মাদার হাউসে হামলার ছক কষেছিল IS জঙ্গি মুসা, জেরায় এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানতে পেরেছে NIA

মাদার হাউসে হামলার ছক কষেছিল IS জঙ্গি মুসা। টার্গেট ছিল বিদেশিরা। মাদার হাউস দখল করে বিদেশিদের হত্যার ছক কষেছিল মুসা। ধৃত IS জঙ্গিকে জেরা করে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানতে পেরেছে NIA। চার্জশিটে তার উল্লেখও রয়েছে। তদন্তকারীদের দাবি, ঢাকার হোলে আর্টিজানের ধাঁচেই হামলার পরিকল্পনা ছিল।

Updated By: Dec 25, 2016, 08:32 PM IST
মাদার হাউসে হামলার ছক কষেছিল IS জঙ্গি মুসা, জেরায় এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানতে পেরেছে NIA

ওয়েব ডেস্ক: মাদার হাউসে হামলার ছক কষেছিল IS জঙ্গি মুসা। টার্গেট ছিল বিদেশিরা। মাদার হাউস দখল করে বিদেশিদের হত্যার ছক কষেছিল মুসা। ধৃত IS জঙ্গিকে জেরা করে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য জানতে পেরেছে NIA। চার্জশিটে তার উল্লেখও রয়েছে। তদন্তকারীদের দাবি, ঢাকার হোলে আর্টিজানের ধাঁচেই হামলার পরিকল্পনা ছিল।

গ্রেফতারের পর কেটে গেছে ৫ মাস। মুসাকে জেরা করে এখনও মিলছে নয়া তথ্য। এবার ফাঁস হল মাদার হাউসে নাশকতার ছক। হোলে আর্টিজানের ধাঁচে বিদেশিদের পণবন্দি করে খুন করা ছক ছিল মুসার।

থ্রিমা,টেলিগ্রাম এমন একাধিক অ্যাপসের মাধ্যমে IS-র ভারতীয় প্রধান সফি আরমারের সঙ্গে কথা হত মুসার। আর সেইসব চ্যাট হিস্ট্রি উদ্ধার করে  চক্ষু চড়কগাছ NIA তদন্তকারীদের। মুসা আরমারকে জানায়, IS-র সম্ভাব্য টার্গেট হতে পারে মাদার হাউস।

মুসা জানায়, মাদার হাউসের নিরাপত্তার যা হাল তাতে সহজেই অসংখ্য বিদেশিকে পণবন্দি করা সম্ভব। হামলার পর পালানোর রাস্তা হিসাবে শিয়ালদা স্টেশন ও পার্ক সাকার্সের নকশাও আরমারকে পাঠায় মুসা।

NIA তদন্তকারীরা বলছেন, মাদার হাউজে হামলার ছক কষ হলেও পরিকল্পনা একেবারেই প্রাথমিক স্তরে ছিল। তবে, মুসাকে ঠিক সময়ে গ্রেফতার করা সম্ভব না হলে সমস্যা হতে পারত। কারণ, পরিকল্পনার কথা আরমার ছাড়াও আরও অনেককেই জানায় মুসা। বাংলাদেশের নব্য জেএমবির মাথা আবু সুলেইমানের সঙ্গে আলোচনা হয় মুসার।

পরবর্তীতে হোলে আর্টিসান বেকারিতে ঠিক সেই কায়দাতেই হামলা হয়। এজন্য বাংলাদেশের গোয়েন্দারা মুসাকে জেরা করে। আরও কার কার সঙ্গে মুসা হামলার পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করে তা জানতে মুসাকে জেরা করে FBIও। NIA তদন্তকারীরা মনে করছেন, মুসাকে গ্রেফতারের ফলে নির্দিষ্ট একটি পরিকল্পনা ভেস্তে গেলেও, অন্যান্য পরিকল্পনা থাকতে পারে। গত শুক্রবার বিশেষ আদালতে মুসার বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা দেয় NIA। সেখানেই মাদাল হাউসে হামলার বিষয়টি জানানো হয়। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে গোটা বিষয়টি জানানো হয়। মাদার হাউসের নিরাপত্তা নিয়ে রাজ্য প্রশাসনকে সতর্ক করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। মাদার হাউসকে কড়া নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়েছে।