একুশের লক্ষ্যে রাজ্য বিজেপিতে ব্যাপক রদবদল, সম্পাদক সব্যসাচী, প্রোমোশন লকেটের, দায়িত্বে ভারতীও

দিলীপ গোষ্ঠী, মুকুল গোষ্ঠী, রাহুল গোষ্ঠী- রাজ্য বিজেপির অন্দরে সব অংশেরর মধ্যেই সমন্বয়ের চেষ্টা হয়েছে এই কমিটির মধ্য দিয়ে। S

Reported By: অঞ্জন রায় | Updated By: Jun 1, 2020, 05:26 PM IST
একুশের লক্ষ্যে রাজ্য বিজেপিতে ব্যাপক রদবদল, সম্পাদক সব্যসাচী, প্রোমোশন লকেটের, দায়িত্বে ভারতীও

নিজস্ব প্রতিবেদন : করোনা আতঙ্ক এখনও বহাল। করোনার জেরে স্থগিত হয়ে গিয়েছে পুরভোট। কবে পুরভোট হবে, সেসম্পর্কে এখনও কিছুই জানায়নি রাজ্য নির্বাচন কমিশন। তবে এরমধ্যেই একুশের বিধানসভা ভোটের ঘুঁটি সাজাতে শুরু করল বঙ্গ বিজেপি। দলে ব্যাপক সাংগঠনিক রদবদল করা হল। সম্পাদক হলেন বিধাননগরের প্রাক্তন মেয়র সব্যসাচী দত্ত সম্পাদক। আর অর্জুন সিংকে করা হয়েছে সহ সভাপতি।

প্রোমোশন হয়েছে লকেটেরও। দলের সাধারণ সম্পাদক হলেন লকেট চট্টোপাধ্যায়। পাশাপাশি দায়িত্ব বাড়ল সাংসদ সৌমিত্র খাঁ, বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পালেরও। তবে ডিমোশন হয়েছে প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের। উল্লেখযোগ্যভাবে সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে। তাঁর পরিবর্তে ২ জনকে নিয়ে আসা হয়েছে সাধারণ সম্পাদক পদে। অন্যদিকে, সহ সভাপতি করা হয়েছে ভারতী ঘোষকে। সহ-সভাপতি হিসেবে রাখা হয়েছে সিপিএম থেকে আসা মাহফুজা খাতুনকেও। তবে চন্দ্র বসুকে সহ সভাপতি পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আর খগেন মুর্মুকে করা হয়েছে ST মোর্চা সভাপতি। SC মোর্চা সভাপতি করা হয়েছে বিধায়ক দুলাল ভরকে।

একনজরে কে কোন পদ পেলেন

সম্পাদক:

তুষার মুখোপাধ্যায় 

তুষার কান্তি ঘোষ 

অরুণ হালদার 

বিবেক শংকর 

সব্যসাচী দত্ত 

তনুজা চক্রবর্তী 

ফাল্গুনী পাঠক 

সংঘামিত্রা চৌধুরি

সাধারণ সম্পাদক:

সায়ন্তন বসু

রথীন্দ্রনাথ বোস

সঞ্জয় সিংহ

লকেট চট্টোপাধ্যায়

জ্যোতির্ময় সিংহ মাহাতো 

যুব মোর্চা সভাপতি- সৌমিত্র খাঁ

মহিলা মোর্চা সভাপতি- অগ্নিমিত্রা পল

সহ সভাপতি:

বিশ্বপ্রিয় রায়চৌধুরী 

সুভাষ সরকার 

প্রতাপ বন্দ্যোপাধ্যায় 

দেবাশিষ মিত্র 

রাজকুমাল পাঠক 

জয়প্রকাশ মজুমদার

অনিন্দ্য বন্দ্যোপাধ্যায় (রাজু)

রিতেশ তিওয়ারি 

দীপেন প্রামাণিক 

অর্জুন সিং

ভারতী ঘোষ

মাফিজা খাতুন

প্রসঙ্গত, নতুন এই কমিটি কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব এবং রাজ্য নেতৃত্ব মিলে স্থির করেছে। দিলীপ গোষ্ঠী, মুকুল গোষ্ঠী, রাহুল গোষ্ঠী- রাজ্য বিজেপির অন্দরে সব অংশেরর মধ্যেই সমন্বয়ের চেষ্টা হয়েছে এই কমিটির মধ্য দিয়ে। লক্ষ্য একটাই ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচন। যদিও, এই কমিটি নিয়ে রাজ্য দফতরে বিক্ষোভ হতে পারে বলে ধারণা রাজ্য নেতৃত্বে একাংশের।

আরও পড়ুন, করোনার আবহের মধ্য়েই টানা ৪ বছর 'রেকর্ড' করল কলকাতা! 'আরামের গরম' কাটাল শহরবাসী