন্যতম বিষয় বঙ্গ নারী। বেশ কিছু দিন ধরে আমি এ বিষয়ে গবেষণা করে আসছি। এমনই একটি লেখা প্রাক স্বাধীনতা পর্বে অবিভক্ত বাংলা ও পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে নারীদের অংশগ্রহণ। ইতিহাসের দৃষ্টিকোণে রচিত এই লেখায় যেমন রয়েছেন স্বাধীনতা আন্দোলনে জড়িত নেত্রীরা, তেমনই এসেছেন জাতীয়তাবাদী নেত্রীদের কথাও।' অজন্তা যতই নিজের মতো সাপাই দিক, বিতর্ক যে এখনই থামছে না, তার আঁচ পাওয়া গেল রবিবার সূর্যকান্তের মন্তব্যে।