হাতের উল্কিতে চেগুয়েভেরা, বাঁ পায়ে কাস্ত্রোর ছবি, মারাদোনা যেন তৃতীয় বিশ্বের প্রতিনিধি: শমীক লাহিড়ি

ফিদেলের মৃত্যুদিবসেই প্রয়াত হলেন মারাদোনা, একেবারেই অপ্রত্যাশিত। এ একধরনের সমাপতনও বলা যায়, আবার প্রাণের টান না মনের টান বলব জানি না।

Updated By: Nov 26, 2020, 03:57 AM IST
হাতের উল্কিতে চেগুয়েভেরা, বাঁ পায়ে কাস্ত্রোর ছবি, মারাদোনা যেন তৃতীয় বিশ্বের প্রতিনিধি: শমীক লাহিড়ি
ফাইল ছবি

মারাদোনা যে শুধুমাত্র ফুটবল  মাঠের জাদুকর ছিলেন, তা নয়। তিনি ফুটবল মাঠেও প্রতিবাদী এক চরিত্র। তিনি ফিফাকেও ভয় পান নি, তিনি নিজের দেশের ফেডারেশনকেও ভয় পান নি। যা ন্যায্য মনে করেছেন, তাই করেছেন। সমাজের ক্ষেত্রেও তিনি আসলে তৃতীয় দুনিয়ার প্রতিনিধি। তাঁর বাহুতে চেগুয়েভেরার উল্কি। আর বাঁ পায়ে সযত্নে এঁকে রেখেছেন ফিদেল কাস্ত্রোর ছবি। আমাকে নিজে তিনি দেখিয়েছিলেন। হুগো সাভেজ তাঁর প্রাণের বন্ধু।

কলকাতায় আসার সময়ে আমি তাঁকে জানাই, কলকাতায় ফিদেলের বয়সী এক বাম নেতা আছেন, তাঁর নাম জ্যোতি বসু। তিনিও ফিদেলের মতই এক অননুকরণীয় চরিত্র। শুনেই মারাদোনা বলেছিলেন, 'আমি ওঁর সঙ্গে দেখা করতে চাই'। সময় বরাদ্দ হয়েছিল মাত্র দশ মিনিট। কিন্তু তিনি প্রায় এক ঘণ্টা ছিলেন জ্যোতিবাবুর কাছে। এতটাই আপ্লুত, শিশুর মতো সরল।

ফিদেল কাস্ত্রো একবার দমদম বিমানবন্দরে এসেছিলেন। সেইসময়ে জ্যোতিবাবু, প্রমোদ দাশগুপ্ত, ভবানী সেন দেখা করতে গিয়েছিলেন। সেই ছবির একটা আলবাম আমরা মারাদোনাকে দিয়েছিলাম। সেটা পেয়ে অসম্ভব খুশি হয়েছিলেন। যাওয়ার সময় বারবার খোঁজ নিয়েছিলেন, ওই ছবির আলবামটা দেওয়া হয়েছে তো?
মারাদোনা নিজের মনের বিশ্বাসকে কখনও গোপন করার চেষ্টা করেন নি। সেইজন্যই অন্ধকারের দুনিয়া থেকে বেরিয়ে এসে ফিরতে পেরেছিলেন ফুটবলের কাছে। জাতীয় দলের কোচ হতে পেরেছিলেন। মারাদোনা হচ্ছেন পৃথিবীর দলিত-শোষিত মানুষের হৃদয়ের জাদুকর।

 

ফিদেলের মৃত্যুদিবসেই প্রয়াত হলেন মারাদোনা, একেবারেই অপ্রত্যাশিত।  এ একধরনের সমাপতনও বলা যায়, আবার প্রাণের টান না মনের টান বলব জানি না। তবে তাঁর চেতনায় সমাজবাদ ছেয়ে ছিল এবং পুঁজিবাদের বিরুদ্ধে যে তাঁর তীব্র ঘৃণা, তার প্রমাণ আমেরিকার বিরুদ্ধে তাঁর কণ্ঠ বরাবর চড়া সুরে বেজেছে। আমি দুদিন মারাদোনার বাড়িতে আড্ডা দিয়েছি, তারপর কলকাতায় তিনদিন ছায়াসঙ্গীর মত ছিলাম। তাতে কাছ থেকে দেখেছি, কিভাবে ফিদেল কাস্ত্রো মারাদোনাকে প্রভাবিত করেছেন। মারাদোনার এই অপরাজেয় চরিত্রই তাঁকে স্মরণীয় করে রাখবে কালের বুকে।