আইনশৃঙ্খলা নিয়ে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর রোষে চার পুলিস সুপার

অপরাধ করে সীমান্ত পেরিয়ে  কীভাবে চম্পট দিচ্ছে তারা?  প্রশ্ন ক্ষুব্ধ মমতার।

Updated By: Dec 2, 2019, 09:27 PM IST
আইনশৃঙ্খলা নিয়ে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর রোষে চার পুলিস সুপার

নিজস্ব প্রতিবেদন : আইনশৃঙ্খলা নিয়ে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর রোষে চার পুলিস সুপার। ঝাড়খণ্ড, বিহার সীমানা দিয়ে লোক ঢুকলেও কেন থাকছে না খবর?  অপরাধ করে সীমান্ত পেরিয়ে  কীভাবে চম্পট দিচ্ছে তারা?  প্রশ্ন ক্ষুব্ধ মমতার।

সোমবার পুলিস কর্তাদের সঙ্গে নবান্নে বৈঠকে বসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বৈঠকে ছিলেন মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, পুলিস কমিশনার সহ বিভিন্ন জেলার পুলিস সুপার ও পুলিস কমিশনারেটের কমিশনাররা। বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রীর ক্ষোভের মুখে পড়েন চার জেলার এস পি।

এদিনের বৈঠকে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেন-
# নানা ধরনের পোস্ট থেকে সমস্যা তৈরি হচ্ছে। রেগুলার মনিটরিং দরকার। সোশ্যাল মিডিয়ায় নজরদারি বাড়াতে হবে।
# মিম নামের অর্গানাইজেশন সংখ্যালঘুদের ভুল বোঝাচ্ছে। এলাকায় এলাকায় টহলদারি বাড়াতে হবে। সোর্স বাড়াতে হবে।
# লোকাল থানার অফিসারদের কেউ কেউ রাজনৈতিক নেতাদের (ইঙ্গিত বিজেপি নেতাদের) সঙ্গে যোগসাজশ করছে, এসব চলবে না।
# ঝাড়খণ্ড, বিহার সীমান্ত দিয়ে লোকজন ঢুকে পড়ছে। এলাকায় অস্থিরতা তৈরি হচ্ছে। থানার কাছে খবর থাকছে না কেন? জানতে চান মমতা।
# বারবার বলেও বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকার পুলিস আইনশৃঙ্খলা ঠিকমতো রাখতে পারছেনা। বাংলাদেশ সীমানা লাগোয়া এলাকার গন্ডগোল লেগেই আছে। সীমানা পেরিয়ে দুষ্কৃতীরা এসে ক্রাইম করে চলে যাচ্ছে।
# থানায় থানায় সোর্স বাড়াতে হবে, সেক্ষেত্রে ফান্ডের সমস্যা হবে না।

আরও পড়ুন - রাজ্যজুড়ে ডেঙ্গির প্রকোপ! সরানো হল স্বাস্থ্য সচিব সঙ্ঘমিত্রা ঘোষকে, দায়িত্বে বিবেক কুমার