বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান আছে? টিকিট কাটেননি? তাহলে বাজেটটা বেশি করুন!

নতুন বছরে বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান আছে? টিকিট এখনও কাটেননি? তাহলে বাজেটটা একটু বেশি করুন। সংরক্ষিত টিকিটে সুরক্ষা সেস বসানোর কথা ভাবছে রেল। বাড়তে পারে রেলভাড়া। বুকে বুলেটের স্বপ্ন। বাস্তবে নিরাপত্তা লবডঙ্গা। রেলের অস্থিসার কঙ্কাল ফাঁস করে দিয়েছে কানপুরের দুর্ঘটনা। তারপরেই সুরক্ষার ইস্যুটি নিয়ে ফের নাড়াচাড়া শুরু হয়েছে। করণীয় কী? দুর্ঘটনার পিছনে হিসেবে তিনটি কারণ খুঁজে পেয়েছে রেলমন্ত্রক। রেলের সিগন্যালিং ব্যবস্থা এখনও অত্যাধুনিক নয়। দেশের বিস্তীর্ণ এলাকায় রেলট্র্যাক বদলানো প্রয়োজন। প্রহরীবিহীন লেভেন ক্রসিংগুলি তুলে দেওয়া প্রয়োজন।সুরক্ষার পাশাপাশি, রেলের আয় ও গতি বাড়াতেও প্রয়োজন সংস্কার। পণ্য পরিবহণের মাধ্যমে আয় বাড়াতে উদ্যোগী রেলমন্ত্রক। ওয়াগনের বহন ক্ষমতা ২৫ টন অ্যাক্সল লোড করাই লক্ষ্য।বাড়তি ওজন নেওয়ার জন্য ট্র্যাকগুলি বদলানো প্রয়োজন ।দূরপাল্লার ট্রেনগুলির গতি বাড়ানোর সিদ্ধান্তও হয়েছে। রেলের গতি বাড়াতে ট্র্যাক বদল করা খুব জরুরি ।গতি বাড়াতে তুলে দিতে হবে প্রহরী বিহীন লেভেল ক্রসিং। লেভেল ক্রসিংয়ের জায়গায় ফ্লাইওভার বা আন্ডারপাস করতে হবে। এই বিশাল কর্মকাণ্ড করতে প্রয়োজন প্রচুর টাকা। কোথা থেকে আসবে সেই টাকা।

Updated By: Dec 11, 2016, 06:33 PM IST
বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান আছে? টিকিট কাটেননি? তাহলে বাজেটটা বেশি করুন!

ওয়েব ডেস্ক: নতুন বছরে বেড়াতে যাওয়ার প্ল্যান আছে? টিকিট এখনও কাটেননি? তাহলে বাজেটটা একটু বেশি করুন। সংরক্ষিত টিকিটে সুরক্ষা সেস বসানোর কথা ভাবছে রেল। বাড়তে পারে রেলভাড়া। বুকে বুলেটের স্বপ্ন। বাস্তবে নিরাপত্তা লবডঙ্গা। রেলের অস্থিসার কঙ্কাল ফাঁস করে দিয়েছে কানপুরের দুর্ঘটনা। তারপরেই সুরক্ষার ইস্যুটি নিয়ে ফের নাড়াচাড়া শুরু হয়েছে। করণীয় কী? দুর্ঘটনার পিছনে হিসেবে তিনটি কারণ খুঁজে পেয়েছে রেলমন্ত্রক। রেলের সিগন্যালিং ব্যবস্থা এখনও অত্যাধুনিক নয়। দেশের বিস্তীর্ণ এলাকায় রেলট্র্যাক বদলানো প্রয়োজন। প্রহরীবিহীন লেভেন ক্রসিংগুলি তুলে দেওয়া প্রয়োজন।সুরক্ষার পাশাপাশি, রেলের আয় ও গতি বাড়াতেও প্রয়োজন সংস্কার। পণ্য পরিবহণের মাধ্যমে আয় বাড়াতে উদ্যোগী রেলমন্ত্রক। ওয়াগনের বহন ক্ষমতা ২৫ টন অ্যাক্সল লোড করাই লক্ষ্য।বাড়তি ওজন নেওয়ার জন্য ট্র্যাকগুলি বদলানো প্রয়োজন ।দূরপাল্লার ট্রেনগুলির গতি বাড়ানোর সিদ্ধান্তও হয়েছে। রেলের গতি বাড়াতে ট্র্যাক বদল করা খুব জরুরি ।গতি বাড়াতে তুলে দিতে হবে প্রহরী বিহীন লেভেল ক্রসিং। লেভেল ক্রসিংয়ের জায়গায় ফ্লাইওভার বা আন্ডারপাস করতে হবে। এই বিশাল কর্মকাণ্ড করতে প্রয়োজন প্রচুর টাকা। কোথা থেকে আসবে সেই টাকা।

আরও পড়ুন বাড়ির বাথরুমে পাওয়া গেল টাকার খনি

কয়েকদিন আগেই অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলিকে চিঠি লেখেন রেলমন্ত্রী সুরেশ প্রভু। রাষ্ট্রীয় রেল সুরক্ষা কোষে ১ লক্ষ ১৯ হাজার ১৮৩ কোটি টাকা অনুদান চান রেলমন্ত্রী।অর্থমন্ত্রক জানায় আবেদন করা অর্থের ২৫% দিতে তারা রাজি, বাকিটা রেলকে জোগাড় করতে হবে। এরপরেই রাতের ঘুম উড়েছে রেলমন্ত্রীর। টাকা আসবে কোথা থেকে। ভাবনায় ভাসছে সংরক্ষিত টিকিটে সুরক্ষা সেস লাগানোর বিষয়টি। কিন্তু, রেলমন্ত্রী নিজেই সেস লাগাতে অনাগ্রহী। কয়েকমাস আগেই উচ্চশ্রেণির রেল টিকিটের ভাড়া বেশ খানিকটা বাড়িয়েছে। AC ফার্সটক্লাস ও AC টু-টিয়ারের ভাড়া এখনই সস্তার বিমানের ইকনমি ক্লাসের কাছাকাছি ।স্লিপার, সেকেন্ড ক্লাস এবং AC থ্রি-টিয়ারে সুরক্ষা সেস বসানোর কথা ভাবা হচ্ছে। উচ্চশ্রেণির টিকিটেও আংশিক সুরক্ষা সেস বসানোর কথা ভাবছে রেল ।বিষয়টি এখনও ভাবনার স্তরে। তবে এই ভাবনার ভারও নেহাত্‍ কম নয়। টিকিটে সেস বসালে তার রাজনৈতিক গুণাগার দিতে হতে পারে। ভোটবাজারে এতবড় ইস্যু ছেড়ে দেবে না বিরোধীরাও।

আরও পড়ুন  টাকার অভাবে আগে মেয়ের বিয়ে ভেস্তে যেত এখন পাত্রপক্ষও নাকাল!