হিন্দু-মুসলিম বিভাজন উস্কে দিতে ৩৭০ বিলোপ, দাবি এসএফআইয়ের

বিবৃতিতে তারা লিখেছেন, এটা সংবিধান বিরোধী ও সম্পূর্ণ অবৈধ। যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো, গণতন্ত্র ও ভারতের আত্মার পরিপন্থী। এতে উত্তেজনা আরও বাড়বে। 

Updated By: Aug 6, 2019, 05:55 PM IST
হিন্দু-মুসলিম বিভাজন উস্কে দিতে ৩৭০ বিলোপ, দাবি এসএফআইয়ের

নিজস্ব প্রতিবেদন: জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা বিলোপের পর তোলপাড় গোটা দেশ। সিপিএমের পর মোদী সরকারের সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করল তাদের সংগঠন এসএফআই। 

৩৭০ ধারা বিলোপের তীব্র বিরোধিতা করে বিবৃতি দিয়ে তারা লিখেছে, 'জম্মু-কাশ্মীরকে বিশেষ রাজ্যের মর্যাদা দিয়েছিল ৩৭০ অনুচ্ছেদ। রাজ্যকে ভাগ করে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। এটা সংবিধান বিরোধী ও সম্পূর্ণ অবৈধ। যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো, গণতন্ত্র ও ভারতের আত্মার পরিপন্থী। এতে উত্তেজনা আরও বাড়বে। অবনতি হবে কাশ্মীরের পরিস্থিতির। এর পাশাপাশি এই সিদ্ধান্ত হিন্দু-মুসলিম বিভাজনের রাজনীতিকে উস্কে দেবে। গণতন্ত্রকামী, দেশপ্রেমী ও শান্তিপ্রিয় মানুষকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে সিপিএমের ছাত্র সংগঠন। 

উল্লেখ্য, সোশালে মিডিয়ায় ক্যাম্পেনের পাশাপাশি জম্মু কাশ্মীরের ছাত্র-ছাত্রীদের পাশে দাঁড়ানোর বার্তা দিয়েছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের এসএফআই ইউনিট। তাঁদের তরফে জানানো হয়েছে, কাশ্মীরি ছাত্র-ছাত্রীরা যেকোনও সমস্যায় যোগাযোগ করতে পারবেন তাঁদের সঙ্গে। কর্মসূচিতে সায় দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও। কোনও কাশ্মীরি ছাত্র-ছাত্রী হোষ্টেলে থাকতে চেয়ে আবেদন করলে তৎক্ষনাৎ তাঁদের ব্যবস্থা করা হবে। 

আরও পড়ুন: ফারুক-ওমর-মেহবুবরা জঙ্গি? কোথায় তাঁরা? কেন্দ্রের কাছে জবাব চাইলেন মমতা

এর পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ নিয়ে বিজেপি-তৃণমূল আঁতাঁতের অভিযোগ করেছে বাম শিবির। গতকাল প্রস্তাবের বিরোধিতায় রাজ্যসভার অধিবেশনকক্ষ থেকে ওয়াকআউট করে তৃণমূল। সেই প্রসঙ্গ তুলে বিজেপি-তৃণমূলের তলায় তলায় যোগ রয়েছে বলে অভিযোগ করেছে সিপিএম।

Tags: