'পাক অধিকৃত কাশ্মীর, গিলগিট আর বালোচিস্তানকে এক করেই ছাড়ব আমরা'!

স্বাধীন ভারতের প্রথম সামরিক ইভেন্টের স্মরণে পদাতিক দিবস পালন করা হয়। ভারতীয় সেনাবাহিনী কাশ্মীর উপত্যকায় ২৭ অক্টোবর, ১৯৪৭-এ ভারতীয় মাটিতে প্রথম বহিরাগত আক্রমণ প্রতিহত করে। শিখ রেজিমেন্টের প্রথম ব্যাটেলিয়ান এই জয় এনে দেয়।

Updated By: Oct 27, 2022, 04:07 PM IST
'পাক অধিকৃত কাশ্মীর, গিলগিট আর বালোচিস্তানকে এক করেই ছাড়ব আমরা'!

জি ২৪ ঘণ্টা ডিজিটাল ব্যুরো: প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং বৃহস্পতিবার বদগামে ভারতীয় সেনাবাহিনী আয়োজিত ৭৬ তম পদাতিক দিবসে 'শৌর্য দিবস' অনুষ্ঠানে যোগ দেন। জম্মু ও কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট গভর্নর মনোজ সিনহাও এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। 'শৌর্য দিবস' অনুষ্ঠানে ভাষণ দিতে গিয়ে রাজনাথ সিং বলেন, ‘আমাদের সংকল্প তখনই পূর্ণ হবে যখন ভারত গিলগিট বাল্টিস্তান সহ তার পুরো জম্মু ও কাশ্মীর ফিরে পাবে’। তিনি সেই জায়গা থেকে ভাষণ দিয়েছিলেন যেখানে ভারতীয় সেনাবাহিনী তাদের প্রথম যুদ্ধ করেছিল এবং জম্মু ও কাশ্মীর থেকে কাবালি অনুপ্রবেশকারীদের তাড়িয়ে দেয়। সিং বলেন, ‘আমি সমস্ত শহীদদের সামনে মাথা নত করছি, যারা হানাদারদের নৃশংস আক্রমণ থেকে এই দেশকে মুক্ত করতে তাদের জীবন উৎসর্গ করেছিল’।

তিনি বলেন, ‘ভারত ভাগ হওয়ার পরপরই পাকিস্তান তার আসল রং দেখিয়েছে। আমরা কল্পনাও করিনি যে পাকিস্তান এত নিচে নেমে জম্মু ও কাশ্মীর আক্রমণ করবে’।

রাজনাথ সিং পাক অধিকৃত কাশ্মীরের জনগণের বিরুদ্ধে নৃশংস অত্যাচার চালানোর জন্য পাকিস্তানের নিন্দা করেন এবং বলেছিলেন যে তাদের 'এর ফল ভোগ করতে হবে'। পাকিস্তান-অধিকৃত কাশ্মীর (পিওকে) পুনরুদ্ধার করার ইঙ্গিত দিয়ে মন্ত্রী বলেন, দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে সামগ্রিক উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জিত হবে জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ ‘গিলগিট এবং বাল্টিস্তানে পৌঁছানোর পরে’।

'শৌর্য দিবস' অনুষ্ঠানে ভাষণ দিতে গিয়ে রাজনাথ সিং বলেন, ‘আমরা সবেমাত্র জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখে আমাদের উন্নয়নের যাত্রা শুরু করেছি। আমরা যখন গিলগিট এবং বাল্টিস্তানে পৌঁছব তখন আমরা আমাদের লক্ষ্য অর্জন হবে’।

স্বাধীন ভারতের প্রথম সামরিক ইভেন্টের স্মরণে পদাতিক দিবস পালন করা হয়। ভারতীয় সেনাবাহিনী কাশ্মীর উপত্যকায় ২৭ অক্টোবর, ১৯৪৭-এ ভারতীয় মাটিতে প্রথম বহিরাগত আক্রমণ প্রতিহত করে। শিখ রেজিমেন্টের প্রথম ব্যাটেলিয়ান এই জয় এনে দেয়।

জম্মু ও কাশ্মীরের বিধানসভা নির্বাচনের আগে, রাজনাথ আঞ্চলিক দলগুলিকে কটাক্ষ করেন। তিনি বলেন ‘এখানে কিছু নেতার আত্মকেন্দ্রিক রাজনীতির কারণে, জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণ কেন্দ্রীয় সরকারের দেওয়া সমস্ত সুবিধা পায়নি’।

আরও পড়ুন: ভয়ংকর ভিডিয়ো! গাড়ির তলায় স্ত্রীকে পিষে মেরে ফেলার চেষ্টা পরিচালকের

তিনি আরও বলেন, ‘সন্ত্রাসবাদীরা জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের উপর সন্ত্রাস করতে ধর্ম এবং কাশ্মীরিয়াতের নাম ব্যবহার করেছিল এবং যখন তারা মানুষকে হত্যা করেছিল, তখন তারা ধর্ম দেখেনি’।

রাজনাথ বলেন, ‘জম্মু ও কাশ্মীরে যখন বাহিনী সন্ত্রাসবাদী এবং তাদের সহযোগীদের আক্রমণ করে, তখন দেশের কিছু তথাকথিত মানবাধিকার কর্মীরা কাঁদতে শুরু করে এবং যখন এই সন্ত্রাসবাদীরা আমাদের বাহিনীকে আক্রমণ করে তখন আমি জানি না সমস্ত কর্মীরা কোথায় হারিয়ে যায়। নব্বই এর দশকের শুরুর দিকে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের নির্মূল করার চেষ্টার মাধ্যমে জম্মু ও কাশ্মীর কালো যুগের সাক্ষী হয়েছে’।

(Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App)