ইট মারলে পাটকেল খেতে হবে, বুদ্ধদেববাবুকে ডাকেননি কেন? প্রশ্ন দিলীপের

ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর উদ্বোধন করেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল।

Updated By: Feb 14, 2020, 12:02 AM IST
ইট মারলে পাটকেল খেতে হবে, বুদ্ধদেববাবুকে ডাকেননি কেন? প্রশ্ন দিলীপের

নিজস্ব প্রতিবেদন: ইট মারলে পাটকেল খেতে হবে। ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর উদ্বোধনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আমন্ত্রণ না জানানোয় কটাক্ষ করলেন দিলীপ ঘোষ। ২০০৯ সালে টালিগঞ্জ-গড়িয়াবাজার মেট্রো সম্প্রসারণের সূচনায় বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে আমন্ত্রণ করা হয়নি। সে কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। 

রাজ্যপালকে নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর কটাক্ষের জবাবে বৃহস্পতিবার দিলীপ ঘোষ বলেন,''কান্নাকাটি পার্থবাবুরা করছেন। মুখ্যমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ করা হয়নি বলে কেঁদে ভাসিয়ে দিচ্ছেন। যার অধিকার আছে তাকে ডাকা হচ্ছে না অথচ বুদ্ধদেববাবুকে কোনওদিন ডাকা হয়নি। এই দ্বিচারিতা কেন? আপনার বেলায় এক, বাকিদের আলাদা কেন? ওনাকে মেট্রো রেলের অনুষ্ঠানে কেন ডাকা হবে? সেখানে ঢুকতে চাইছেন কেন? ওনার অবাধ গতি হবে বাকি ঢুকতে দেওয়া হবে না।''

দিলীপবাবু আরও বলেন,''তৃণমূল যেটা করছে, সেটা অসৌজন্যের রাজনীতি। এই রাজনীতি জননী মমতা। উনি ইট মারলে পাটকেল তো খেতে হবে। গতকাল থেকে রেলের লোকেরা ধরার চেষ্টা করছে। উনি আমন্ত্রণ নেবেনও না আবার অভিযোগও করবেন।'' রাজ্য সরকারের বিভিন্ন কমিটিতে বিরোধী দলের বিধায়কদের ঠাঁই দেওয়া হয় না বলেও অভিযোগ করেছেন দিলীপ ঘোষ। 

এদিন ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর উদ্বোধন করেন রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো প্রকল্পের মডেল খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে আধিকারিকদের কাছ থেকে বুঝতে দেখা যায় রেলমন্ত্রীকে। স্টেশনও ঘুরে দেখেন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। তবে রাজ্যের তরফে কোনও প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে। ছিলেন না শাসকদলের কোনও নেতাও। এদিন রেলমন্ত্রী বলেন, "কলকাতা আসলে ভালো লাগে। বাবুল সারাক্ষণ এখানে আসার আমন্ত্রণ করে।  পশ্চিমবঙ্গে আসতে ভালো লাগে কারণ এটা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের রাজ্য।"

আরও পড়ুন- যুগের হাওয়ায় মন্দির কমিটিতে 'ধর্মনিরপেক্ষ ভক্ত'-এর সওয়াল সিপিএমের