হার্দিক ও রাহুলের উপর থেকে নির্বাসন তুলে নিল বিসিসিআই

হার্দিক পান্ডিয়া ও লোকেশ রাহুলের উপর থেকে নির্বাসন তুলে নিল ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড। বৃহস্পতিবার মেল করে বিসিসিআই জানিয়েছে, হার্দিক ও রাহুল-দুই ক্রিকেটারের ওপর থেকেই নির্বাসন তুলে নেওয়া হয়েছে। বিসিসিআই ওই মেল-এ জানিয়েছে, ১১.০১.২০১৯ হার্দিক ও রাহুলের উপর যে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল, তা অবিলম্বে প্রত্যাহার করা হল।

Updated By: Jan 24, 2019, 06:46 PM IST
হার্দিক ও রাহুলের উপর থেকে নির্বাসন তুলে নিল বিসিসিআই

নিজস্ব প্রতিবেদন: ১৩ সংখ্যাটা এমনিতে অপয়া!  বিশ্বের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ ১৩-কে ‘আনলাকি’ হিসেবেই মানে। তবে এই সংখ্যাটাই যেন ভাগ্য ফিরিয়ে দিল হার্দিক ও রাহুলের। নির্বাসনের ১৩ দিনের মাথায়-ই উঠে গেল নির্বাসন। বিসিসিআই মেল করে জানিয়ে দিল, হার্দিক ও রাহুল-দুই ক্রিকেটারের ওপর থেকেই নির্বাসন তুলে নেওয়া হচ্ছে। বিসিসিআই ওই মেল-এ জানিয়েছে, ১১.০১.২০১৯ হার্দিক ও রাহুলের উপর যে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল, তা অবিলম্বে প্রত্যাহার করা হল।

আরও পড়ুন- বর্ণবিদ্বেষী মন্তব্যের জন্য এবার ক্ষমা চাইলেন পাক অধিনায়ক

বিসিসিআইয়ের এই সিদ্ধান্তের পর এটা চোখ বন্ধ করেই লেখা যায়, কেরিয়ার নিয়ে অনিশ্চয়তার যে চাঁদোয়া এতদিন হার্দিক ও রাহুলের মাথায় ছিল তা সরে গেল। আরও সহজ করে বললে, হার্দিক ও রাহুলের পাশেই দাঁড়াল বিসিসিআই।

প্রসঙ্গত, ‘হার্দিক বিতর্কে’র সূত্রপাত হয়েছিল প্রযোজক তথা চিত্র পরিচালক করণ জোহরের টেলিভিশন শো  কফি উইথ করণ-এ। সেখানে এমন মন্তব্য করে বসেন হার্দিক, যা শোনার পর তাঁর উপর অনেকেই ‘বর্ণবিদ্বেষ ও মহিলাদের প্রতি অসম্মান’ প্রদর্শনের মতো গুরুতর অভিযোগ আনেন। কাঠগড়ায় দাঁড় করানো হয় লোকেশ রাহুলকেও। বিতর্ক এমন জায়গায় পৌঁছে যায়, যে অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফেরানো হয় দুই ক্রিকেটারকেই। পরে হার্দিক ও রাহুল-দুই ক্রিকেটারের কাছেই জবাবদিহি চেয়ে পাঠায় ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড। সেখানে নিঃশর্ত ক্ষমাও চান তাঁরা।

আরও পড়ুন- পান্ডিয়া-রাহুল বিশ্বকাপ দলে না থাকলে কি প্রভাব পড়বে? গম্ভীর মত গৌতমের

তবে এতেও বরফ গলেনি। বরং এই ইস্যুতে আড়াআড়ি ভাগ হয়ে যায় বোর্ড। একদল হার্দিক ও রাহুলের কড়া শাস্তির পক্ষে সওয়াল করে।  এবং অন্যপক্ষ শাস্তি শিথিল করে তাঁদের পুনরায় ক্রিকেট মাঠে ফিরিয়ে আনার  কথা বলে। প্রাক্তন ক্রিকেটারদের অনেকেও এই ইস্যুতে হার্দিক ও রাহুলকে সংশোধিত হওয়ার সুযোগ দেওয়ার পক্ষে মত প্রকাশ করে।

অবশেষে সেটাই হল। নির্বাসন তুলে দিয়ে বিসিসিআই বুঝিয়ে দিল, তারা হার্দিক ও রাহুলের কেরিয়ার শেষ করে দেওয়ার পক্ষে নয়। বরং তারা দুই প্রতিভাবান ক্রিকেটারকে  সংশোধিত হওয়ার সুযোগ দেওয়ার পক্ষেই।

তবে হার্দিক ও রাহুলের উপর থেকে ব্যান উঠে গেলেও তাঁরা যে একেবারে স্বস্তিতে, তা হলফ করে বলা যাচ্ছে না। কারণ, বিসিসিআইয়ের তরফে জানানো হয়েছে, এই দুই ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে বোর্ডের সংবিধানের ৪১(৬) ধারা অনুযায়ী তদন্ত হবে। যেহেতু শীর্ষ আদালত এখনও পর্যন্ত এই তদন্তের জন্য কোনও অম্বুডসম্যান নিয়োগ করেনি তাই বোর্ডের সংবিধান মেনেই তাঁদের উপর থেকে যাবতীয় নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হল। এখন অনেকেরই প্রশ্ন, তাহলে কি এই দুই ক্রিকেটারকে নিউ জিল্যান্ড সফরে পাঠানো হবে? ওয়াকিফহাল মহল মনে করছে, নির্বাসন উঠে যাওয়ায় হার্দিক ও রাহুলের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরা নিয়ে আর কোনও সংশয় নেই। তবে তাঁদের এখনই দলে সামিল করা হবে কি না, তা নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবে ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডই।