অখিলেশের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকছেন কারাট

উত্তরপ্রদেশের ভাবী মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেন সিপিআইএমের সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাট সহ অন্যান্য বাম নেতৃত্ব। মঙ্গলবার সিপিআইএমের কেন্দ্রীয় কার্যালয় একে গোপালন ভবনে গিয়ে প্রকাশ কারাট সহ সিপিআইএম নেতাদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানান মুলায়ম সিং যাদব।

Updated By: Mar 13, 2012, 01:42 PM IST

উত্তরপ্রদেশের ভাবী মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারেন সিপিআইএমের সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাট সহ অন্যান্য বাম নেতৃত্ব। মঙ্গলবার সিপিআইএমের কেন্দ্রীয় কার্যালয় একে গোপালন ভবনে গিয়ে প্রকাশ কারাট সহ সিপিআইএম নেতাদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার জন্য আমন্ত্রণ জানান মুলায়ম সিং যাদব। দুই নেতার মধ্যে আধ ঘণ্টা বৈঠক হয়েছে। একে সৌজন্য সাক্ষাত্‍ বলেই জানিয়েছেন দুজনেই। তবে এই দুই নেতার সাক্ষাত্‌ নিয়ে জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে বিভিন্ন মহলে। সোমবারই অখিলেশ যাদব মিডিয়াকে জানিয়েছিলেন, তৃতীয় ফ্রন্টের চিন্তাভাবনা খারাপ নয়। যদিও মঙ্গলবার তিনি বলেন, ``কেন্দ্রের বর্তমান সরকার পড়বে না।`` অতএব, রাজনৈতিক মহলের মতে তৃতীয় ফ্রন্টের বিষয়টিকে একেবারে উড়িয়ে দিচ্ছে না সমাজবাদী পার্টি।
সম্প্রতি ৫ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের পর অনেকটাই কোণঠাসা কংগ্রেস। ভালো ফল করেনি বিরোধী বিজেপিও। সাংগঠনিক ক্ষেত্রেও এই দুই দলের দুর্বলতা প্রকাশ্যে। সেক্ষেত্রে, সংসদের চলতি অধিবেশনে আঞ্চলিক দলগুলি মূলত দুর্নীতি এবং মূল্যবৃদ্ধির প্রশ্নে সরকার বিরোধিতায় সরব হবে বলে মনে করা হচ্ছে। এই বিরোধিতার মুখে সরকার যদি আর্থিক সংস্কারমুখী বাজেট পেশ করে, তবে তা সংসদে পাস হওয়ার সম্ভবনা নিয়েও সংশয় দেখা দেবে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে বাম, স`পার মতন বিরোধীদের অবস্থানও।
এছাড়াও, ২০১৪ সালের লোকসভায় কংগ্রেসের নেতৃত্বে ইউপিএ এবং বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ-এর সমান্তরাল একটি জোট উঠে আসার ক্ষেত্র যে প্রস্তুত এব্যাপারে নিশ্চিত রাজনৈতিক মহল। উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনে সমাজবাদী পার্টির ভালো ফলের পর, তৃতীয় বিকল্প গড়ার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে মুলায়মের দল। তবে তৃতীয় বিকল্প জোট তৈরি হলে, তার রাশ কোন দলের হাতে থাকবে, সেই প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। বাম গণতান্ত্রিক জোটের তোড়জোর ইতিমধ্যেই শুরু করে দিয়েছেন কারাট। তাই কারাট-মুলায়মের বৈঠক যথেষ্টই তাত্‍পর্যপূর্ণ বলে মনে করছে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।